সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বিশ্ব প্রকৃতি সংরক্ষণ দিবস আজ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৮, ২০১৭
news-image

সেলিম চৌধুরী হীরা ঃ
আজ ২৮জুলাই বিশ্ব প্রকৃতি সংরক্ষণ দিবস, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এ দিবসটি খুবই গুরুত্বপূর্ন। প্রকৃতি সরক্ষণ হলো সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত স্বাভাবিক ও নৈসর্গীক বস্তু সংরক্ষণ।
প্রতিটি মানুষ নিজ ও পরিবারের উন্নয়নের জন্য দিন-রাত আপ্রাণ চেষ্টা করে থাকেন উন্নয়নের যত উপাদান-উপকরণ যেমন: জীবগত, মানবগত, আলো, পানি, বাতাস, গাছ-পালা, পাহাড়, তরুলতা সবই প্রকৃতির দান। মানুষ জাতি যদি এই প্রকৃতির সাথে বিরুপ আচরণ করে তার ফলাফল অবশ্যই ভালো হবে না। সৃষ্টিকর্তার দান এই সবুজ প্রকৃতি না থাকলে মানুষের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে যেত। অবারিত ফসলের মাঠ আর বৈচিত্রময় বনাঞ্চল, বৃক্ষের সজিবতা, সবুজ-শ্যামলি পূর্ন আমাদের বাংলাদেশ। এ রকম প্রকৃতি পরিবেশে নিবিড় বন্ধনেই গড়ে উঠে মানব সভ্যতা। গাছ-পালা, ফল-মূল, পাখির মিষ্টি সূরের গান, আকাশ থেকে ঝড়ে পড়া বৃষ্টি, মাঠভরা সোনালী ফসল, পাহাড়, আলো-বাতাস সহ সৃষ্টিকর্তা সৃষ্টি সবই প্রকৃতিক সম্পদ। এসব সৃষ্টি করেছেন তা পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ব্যবহার হচ্ছে।
গাছ-পালা, বন-জঙ্গল, তরুলতা, জলজ উদ্ভিদ মানুষের জিবনের সাথে অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত। এগুলি ছাড়া মানুষের জিবন কল্পনাও করা যায় না। যেমন, প্রাণীকূল অক্সিজেন ছাড়া বাঁচতে পারে না, আর এই অক্সিজেনের পুরোটাই আসে গাছ-পালা থেকে। দিনদিন মানুষের জিবন যাত্রার মান পরিবর্তন হচ্ছে, সে সাথে বাড়ছে নানামূখী চাহিদা। শিল্প কলকারখানা নির্মান, রাস্তা-ঘাট নির্মান, উচু উচু দালান-কোঠা ক্রমবদ্ধমান নগরায়ন আমাদের সবুজ প্রকৃতিকে প্রায় অম্লান করে দিয়েছে। তাই বৃক্ষের সজিবতা কিংবা খাল, জলাভূমি কিংবা কিছু কিছু পাখ-পাখালি খুজে পাওয়া কঠিন। আপাত দৃষ্টিতে লাভজনক মনে হলেও বিদেশী আগ্রাসী উদ্ভিদের কারণে বনাঞ্চলের পরিমান কমে আছে। পাশাপাশি এদেশের পরিবেশকে ভারসাম্য হীনতার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। বনাঞ্চল কমে আসার কারণে াামরা হারিয়ে ফেলছি অনেক ঐতিহ্যময় জাতের পাখি ও প্রাণী। এতে করে প্রকৃতি সংরক্ষণের উপাদান ও গুণাগুণ নষ্ট হয়ে মানবজাতির বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। তাই আল্লাহর সৃষ্টি গাছ-পালা, পশু-পাখি, বন-জঙ্গল, পাহাড়-মাটি, পানি, আলো-বাতাস সহ সকল প্রাকৃতিক সম্পদের পরিমিত ব্যবহার ও ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সংরক্ষণ আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।
বাংলাদেশের সংবিধানে ১৮(ক) অনুচ্ছেদে বলা আছে “রাষ্ট্র বর্তমান ও ভবিষ্যত নাগরিকদের জন্য পরিবেশ সংরক্ষণ ও উন্নয়ন করিবেন এবং প্রাকৃতিক সম্পদ জীববৈচিত্র, জলাভূমি, বন ও বন্য প্রাণীর সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা বিধান করিবে”। তাই সংবিধান রক্ষা অঙ্গিকার সবার মাঝে থাকতে হবে। পরিবেশের সংরক্ষণের ব্যপারে মানুষকে সচেতন করার জন্য বছরব্যাপী বিভিন্ন দিনে ও নামে দিবস পালন করা হয়ে থাকে। স্বরণ রাখতে হবে যে, শুধু মাত্র দিবস পালনের মাধ্যমে যেন দায়িত্ববোধ শেষ না হযে যায়। দিবস পালনের সাথে সাথে সরকারি-বেসরকারিভাবে ব্যাপক গভেষণা ও অনুসন্ধান চালাতে হবে।

আর পড়তে পারেন