সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বুড়িচং-দেবীদ্বার উপজেলার দুঃখ :কুমিল্লার ফুসফুস খ্যাত গোমতি নদী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৩, ২০২১
news-image

 

ইয়াসমীন রীমা:

কুমিল্লার খরস্রোতা গোমতি নদী এখন মাটিখেকো সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে মৃতপ্রায়। কুমিল্লা জেলার বুড়িচং ও দেবীদ্বার উপজেলায় চরের জমি হারিয়ে পেশা পরিবর্তন করেছে অনেক কৃষক। বাংলাদেশ ক্ষেতমুজুর সমিতি কুমিল্লা জেলা, সংগঠক এবিএম আতিকুর রহমান বাশার বলেন,“একদশকের বেশি সময় ধরে আদর্শ সদর উপজেলার গোলাবাড়ি জিরো পয়েন্ট থেকে দাউদকান্দি উপজেলার কলাতিয়া পর্যন্ত ৯০ কিলোমিটার দীর্ঘ নদীর প্রায় ৪ হাজার একর চরের জমিসহ নদীর বাঁধের ভেতরে কৃষকের ব্যক্তিমালিকানাধীন ফসলী জমি থেকে জোরপূর্বক মাটি কেটে বিক্রি ও বালু উত্তোলন চলছে।” স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের নজরধারীর অভাবেই মাটি কাটা ও বালু উত্তোলনের মহাযজ্ঞ চলছে।

বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর স্বেচ্ছসেবীর সংস্থা,সেন্টার ফর লাইব্রেরীর জসিমউদ্দিন মাষ্টার জানান, কংশনগর ,বাবুরবাজার, কামালখাড়া, শিমাইলখাড়া, কাড়ারখাড়া, কহেতরা,পূর্বহারা, রামনগর, নানুয়ারবাজার , মিথিলাপুর,বাহেরচর,শ্রীপুর,গোবিন্দপুর,কোমাল্লা,মালাপাড়া,মনোয়ারপুর, হাসনাবাদ, রামচন্দ্রপুর, কুসুমপুর, এবদারপুর, বাজেহুরা, মীরপুরসহ প্রায় ৫০টি স্পট বালু ও মাটিখোকোদের দখলে এবং দেবীদ্বার উপজেলার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মফিজুর রহমান বলেন, জাফরগঞ্জ, কালিকাপুর, খলিলপুর, পুরাতন বাজার, বড় আলমপুরসহ প্রায় ৩৫টি স্পট একাধিক সিন্ডিকেটের আওতায়।”

কুমিল্লা কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ মিজানুর রহমান বলেন,“গত পাঁচ বছরে দখলদারের কারনে দুটি উপজেলায় কৃষি জমি হ্রাস পেয়েছে সাড়ে ৫’শ একর এবং প্রায় ১ হাজার কৃষক তাদের পেশা পরিবর্তন করেছে। ১,০০০ হেক্টর জমিতে চাষাবাদে সম্পৃক্ত ছিলো ৫ হাজার কৃষক।”

কুমিল্লা জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়,বালুমহাল ইজারা দেওয়ায় অনেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও মাটি কাটার সুযোগ নেয়। নদী রক্ষায় গত চৈত্রমাসেই(১৪২৮বাংলা) ইজারা বাতিল হয়েছে। সরকারের নির্দেশনায় চলতি বছরে ইজারা দেয়া হয়নি।

মাটি খেকো সিন্ডিকেটের তান্ডব:
দেবীদ্বার উপজেলার চরবাকর, লক্ষীপুর, কালিকপুর, বড় আলমপুর, শিবনগরসহ আশপাশ এলাকা ঘুরে দেখা যায় এবং স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, নদীর পাড়ে ছোট ছোট টিনশেড ঘর করে পাহারাদার বসানো হয়েছে। প্রশাসনের লোকদের ওপর নজর রাখাই তাদের কাজ। ভেকু মেশিন দিয়ে মাটি কাটার পর তা শ্রমিকদের মাধ্যমে ট্রাকে তোলা হয়। সে মাটি চলে যায় ইটভাটায়। নদীর প্রস্থ গড়ে ৬৫ মিটার হলেও কোথাও কোথাও মাটি কাটার কারণে প্রস্থ প্রায় ১৫০ মিটার এবং তার অধিক। নদী ও জমি একসাথে মিশে যাওয়ায় বোঝার উপায় নেই কোনটি জমি আর কোনটি নদী। মাটি বোঝাই ট্রাক্টর চলাচলের কারণে নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে নির্মিত ব্রিজ ও পিলার হুমকির মুখে পড়েছে।

বুড়িচং উপজেলা প্রকৌশলী অনুপ কুমার বড়–য়া বলেন, মূলনদী দখল ছাড়াও বুড়িচং উপজেলায় চর দখল এবং বালু উত্তোলনকারী অবৈধ দখলদারের সংখ্যা প্রায় ২৩৫জন এবং দেবীদ্বার উপজেলায় প্রায় ১১৬জন। তিনি বলেন, “রাজনৈতিক পরিচয়ে বালু উত্তোলনসহ মাটি কেটে বিক্রি করছেন প্রভাবশালীরা। তাই অনেক সময় আমাদের পক্ষে বাঁধা দেওয়া সম্ভব হয়ে উঠে না।”

বুড়িচং উপজেলার মিথিলাপুর গ্রামের জমির মালিক রফিকুল ইসলাম ও জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এখানে মাটি কাটার সাথে অনেকগুলো বিষয় জড়িত রয়েছে। প্রথমত: জমির মাটিগুলো এমন গভীরভাবে খনন করা হয়, যাতে পাশের জমিটি বর্ষায় নদীতে ভেঙে পড়ার জোরালা সম্ভাবনা থাকে। এ কারণে বাধ্য হয়ে জমির মালিকরা ইটভাটার কাছে মাটি বিক্রি করে দিচ্ছেন। দ্বিতীয়ত: হলো বেশি মুনাফা। এ পাড়ের জমির মাটি বিক্রি করলে তা খুব সহজে নদীতে মিশে যায়। দেখা গেলো এ পাড়ের জমিটি নদীতে মিশে যাওয়ার কারণে ওই পাড়ে একই কৃষক আরও তিনগুণ বেশি জায়গার মালিক হয়ে যায়। প্রতিবছরই জমির দাম বাড়তে থাকে ফলে পরের বছর বেশি লাভের আশায় আবার মাটি বিক্রি করছে ভূমি মালিকরা। এভাবে মাটি বিক্রি চলতেই থাকে।

ফসলের সঙ্গে জীবিকা উদ্বাস্ত :
কুমিল্লার দুঃখ বলে খ্যাত গোমতি নদীটি ১৯৬৭সালে গতি পরিবর্তনের ফলে নদী থেকে প্রায় ৩০ ফুট উচুঁতে জেগে ওঠা চরগুলোতে প্রতি শীত মৌসুমে লালশাক, ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাউ, সীম-কলা ও গোল আলু, মিষ্টি আলু, কাচা মরিচ, ধনে পাতা, শস্য, খিরা আখসহ বিভিন্ন কৃষিপন্য চাষে ভাগ্য বদল হয়েছে এ অঞ্চলের অনেক কৃষকের। তারা এ চর থেকে এক ফসল ঘরে তুলেই ব্যস্ত থাকতে হতো আরেকটি ফসল রোপনের। এখন আর এ নদীকে কেন্দ্র করে কৃষকের ভাগ্য বদলের অর্থনীতির চাকা তেমন ঘুরছে না। গত ১০বছর যাবত নদীর মাটি দখল করে ভূমি খেকোরা থামিয়ে দিয়েছে সে চাকা।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের ভূমি অফিসে বহুবার গিয়েছেন রঞ্জিত দাস। তার পিতামহের নামে গোমতিপাড়ে ৩৩নং দাগের জমিটির ব্যাপারে। অফিসের কর্মচারীরা এই নামে এই দাগের কোনো জমির হদিশ দিতে পারেনি কেউ। অথচ দলিল মজুদ রয়েছে তার কাছে। হতাশ হয়ে ফিরেছে রঞ্জিত দাস। শিমপুরে পৈতৃকভিটায় রঞ্জিতরা থাকতেন আর পাড়ের ১১ শতক জমিতে বাপ-দাদারা ফসল ফলিয়ে জীবিকা উর্পাজন করতেন। খাস জমির নাম করে একদল ভূমিদস্যু তার জমিতে মাটি কাটার মেশিন চালিয়ে মাটি উজার করে নিয়ে গেছে। গত চারবছরে মাটি নিতে নিতে ফসলি জমির অবস্থা হয়েছে জলাভূমি। রঞ্জিত দাসকে হুশিয়ারি করা হয়েছে ভুলক্রমে না যেতে। এলাকার মেম্বার ও চেয়ারম্যান রীতিমতো ভূমিদস্যুদের দোসর। ক্ষমতাশীল আস্থাভাজন জয়নাল আবেদিন বলেন,“এটা আমার পৈতৃক সম্পত্তি তাদের পূর্বপুরুষের ভূমি বলতে কিছুই নেই এখানে।” শিমপুর গ্রামের সবচেয়ে পুরনো কৃষি গেরস্থালী রঞ্জিতের পরস্পরম্পার রংশধররা। বেঁচে থাকার তাগিদে গোমতিপাড়ের বানাসুয়া বাজারে হাসঁমুরগী বিক্রি করে। দিন শেষে বাড়ি ফেরার পথে দখল হয়ে যাওয়া মাটি উজার করা জমির বুকটা যেনো রঞ্জিতের চোখের জলে ভরাট হতে চায়।

বুড়িচং উপজেলার গোবিন্দপুর সমবায় সমিতির সাধারন সম্পাদক আবদুল খালেক বলেন, নদী তীরবর্তী ২০ হাজার কৃষকের আয়-রোজগারের উৎস ছিল গোমতী চরের শাকসবজি। প্রায় একলাখ মানুষের ভরণপোষণ চলত চরের জমিতে চাষবাদ করে। কোনোপ্রকার ওষুধ, কীটনাশক ও সার ছাড়া বছরে ২০কোটি টাকার শাকসবজি উৎপাদন হতো চরের জমিতে। এছাড়া অত্র এলাকার বেড়িবাঁধে প্রচুর কাঁঠাল ফলন হতো। আম, জাম, কলা, পেঁপে ও তালের সমাহার ছিল বাঁধ জুড়ে। মাটির উর্বরতা শক্তি নষ্ট হওয়ায় এ চরে বর্তমানে বছরে মাত্র দুই কোটি টাকার শাকসবজি উৎপাদন হচ্ছে। ফল আগের চেয়ে কম ধরছে। ফলের আকার ও গুণাগুণ নষ্ট হয়ে গেছে। শাকসবজি উৎপাদন করতে ব্যাপকহারে কীটনাশক ও সার ব্যবহার করতে হচ্ছে কৃষকদের।”
দেবীদ্বার উপজেলার কৃষক কামাল হোসেন বলেন, “গত পাঁচ বছর যাবত অটোরিকশা চালাই এবং চাষে ফলন ভালো হয়না। প্রশাসনের লোকজন এসে মাটি কাটার বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করলে কিছুক্ষণ বন্ধ থাকে । তারা চলে গেলে আবার শুরু হয় মাটি কাটা।”

পরিবেশগত সংঘাত সৃষ্টি:
অপরিকল্পিতভাবে মাটি কেটে নেয়ার ফলে নদীর পাড়ের গাছপালা উজার হচ্ছে। নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। রাতদিন মাটিবাহী ট্রাকের দাপটে অতিষ্ঠ নদীর দু‘পাড়ের বাসিন্দারা। নদী পাড় এলাকার ভুক্তভোগী শাহ আলম, আবদুল করিম চরের কৃষক আবুল মিয়া ও ময়নাল হোসেন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, “ট্রাক্টরের বালুতে বাড়িঘর অন্ধকার হয়ে যায়।”

এ প্রসঙ্গে পরিবেশ অধিদপ্তর কুমিল্লার উপ-পরিচালক শওকত আরা কলি বলেন,“ গোমতি নদীর মাটি বহনকারী ট্রাক্টর চলাচলের কারণে ধূলাবালিতে ক্ষতিগ্রস্থ কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ যাবত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আমরা অবশ্য ব্যবস্থা গ্রহন করবো।”

এ প্রসঙ্গে ভ্রাম্যমান আদালতের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: আবু সাঈদ বলেন,“ বর্তমানে যারা বালু তুলছে তারা সবাই অবৈধভাবে দখল ও বালু তোলার নামে অসহায় কৃষকের ফসলী জমি জোর করে কেটে নিয়ে যাচ্ছে । গত তিন মাসে বিভিন্ন উপজেলায় এ পর্যন্ত শতাধিক অভিযান পরিচালিত হয়েছে মোট ৮ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড ও ১৫জনকে অর্থদন্ড প্রদান করা হয়েছে। জব্দকৃত সকল যানবাহন রাষ্ট্র্যের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করে নিলামে বিক্রি করা হবে।”

দেবীদ্বার উপজেলার এসি ল্যান্ড মো: গিয়াসউদ্দিন আহমেদ জানান, “গোমতি নদীর বালু মহাল জলমহাল ইজারা ও রাজস্ব আদায়সহ বালু ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ মোবাইল কোর্ট কার্যকরের মাধ্যমে তত্ত্বাবধান করেন জেলা প্রশাসন আর পানি উন্নয়ন বোর্ড নদীর গতিপথ ও বাঁধসহ আনুষাঙ্গিক রক্ষণাবেক্ষন করেন। সর্বপরি চরের অনন্ত ৬০ হাজার কৃষকের পরিবেশ, সামাজিক এবং বাস্তুসংস্থানগত সমস্যা রোধ জরুরি।”

স্থানীয়দের অভিযোগ প্রসঙ্গে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আবদুল লতিফ বলেন,“ গোমতি নদীর বিভিন্ন অংশের বালু মহাল জেলা প্রশাসন ইজারা দিয়ে থাকেন কোন কোন শর্তে ইজারা দেয়া হয়েছে সেটা আমাদের জানা নেই তবে বছরে শুস্ক মৌসুমের প্রায় চারমাস যে পরিমান মাটি কাটা হয় বৃষ্টির মৌসুমে পলি জমে তার সিকি ভাগও পূরণ হয়না। ফলে ধীরে ধীরে নদীর প্রশস্ততা বেড়ে বাঁধও হুমকির মুখে পড়ছে।”

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন,“বছরের পর বছর এই বাণিজ্য চলছে। নদী দখল, নদী ভরাট এই দুটি একই সূত্রে গাথাঁ। নদীর চর অবৈধ দখল রোধ করা যেমন সময়ের দাবী তেমনি ভুয়া দলিল দস্তাবেজের মাধ্যমে যে সকল ভূমি দস্যু ক্ষমতার অপপ্রয়োগ করেন। তাদের চিহিৃত করে শাস্তির আওতায় আনাও সময়ের দাবি।”

 

আর পড়তে পারেন