মঙ্গলবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বুড়িচং-ব্রাহ্মনপাড়ায় দেড় যুগেও আ’লীগ ও এর অংগসংগঠনের কোন কমিটি হয়নি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৫, ২০১৭
news-image

ব্যারিষ্টার সোহরাব খান চৌধুরীঃ
কুমিল্লা জেলার বুড়িচং-ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলা নিয়ে কুমিল¬া-৫ সংসদীয় আসন গঠিত। এই দুই উপজেলার আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অন্যান্য কমিটিগুলো দেড় যুগেও গঠিত হয়নি। পরবর্তী জাতীয় নির্বাচনের আগে কমিটিগুলো হবে কিনা এ নিয়েও সন্দেহ রয়েছে। এই কমিটি গুলো না হওয়ার কারনে হয়তো আগামী জাতীয় নির্বাচনেই এর প্রভাব পড়তে পারে।
বিভিন্ন সূত্রমতে, পকেট কমিটি ও পছন্দের প্রার্থীকে সভাপতি ও সম্পাদক করতে না পারার কারনে কমিটিগুলো হচ্ছেনা। কোথাও কোথাও আহবায়ক কমিটি আবার কোথাও কোথাও কমিটি বিহীন বা বিলুপ্ত কমিটির লোক দিয়ে সভা সমাবেশ করা হয়ে থাকে।
এ দুই উপজেলায় এক নায়কতন্ত্র চলছে। এখানে নিজের চেয়ার ঠিক রাখতে গিয়ে দেড়যুগেও কোন কমিটি করা হয়নি। এ আসনের আ’লীগ নেতারা বিরোধী মতের অনুসারীদেরকে কোণঠাসা করে বিভিন্ন রকম মামলা মোকদ্দমার জালে ফেলে অথবা সামাজিক সমস্যা সৃষ্টি করে ভিলেজ পলিটিক্সের মত তাদেরকে বোবা বানিয়ে একনায়কতন্ত্র কায়েম করেছে। যেখানে নেতাকর্মীরা থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ পর্যন্ত প্রতিবাদের ভাষা হারিয়ে রাম রাজত্বে বোবার ¯্রােতের অনুকুলে গা ভাসিয়েছে। নিজেদেরকে সমাজে টিকিয়ে রাখতে গিয়ে আওয়ামী লীগে লোক দেখানো যোগদানের নাটক সাজিয়ে এম.পি মহোদয়কে জানান দিচ্ছে আমরাও আছি আপনার সাথে। প্রকৃতপক্ষে আওয়ামীলীগে নব্য যোগদানকারীরা কখনোই আওয়ামী লীগের হবে না। প্রতিপক্ষের মামলা হামলা থেকে বাঁচার জন্য আওয়ামীলীগে যোগদানের নাটক চলছে। নেতা কর্মীরা অন্যায়ের প্রতিবাদী হওয়ার পরিবর্তে আপস করে জ্বি হুজুরের তালিকাটাকে এতটাই বড় করে ফেলেছে যে রাস্তাঘাটে যাকেই দেখা যায় তাকেই আওয়ামীলীগার মনে হয়। যার ফলে অপরাধ যেই করুক দোষ আওয়ামী লীগের উপর পড়ে। এ সুযোগে প্রকৃত অপরাধীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। নিজ দলের বিরোধী মতাবলম্বীদেরকে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ ভেবে সমাজে অন্যায়কারী, দুষ্কৃতিকারী, চাঁদাবাজ, মতলববাজ, মুনাফাখোর ও সমাজে বিশৃঙ্খলাকারীদেরকে সাথে নিয়ে চলছে নীতি নির্ধারকরা। ঘুসখোর, মাদকসেবী, চাঁদাবাজ, দুর্নীতিবাজদেরকে টেবিলের দুই পাশে বসিয়ে রেখে বক্তব্য দেয়া হচ্ছে ঘুষখোর, মাদকসেবী, চাঁদাবাজরা আওয়ামীলীগে থাকতে পারবে না। অথচ এই তালিকা বিরোধীমতকে দমন করার জন্য দিনে দিনে দীর্ঘ হচ্ছে। নেতৃত্ব সৃষ্টি করার পরিবর্তে নেতৃত্ব শুন্য করে যিনিই একবার চেয়ারে বসে গেছেন তিনি যেন আর উঠতে চাইছেন না। নিজের চেয়ার ঠিক রাখতে গিয়ে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ ও এর অংগ সংগঠনের কমিটিগুলো হলো কি হলো না তা নিয়ে মাথা ঘামাবার দরকার নাই। আর কে কি হলো না হলো তা নিয়ে চিন্তা করে লাভ কি আমার চেয়ার খানা ঠিক থাকলেই হলো। এই একনায়কতন্ত্রের অবসান না হলে এর মাসুল আওয়ামী ঘরানার তথা মুজিব আদর্শে বিশ্বাসীরা দিতে থাকবে।

আর পড়তে পারেন