শুক্রবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাসার ছাদ থেকে তরুণের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলা সদরে বাসার ছাদ থেকে ইয়াসিন আরাফাত (২০) নামে এক তরুণের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ইয়াসিনের দুই বন্ধুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। তারা হলেন আলভি ও একান্ত।

নিহত ইয়াসিন জেলার নবীনগর উপজেলার হাজী আব্দুর রহমান মিয়ার ছেলে। তিনি ওই ভবনে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন।

ইয়াসিনের পরিবারের লোকজন অভিযোগ করে জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে ইয়াসিনকে ওই বাসায় আসতে দেখেছে সবাই। কিন্তু শুক্রবার সন্ধ্যার পর থেকে তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। শুক্রবার মধ্যরাতে ইয়াসিনের বড় ভাই তুষার ইয়াসিনের ফেসবুক আইডিতে ঢুকে ম্যাসেঞ্জার দেখেন। এসময় তিনি দেখতে পান রায়হান নামে তার এক বন্ধুকে ইয়াসিন কান্নাজড়িত কণ্ঠে ভয়েস মেসেজ পাঠিয়েছে। সেখানে তাকে বাসার ছাদে আসার জন্য অনুরোধ করেন ইয়াসিন। কিন্তু রায়হান সেটি দেখেননি। এই ঘটনার পর তারা বিষয়টিকে গুরুত্ব দেননি। তারা ভেবেছিলেন ইয়াসিন হয়তো রাগ করে ছাদে বসে আছেন। পরে সকালেও সে বাসায় না ফেরায় পরিবারের লোকজন ছাদে গিয়ে ডাকাডাকি করেন।

এসময় ছাদের বাইরে থেকে দরজা লাগানো ছিল। পরে অন্য ছাদ থেকে গিয়ে ইয়াছিনের গলায় জিআই তার পেঁচানো মরদেহ দেখতে পায়। পরে দরজা খুলে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ এসে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।

নিহতের বাবা আব্দুর রহমান ইয়াসিনের বন্ধুদের অভিযুক্ত করে বলেন, ‘২০-২৫ দিন আগে ইয়াসিনকে তার কয়েকজন বন্ধু মারধোর করেছিল। একান্ত, আলভি, রায়হান ও প্রান্ত নামের কয়েকজন বন্ধুর সঙ্গে চলাফেরা করতো সে। তারাই তাকে হত্যা করেছে।’

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদ মাহমুদ জানান, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। খবর পেয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ইয়াসিনের দুই বন্ধুকে আটক করা হয়েছে। পরিবার থেকে এখনো অভিযোগ দেয়া হয়নি।

আর পড়তে পারেন