সোমবার, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বৃহত্তর কুমিল্লার চাঁদপুরে এই প্রথম পরিত্যক্ত ইটভাটায় বিদেশি ফলের চাষ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৭, ২০২০
news-image

 

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুরঃ

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৪নং শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের বড় শাহতলীতে পরিত্যক্ত ইটভাটায় চাষ হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির বিদেশি রসালো ফল।

এসব ফলের মধ্যে আছে- সাম্মাম, রকমেলন, মাস্কমেলনসহ তিন জাতের ব্যতিক্রম তরমুজ। (উপরে হলুদ ভেতরে লাল, ডোরাকাটা সবুজ (লম্বা) ভেতরে গাড় হলুদ এবং ডোরাকাটা সবুজ (গোলাকার) ভেতরে সিডলেস হলুদ রং। এছাড়া বিদেশি নানা জাতের আম, মালটা, ড্রাগন ফল, স্ট্রবেরী, ক্যাপসিকামসহ নানা প্রজাতির ফল।

চাঁদপুর সদর উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের তত্ত্বাবধানে বিশিষ্ট সমাজ সেবক, কৃষি উদ্দ্যোক্তা, সাংবাদিকতায় জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত চাঁদপুরের এক কৃতি সন্তান পরিত্যক্ত ইটভাটায় ড্রেজারের বালিতে মালচিং পেপার ও ড্রিপ সেচ পদ্ধতি ব্যবহার করে বিদেশী ফল চাষাবাদ করে দেখালেন চমক। সম্পূর্ণ ঝুঁকি নিয়ে ড্রেজারের বালিতে গড়ে তুলেছেন “ফ্রুটস ভেলি” নামক এগ্রো ফার্ম। প্রায় ৬০ বছরের চলমান পরিবেশ দুষণকারী ইটভাটার জমিতে চালু হয়েছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির এগ্রো প্রজেক্ট। প্রায় সাড়ে ৭ একর ভূমির মধ্যে প্রায় আড়াই একর জমিতে “ফ্রুটস ভেলি” প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এই প্রকল্পে বিশ্বখ্যাত উন্নত জাতের বেশ কিছু ফলের বানিজ্যিক চাষ চলছে যা দেশে সম্ভবত এই প্রথম।

বাগানটিতে থাকছে ৩ জাতের পারসিমন, লাল, হলুদ, পিংক, বেগুনি এবং গোল্ডেন ড্রাগন ফল, ব্লাড অরেঞ্জ, সিডলেস গ্রেফ ফ্রুটস বা Star rubz , বারমাসি ভিয়েতনামী মাল্টা আর অরেঞ্জ (Navel Oranges, Valencia, Florida Oranges, darjeeling orange, Jaffa orange), ৯ জাতের বিখ্যাত আম (অস্ট্রেলিয়ান হানিগোল্ড, আলফানসো, ব্যানানা/ নামডকমাই, কাটিমন, কিং অব চাকাপাত, মিয়াজাকি জাতের রেড ম্যাংগো বা সূর্যডিম, আমেরিকান পালমার, ব্রাজেলিয়ান পারপল ম্যাংগো এবং থ্রি টেস্ট), দুই জাতের এভাকাডো, তিন জাতের স্ট্রবেরি এবং পবিত্র কোরানের ত্বীন ফল। আরও থাকছে বিশ্বের দুষ্পাপ্য দুটি ফল সিডলেস আনার এবং সবুজ আতা (ঈযবৎরসড়ুধ)। এই দুটি জাত পরীক্ষামূলক চাষ হবে।

এসব বিশ্বখ্যাত ফলের ফলন আসতে প্রায় দেড় বছর অপেক্ষা করতে হবে। তাই সাথী ফসল হিসেবে চাষ হচ্ছে, বিখ্যাত সাম্মাম/ রকমেলন/ মাস্কমেলনসহ তিন জাতের আনকমন তরমুজ। (উপরে হলুদ ভেতরে লাল, ডোরাকাটা সবুজ (লম্বা) ভেতরে গাঢ় হলুদ এবং ডোরাকাটা সবুজ (গোলাকার) ভেতরে সিডলেস হলুদ রং। সুখবর হচ্ছে, প্রথমবারেই আশাতীত ফলন হয়েছে। আশা করছি আগামী মাসেই ৮০ শতাংশ অর্গানিক এসব ফল বাজারজাত করা যেতে পারে। উদ্যোক্তা হেলাল উদ্দিন আরও বলেন, ‘প্রায় ৩ বছর আগে আমার ৬০ বছরের পারিবারিক লাভজনক ইটভাটার ব্যবসা স্বেচ্ছায় বন্ধ করি।

তবে, এই জমিতে পরিবেশবান্ধব সবুজের সমারোহ গড়ে তোলা আসলেই কঠিন ছিল। পুরো ইটভাটা এলাকা এখন সবুজে সবুজে একাকার।’ এখানে সর্বাধুনিক সব কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহার করেছি। আমি চাই আমার এই বিষমুক্ত কীটনাশকমুক্ত অর্গানিক ফল পাইকারি মূল্যে সারাদেশের ক্রেতার হাতে তুলে দিতে,’ বলেন তিনি।

উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, ‘বৃহত্তর কুমিল্লার মধ্যে চাঁদপুরে এই প্রথম জৈব ও পরিবেশবান্ধব পদ্ধতিতে বিদেশি দুর্লভ ফল চাষাবাদ করে অনন্য নজির স্থাপন করেছেন তিনি। এসব বিদেশি ফল চাষে প্রথম বিনিয়োগেই দুষ্পাপ্য বিশ্বখ্যাত কিছু ফল বানিজ্যিক চাষের ঝুঁকিও নেয়া হয়েছে। আনকমন এসব নানা ফলের জাত সংগ্রহ করতে দীর্ঘ সময় অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে। মোটা অংকের অর্থও ব্যয় করতে হয়েছে। জাতগুলো বাংলাদেশের আবহাওয়া উপযোগী কি না তা নিশ্চিত হতে হয়েছে। বহু দৌড়ঝাপের পর যখন বোধগম্য হয়েছে প্রতিটি ফলের জাতই বানিজ্যিক চাষ উপযোগী তখনই বিনিয়োগের ঝুঁকি নেয়া হয়েছে। আমি মনে করি এই এগ্রো প্রকল্পটি হবে এদেশের একটি মডেল ফল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। যেখানে প্রথমবারের মত এমন কিছু ফলের চাষ হচ্ছে যা এতদিন ছিল অকল্পনীয়।প্রকল্পটি সফল হলে তা পুরো দেশেই ছড়িয়ে যাবে।

 

 

আর পড়তে পারেন