রবিবার, ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বুড়িচংয়ে ভূয়া ম্যাজিষ্ট্রেট সাংবাদিক ও সন্ত্রাসী দিয়ে মার্কেট দখলের চেষ্টা! ৯৯৯ ফোন অতঃপর

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ১৯, ২০১৯
news-image

 

নিজস্ব প্রতিবেদক ;
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ফকির বাজার রেজভীয়া মার্কেটের কয়েকটি দোকান ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেট, সাংবাদিক এবং সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে কাশেম ও বাবুলের নেতৃত্বে জোর পূর্বক দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার ফকির বাজার রেজভীয়া মার্কেটের মালিক মোঃ ফারুক হোসাইন রেজভী । উক্ত মার্কেটের জায়গা নিয়ে জয়নাল আবদীনের সাথে তার বিগত কয়েক বছর যাবত বিরোধ চলে আসছিলো।

উক্ত বিরোধের জের ধরেই জয়নাল আবদীনের ভাই কাশেম সদর উপজেলার রসুলপুর এলাকার মৃত আঃ হাকিমের ছেলে ভাড়াটে সন্ত্রাসী বাবুল (৪৫) সহ আরো বেশ কয়েকজন কে মার্কেটের দোকান দখল করার জন্য ভাড়া করে আনে। অভিযোগকারী ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায় গত ১৭ অক্টোবর দুপুর ২টায় একটি কালো রংয়ের হাইএইচ গাড়ী (নাম্বার প্লেট ঢাকা মেট্রো-খ-১৩-২১৪৪) নিয়ে রেজভীয়া মার্কেটের সামনে এসে দাড়ায় এবং গাড়ী থেকে কাশেম, বাবুলসহ অজ্ঞাতনামা একজন মহিলা ও তিনজন যুবক গাড়ি থেকে নামে। তিনটি মোটর সাইকেল যোগে ৬/৭ জন সন্ত্রাসী বাবুলের সাথে যোগ দেয়। মার্কেটের দোকানদার কাজী মহিউদ্দিন বলেন বাবুলসহ অন্যরা তার খাবার হোটেলে এসে জানায় তার সাথে মহিলা ম্যাজিষ্ট্রেট, সাংবাদিক রয়েছেন। এবং গাড়ি আসা নারী ও যুবককে দেখিয়ে বলে, এখনি হোটেল ছেড়ে দিতে হবে, আমরা বিজ্ঞ আদালত থেকে রায় পেয়েছি। ম্যাজিষ্ট্রেট মেডাম এবং সাংবাদিক আসছে এখন উচ্ছেদের কাজ চলবে। দোকানদার মহিউদ্দিন মার্কেটের মালিকের সাথে কথা বলার জন্য মোবাইল হাতে নিতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এসময় বাইকে আসা যুবকরা আগ্নেয়াস্ত্র প্রদর্শন করে এবং মারধর শুরু করে মহিউদ্দিনকে । খাবার হোটেল এবং পাশ্ববর্তী ফার্নিচার দোকানের বিভিন্ন আসবাপত্র ভাংচুর করে দোকানের মালামাল এবং সাইন বোর্ড বাইরে ফেলে দেয়। দোকানদার সফিকুল ইসলাম জানান, খাবার হোটেল এবং আমার ফার্নিচার দোকানের মালামাল বাহিরে ফেলে দিয়ে আমার পাশের দোকান ভাঙ্গচুর চালাতে আসার সময় প্রথমে মার্কেটের মালিক এবং কিছুক্ষণ পর পুলিশ এসে মার্কেটের সামনে নামা মাত্রই ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেট, সাংবাদিক এবং বাবুলসহ সন্ত্রাসী বাহিনী ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত সটকে পড়ে।

তখন আমরা বুঝতে পারি এরা ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেট ও ভুয়া সাংবাদিক ছিলো। বাবুলের ফোনে বহুবার চেষ্টাকরে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। ঘটনার সাথে সাথে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল থেকে কাশেমকে থানায় নিয়ে যায়। মার্কেটের মালিক ফারুক হোসাইন জানান আমি খবর পেয়ে দ্রুত ৯৯৯ ফোন করে ঘটনা স্থলে আসে। মার্কেটের মালিক ফারুক অভিযুক্ত সন্ত্রাসী কাশেম এবং বাবুলকে ঘটনার কারন জিজ্ঞাসা করতেই তারা ক্ষিপ্ত হয়ে হুমকি ধমকি প্রদর্শন করে। পুলিশ আসার সাথে সাথে কাশেম ছাড়া সকলে উধাও হয়ে যায়। মার্কেট মালিক ফারুক এঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে বুড়িচং থানায় মামলা করেছেন মামলা নং ২১/৩৭৮। ফারুক আরো জানান, বর্তমানে মার্কেটের জায়গা নিয়ে উচ্চ আদালতে মামলা বিচারাধীন আছে মামলা নং-৫৫৮/১৮।

এই বিষয়ে জানতে বুড়িচং থানা পুলিশের এস.আই সুজন শ্যামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান আসামী কাশেমকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে কোর্টের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ভূয়া সাংবাদিক ও ম্যাজিস্ট্রেটসহ সন্ত্রাসী বাহিনীর অন্যন্যরা পালিয়ে যায়। ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আর পড়তে পারেন