শুক্রবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বিশ্বযুদ্ধ থেকে স্বাধীনতাঃ গৌরব ও ত্যাগে কুমিল্লা সেনানিবাস

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২, ২০২১
news-image

লেঃ কর্ণেল মোঃ নাজমুল হুদা খান:

বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী প্রশাসনিক জেলা কুমিল্লা। অন্যান্য জেলার মত কুমিল্লা অঞ্চলটিও ইতিহাস, ঐতিহ্য, যুদ্ধ, দখল-পূর্ণদখল, জয়-পরাজয়, ত্যাগ-তিতিক্ষা এবং আধার-আলোয় ঘটনাবহুল। এ জেলায় অবস্থিত তৎকালীন ময়নামতি ও বর্তমান কুমিল্লা সেনানিবাসটি বাংলাদেশের চেয়ে পুরানো সেনা ছাউনী। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ থেকে শুরু করে স্বাধীনতা; কালের স্বাক্ষী এ সেনানিবাস। এ সেনানিবাসে আজো আছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের জয়-পরাজয়ের স্মৃতি চিহ্ন, তেমনি রয়েছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর অত্যাচার, হত্যাকান্ডের মর্ম পীড়ার চিহ্ন তেমনি রয়েছে মুক্তিকামী বাঙালী সেনাসদস্য ও মুক্তিযোদ্ধাদের ত্যাগ ও সাহসের গৌরবোজ্জল অধ্যায়।

কমলাঙ্ক থেকে কুমিল্লাঃ

কুমিল্লা ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের অংশ ছিল। ১৭৩৩ সালে বাংলার নবাব সুজাউদ্দিন খান, ত্রিপুরা রাজ্য আত্রুমন করে এবং কুমিল্লা অঞ্চল দখল করে নেয়। ১৭৬৫ সালে ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী ত্রিপুরা দখল করে এবং ১৭৬৯ সালে ঢাকা প্রদেশের অধিনস্ত করে এখানে একজন তত্ত্বাবধায়ক নিয়োগ দেয়। ১৭৯০ সালে এতদঞ্চলসহ ত্রিপুরাকে জেলায় স্থানান্তরিত করা হয়। দেশ বিভাগের পর ১৯৬০ সালে এ অঞ্চলকে বৃহত্তর কুমিল্লা জেলা হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয় । সর্বশেষ ১৯৮৪ সালে চাঁদপুর ও ব্রাক্ষণবাড়ীয়াকে পৃথক করে কুমিল্লা জেলার বর্তমান সীমানা নির্ধারণ করা হয়। কুমিল্লার নামকরনের অনেকগুলো প্রচলিত মতামতের মধ্যে চৈনিক পরিব্রাজক ওয়াং চোয়াং এর সমতট রাজ্যের ভ্রমনলিপি থেকে পাওয়া তথ্যটি বেশী গ্রহণযোগ্য ধারনা করা হয়। পঞ্চম শতাব্দিতে গুপ্ত সম্রাটদের রাজ্যভূক্ত  ত্রিপুরায় কিয়া-মল-ঙ্কিয়া নামক যে এলাকার বর্ণনা রয়েছে তা থেকেই কমলাঙ্ক বা কুমিল্লা নামকরণ করা হয়েছে বলে ধারনা করা হয়।

কুমিল্লা সেনানিবাসের গোড়াপত্তন ঃ

দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময় ১৯৪২ সালের শেষ দিকে জাপানীরা যখন বঙ্গোপসাগর দিয়ে তৎকালীন বার্মা বা বর্তমান মায়ানমার উপকুলে এসে রেংগুন শহর দখল করে, তখন ব্রিটিশ বাহিনী উত্তর দিকে হটে যায়। তখন তৎকালীন ১৪ আর্মির দায়িত্বে আসেন জেনারেল উইলিয়াম যোসেফ সিণম। বন্যামুক্ত পাহাড়ী অঞ্চল এবং তৎকালীন শাহসুজা সড়ক (বর্তমান ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক) পথে মিয়ানমারে যাতায়ত সুবিধা থাকায় কুমিল্লায় একটি বিমানবন্দর এবং ১৪ আর্মি কমান্ড পোষ্ট স্থাপন করা হয় । কমান্ড পোষ্টটির স্থায়িত্ব ছিল ১৯৪৩ সালের অক্টোবর থেকে ১৯৪৪ সালের অক্টোবর অবধি। এ কমান্ড পোষ্টকে ঘিরে বিশ্বযুদ্ধকালীন এখানে বড় সেনাক্যাম্প প্রতিষ্ঠা করা হয়। কয়েকটি অর্ডন্যান্স ডেপো ও ব্রিটিশ ভারতীয় মিলিটারী হাসপাতাল ছিল এ ক্যাম্প এলাকায়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জয়ের পর জেনারেল সিলম তার বাহিনী নিয়ে ভারতের মনিপুরের ইম্ফলে চলে যান, ফলে এ ক্যাম্প এলাকাটি অনেকটা পরিত্যাক্ত হিসেবে থেকে যায়। তবে সামরিক স্থাপনা সমূহ এবং মিলিটারী হাসপাতাল তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যায়। ভারত-পাকিস্তান বিভাগের পর ১৯৪৯-১৯৫০ সালে এটি ময়নামতি গ্যারিসন হিসেবে পূর্ণাঙ্গ সেনানিবাস হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।

১৯৫০ সালের ১২ জুলাই এ সেনানিবাসকে ময়নামতি সেনানিবাস হিসেবে নামকরণ করা হয়। একই বছরের অক্টোবর মাসে তৎকালীন পাকিসতানের ৫৩ ব্রিগেড এ সেনানিবাসে স্থানান্তরিত হয়। এর পূর্বে এখানে আগমন ঘটে পাঠান ও পাঞ্জাব রেজিমেন্টের বেশ ক’টি ইউনিট। ১৯৫০ সালের জানুয়ারিতে কুমিল্লা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল, ১৯৫১ সালের মে মাসে আর্মি সাপলাই ডিপো এবং একই বছর ডিসেম্বরে ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড স্থাপিত হয়। ১৯৫৫ সালে ময়নামতি সেনানিবাসের নাম পরিবর্তন করে কুমিল্লা সেনানিবাস নামকরণ করা হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধঃ স্মৃতির প্রতিধ্বনি

১। আংকেল বিল বা জেনারেল স্লিমের কমান্ড পোষ্ট ঃ কুমিল্লা সেনানিবাস বাংলাদেশের একটি অন্যতম প্রচীন সেনানিবাস। পূবর্তন ময়নামতি গ্যারিসন বা অগ্রবর্তী সেনা সরবরাহ কেন্দ্র স্থাপনের আগে এটি ছিল অতি প্রত্যন্ত অঞ্চল। একটি মাত্র গ্রাম ও ডজন খানেক ঘরবাড়ীই ছিল এতদঞ্চলের চিহৃ। তৎকালীন “শাহসুজা ‘ বর্তমানে ঢাকা চট্টগ্রাম সড়ক পথে মিয়ানমারে চলাচলের সুযোগ এবং জায়গাটি পাহাড়ে ঘেরা এবং বন্যামুক্ত অঞ্চল হিসেবে যেকোন সমরিক স্থাপনা স্থাপনের জন্য ছিল উপযুক্ত ।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ১৯৪২ সালের শেষ দিকে জাপানী বাহিনী বঙ্গোপসাগর পাড়ি দিয়ে বার্মার রেংগুন দখল করে। তখনকার অপ্রতিরোধ্য ও দুধর্ষ জাপানী বাহিনী চীন, ভিয়েতনাম, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড দখল করে পৌছে যায় কুমিল্লা ও ফেনী অবধি। এমতাবস্থায় বিপর্যস্ত ব্রিটিশ -ভারত বাহিনীর নেতৃত্ব দেয়ার জন্য ১৪ আর্মির কমান্ডের দায়িত্ব পান লেঃ জেনারেল উইলিয়াম যোসেফ সিলম। তার দায়িত্ব গ্রহণের পর ১৯৪৩ সালের অক্টোবর মাসে কুমিল্লায় স্থাপন করা হয় চতুদর্শ আর্মির সদর দপ্তর বা কমান্ড পোষ্টটি যা মার্শাল সিলমের কমান্ড পোষ্ট হিসেবে খ্যাত। এটি কার্যকর ছিল ১৯৪৪ সালের অক্টোবর মাস পর্যন্ত। জাপানী বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধসহ ব্রিটিশ ভারত বাহিনীর চতুদর্শ আর্মির সদর দপ্তর ছিল এটি। ১৪ আর্মির সকল কার্যত্রুমের কেন্দ্রস্থল ছিল মার্শাল সিলমের কমান্ড পোষ্টটি। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় মিত্র শক্তির সকল কার্যক্রমের উৎস ছিল এ কমান্ড পোষ্ট।

চতুর্দশ আর্মির সদর দপ্তর ছিল কোলকাতার ব্যারাকপুরে, ব্যারাকপুর থেকে ইম্ফলের দুরত্ব ছিল প্রায় ৪০০ মাইল। যুদ্ধের প্রয়োজনে কোলকাতা থেকে সদর দপ্তর আরও পূর্ব দিকে স্থানান্তর ছিল সময়ের দাবী। এছাড়া সেনা বাহিনীর পাশাপাশি বিমান বাহিনী থাকাটা ছিল জরুরী। যেহেতু কুমিল্লায় একটি এয়ার ষ্ট্রিপ তৈরী হয়েছিল তাই কৌশলগত কারণে কুমিল্লা ছিল চর্তুদশ আর্মির কামান্ড পোষ্ট নির্মাণের উপযুক্ত স্থান।

কমান্ড পোষ্টটি কংক্রিটের ঢালাই এবং রেলওয়ে সামগ্রী দিয়ে তৈরী করা হয়েছিল। পুরো কমান্ড পোষ্টটিতে বাতাস চলাচলের জন্য কেন্দ্র থেকে একটি উচু চিমনী তৈরী করা হয়েছিল। কমান্ড পোষ্টটির তিনটি প্রবেশ পথ ছিল এবং প্রতি প্রবেশ পথে ৪২টি করে সিড়ির চিহৃ পাওয়া যায়। কমান্ড পোষ্টের কক্ষগুলো কংক্রিটের স্ল্যাভ এবং কাঠের দরজা দিয়ে তৈরী করা হয়েছিল। তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতীয় বাহিনীর শত্রুতা জাপানী বাহিনীর বিমান হামলা থেকে রক্ষা পেতে মাটির নিচে গড়ে তোলা হয় এই কমান্ড পোষ্টটি। আকাশ থেকে যাতে বোঝা না যায়, সে জন্য আশেপাশের ছোট বড় টিলার সাথে মিল রেখে কমান্ড পোষ্টের উপরিভাগ ছোট বড় টিলার মতো করা হয়। কমান্ড পোষ্টটিতে ছিল বাহিনী প্রধাণের অফিস কক্ষ, কনফারেন্স হল, অপারেসন্স কক্ষ, লজিষ্টিক ষ্টাফ কক্ষ, বার্তা ক্রিপ্টো সেন্টার, সিগন্যাল সেন্টার, অভ্যর্থনা কক্ষ ও বাহিনী প্রধানের চীফ অফ ষ্টাফের অফিস। কমান্ড পোষ্টের পাশাপাশি এখানে একটি মিলিটারী হাসপাতাল এবং যুদ্ধ সরঞ্জাম সরবরাহের জন্য আর্মি অর্ডন্যান্স ডিপো স্থাপন করা হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ তথা এ কমান্ড পোষ্টকে কেন্দ্র করে গড়ে তোলা হয় কুমিল্লা বিমানবন্দর। এটিকে যুদ্ধের জন্য বিমান ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহৃত হতো। এখানে ৩ শ যুদ্ধ বিমান এবং ৫০টি বোমারত বিমান ছিল বলে কথিত রয়েছে।
মার্শাল সিলম চতূদর্শ আর্মির নেতৃত্ব দেয়ার পূর্বে ১৯৩৭ সালে এতদঞ্চলে ২য় ও ৭ম গুর্খা বাহিনীর কমান্ডার, ১৯৩৯ সালে বিশ্বযুদ্ধের শুরুতে সুদানে ৫ম ভারতীয় ডিভিশনে ব্রিগেড কমান্ডার, ১৯৪১ সালে ইরাকে দশম ভারতীয় বাহিনীর কমান্ডারের দায়িত্ব সাহসিকতার সাথে পালন করেন। তার দায়িত্ব পালনকালে ১৯৪৩ সালে জাপানী বাহিনীর সাথে আরাকান, কোহিমা ও ইম্ফলের যুদ্ধে জাপানী বাহিনীকে চরম বিপর্যস্ত করে স্লিমের নেতৃত্বে ব্রিটিশ/ভারত বাহিনী। এ তিনটি যুদ্ধে জাপানীদের প্রায় ৬৫ হাজারের বেশী সদস্য নিহত হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জয়লাভের পর জেনারেল স্লিম তাঁর বাহিনী নিয়ে ভারতের মনিপুরের ইম্ফলে চলে যান। তবে ক্যাম্প এলাকাটি পরিত্যত্তু থাকলেও অন্যান্য  স্থাপনা রক্ষণাবেক্ষণ করে কার্যকর রাখা হয়। লেঃ জেনারেল উইলিয়াম যোসেফ সিলম ১৯৪৫ সালে জেনারেল পদে পদোন্নতি পেয়ে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সহল বাহিনীর কমান্ডার ইন চীফ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ ফিল্ড মার্শাল পদে ইম্পেরিয়াল জেনারেল ষ্টাফের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন এবং ১৯৫৩-১৯৬০ সাল পর্যন্ত  অস্ট্রেলিয়ার গভর্ণর জেনারেলের দায়িত্ব পালন করেন। ফিল্ড মার্শাল সিলম ১৯৭০ সালের ১৪ ডিসেম্বর লন্ডনে মৃত্যুবরণ করেন।

এ কমান্ড পোষ্ট নির্মাণে তৎকালীন যারা ভূমিকা রেখেছিলেন তারা হলেনঃ

– মেজর জেনারেল স্নেলিং – প্রশাসনিক প্রধান
– এয়ার মার্শাল থমাস উইলিয়াম – এয়ার অফিসার কমান্ডিং
– ব্রিগেডিয়ার ষ্টিভ ইরভিন – চীফ অফ ষ্টাফ
– ব্রিগেডিয়ার বোয়েন- চীফ সিগন্যাল অফিসার
– এয়ার মার্শাল জন বাল্ডউইন – কমান্ডার অফ ট্যাকটিক্যাল এয়ার ফোর্স
– ব্রিগেডিয়ার ওল্ড- কমান্ডার জয়েন্ট আমেরিকান ব্রিটিশ ভারতীয় ট্রুপস কমান্ড
– ব্রিগেডিয়ার লয়েড- পরিচালক, ইঞ্জিনিয়ার্স ওয়ার্কস
– কর্ণেল কিচেন – পরিচালক, ইঞ্জিনিয়ার্স স্টোরস
– কর্ণেল প্রিচার্ড – চীফ ইঞ্জিনিয়ার্স, এয়ার ফোর্স

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের স্মৃতি বিজরিত ফিল্ড মার্শাল স্লিমের কমান্ড পোষ্টটি এখন সংস্কার ও পূর্ণনির্মান করে যাদুঘর হিসেবে রক্ষণাবেক্ষণ হচ্ছে। কুমিল্লা সেনানিবাসের আন্ডারপাস এলাকা সংলগ্ন প্রধান সড়কের ডান পার্শ্বে অবস্থিত এ কমান্ড পোষ্টটি প্রতিবছর হাজার হাজার লোক পরিদর্শন করে থাকে।

২। ময়নামতি ওয়ার সিমেট্রি বা যুদ্ধ কবরস্থান ঃ

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জাপানী বাহিনীর বিরুদ্ধে ব্রিটিশ-ভারত মিত্র বাহিনীর যুদ্ধে প্রায় ৪৫০০০ সৈনিক নিহত হয়। তাদের স্মৃতি রক্ষার্থে মিয়ানমার, ভারতের আসাম ও বাংলাদেশের চট্রগ্রাম ও কুমিল্লায় সর্বমোট নয়টি সমাধিক্ষেত্রে তৈরী করা হয়। এগুলো ওয়ার সিমেট্রি হিসেবে খ্যাত। কুমিল্লায় ময়নামতি ওয়ার সিমেট্রিটি ১৯৪৬ সালে স্থাপিত হয়েছে। সেনানিবাসের কাছে এ সমাধিক্ষেত্রটি তৈরী করেছিলেন কমনওয়েলথ ওয়ার গ্রেভস কমিশন। সমাধিক্ষেত্রটিতে ব্রিটিশ-ভারত বাহিনীতে কর্মরত ও যুদ্ধে নিহত এবং যুদ্ধের পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন কারনে তৎকালীন সামরিক বাহিনীর সদস্যদের এখানে সমাহিত করা হয়। এখানে মোট ৪৩৬ জন সেনা, ১৬৬ জন বিমান সেনা ও ৩ জন নৌসেনা অর্মতভূত্তু ছিল। তবে ৭২৩ জন ছাড়া বাকি ক’জনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। এ সমাধিক্ষেত্রে শায়িত প্রায় সকলেই তৎকালীন ব্রিটিশ-ভারত ও জাপানী বাহিনীর সদস্য এবং নিম্নোক্ত বিভিন্ন দেশের নাগরিক।
যুক্তরাজ্যের ৩৫৭ জন, অধিভুক্ত ভারতের ১৭৮ জন, পশ্চিম আফ্রিকার ৮৬ জন, পূর্ব অফ্রিকার ৫৬ জন, জাপানের ২৪ জন, অষ্ট্রেলিয়ার ১২ জন, কানাডার ১২ জন, নিউজিল্যান্ডের ৪ জন, রোডেশিয়ার ৩ জন, বেলজিয়াম, পোল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা (০১ জন করে) ৪ জন । মোট ৭৩৭ জন জন।
আর্মি – ৫৬৭ জন
নেভী – ০৩ জন
বিমান বাহিনী – ১৬৬ জন
অসামরিক – ০১ জন
সর্বমোটঃ ৭৩৭ জন

কমনওয়েলথ গ্রেভস কমিশনের পরিচালনায় ওয়ার সেমিট্রিটিতে অত্যমত দক্ষ ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার ছাপ রয়েছে। কবরস্থানটির ৪টি অংশ রয়েছে- সামনের অংশে ব্রিটিশ, অষ্ট্রেলিয়া, কানাডা, নিউজিল্যান্ড ও অন্যান্য ইউরোপ দেশের মিত্র বাহিনীর সেনাদের কবর। উচু টিলার উপর সমতল অংশের পেছনে রয়েছে অবিভক্ত ভারতীয় বাহিনীর মুসলিম সেনাদের কবর। টিলার ঢালের বাম দিকের সমতল অংশে দু’টি ভাগে বিভক্ত- সর্ব বামে তৎকালীন জাপানী বাহিনীর সেনাদের কবরস্থান এবং ডান দিকটায় ব্রিটিশ ভারতীয় বাহিনীর আফ্রিকান সৈন্যদের কবর।
২য় বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী সেনাসদস্যগণ যারা তৎকালীন মিলিটারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বা যুদ্ধে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মৃত অবস্থায় স্থানান্তর করা হয়েছিল তাদেরই কবর রয়েছে এখানে। প্রতিবছর বিভিন্ন ধর্মের ধর্ম যাজকদের সমন্বয়ে বার্ষিক প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থী এ ঐতিহাসিক স্থানটি পরিদর্শন করতে আসে।

৩। মিলিটারী হাসপাতাল ঃ

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে জাপানী বাহিনীর হতে যখন ব্রিটিশ ভারতীয় বাহিনী পরাজিত ও বিপর্যস্ত হয়ে মনোবল ভেঙ্গে পড়ে, তখন চতুদর্শ আর্মির দায়িত্ব পান জেনারেল উইলিয়াম স্লিম, এ এলাকাটি বন্যা মুক্ত পাহাড়ী অঞ্চল ও শাহসুজা রোড হয়ে মিয়ানমারে যাতায়াত সুবিধা থাকায় কুমিল্লাতে একটি বিমান বন্দর নির্মাণের প্রক্রিয়াধীন ছিল। তাই সার্বিক যোগাযোগ সুবিধা থাকায় এখানে তার কমান্ড পোষ্টটি নির্মিত হয়। এ কমান্ড পোষ্টটিকে ঘিরে এখানে একটি বড় সেনা ক্যাম্প প্রতিষ্ঠিত হয়। যুদ্ধের রশদ সরবরাহের জন্য এখানে কয়েকটি অর্ডন্যান্স ডিপো এবং হতাহতদের চিকিৎসা সেবার জন্য ব্রিটিশ এবং ভারতীয় মিলিটারী হাসপাতালও স্থাপন করা হয় এ সেনা ক্যাম্পে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের জয়ের পর জেনারেল সিলম তার বাহিনী নিয়ে ভারতের ইম্ফলে চলে যান কিমও সেনা ক্যাম্পে অন্যান্য স্থাপনার সাথে মিলিটারী হাসপাতালটি চালু থাকে। দেশ বিভাগের পর ১৯৫০ সালের জানুয়ারি মাসে মিলিটারী হাসপাতালটি কুমিল্লা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল হিসেবে রূপান্তরিত হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে হতাহত ব্রিটিশ-ভারতীয় সেনাবাহিনীর সদস্যসহ শত্রু জাপানী বাহিনীর আহতদেরও চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হতো এ হাসপাতালে। তখনকার আমলে এতদঞ্চলে ম্যালেরিয়া, ডায়রিয়া ও চর্মরোগের প্রকোপ ছিল তাই এ হাসপাতালের সাথে একটি সংক্রামক রোগ বিভাগও চালু ছিল। যুদ্ধ চলাকালে আহত ব্রিটিশ ভারতীয় বাহিনী বা জাপানী বাহিনীর আহত বন্দি যারা এ মিলিটারী হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছিলেন, তাদেরকে ময়নামতি ওয়ার সেমিট্রিতে সমাহিত করা হয়েছে।

স্বাধীনতা যুদ্ধ : কুমিল্লা সেনানিবাসের গৌরভ গাঁথা-

১। যাদের রক্তে মুক্ত স্বদেশঃ

১৯৭১ সালে কুমিল্লা সেনানিবাসের পুরো এলাকাটিতে বধ্যভূমিতে পরিনত করে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী। এখানে বাঙ্গালী অফিসার, সৈনিকসহ এ অঞ্চলের বুদ্ধিজীবি, রাজনীতিক, শিক্ষাবিদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী, গৃহবধুসহ কেউই নিসতার পায়নি হানাদার বাহিনীর রোষানল থেকে। স্বাধীনতার পর এ সেনানিবাসের গোটা এলাকার ঝোপঝাড়, টিলার আড়ালে, কাশবন, ডোবা-নালা সর্বত্র অসংখ্য লাশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকতে দেখা যায়। কুমিল্লা সেনানিবাসে ছোট বড় ১২টি গণ সমাধি খনন করে সাত সহস্রাধিক নরকঙ্কাল পাওয়া যায়। মুক্তিযুদ্ধে এ সকল শ্রদ্ধাভাজন শহীদদের স্মরণে কুমিল্লা সেনানিবাসের টিপরা বাজার প্রধান ফটক সংলগ্ন স্থানে নির্মিত হয়েছে স্মৃতিসৌধ “” যাদের রক্তে মুক্ত স্বদেশ” । ১৯৭৪ সালের ১১ই মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহপতি আব্দুর রশীদের নকশা ও মডেল অবলম্বনে নির্মিত এ স্মৃতি স্মারক উদ্বোধন করেন। স্মৃতিসৌধ কমপ্লেক্সে স্বাধীনতা যুদ্ধে বিভিন্ন সমরাস্ত্র সম্বলিত একটি আধুনিক সমর যাদুঘর স্থাপিত হয়েছে। এ স্মৃতিসৌধের বেদীর সন্নিকটে সমাহিত আছে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ২৪ জন সেনাসদস্য। জাতীয় দিবস সমূহ ও সশস্ত্র বাহিনীর বিশেষ দিবস সমূহে এ স্মৃতি স্তম্ভের বেদীতে শহীদদের স্মরণে পুস্প স্তবক অর্পণ করা হয়। সারাবছর এ স্মৃতিসৌধে বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রী এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রশিক্ষণার্থীগণ মহান এ স্মৃতিস্তম্ভ পরিদর্শন করে দেশের সাহসী সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

২। একাত্তরের বধ্যভূমি স্মরণে স্মৃতিসৌধঃ   তুমি রবে নীরবে, হদদয়ে মম-

১৯৭১ সালের ২৯ মার্চ কুমিল্লা সেনানিবাসের সমস্ত বাঙ্গালী সেনা কর্মকর্তা, সেনাসদস্যবৃন্দ এবং সেনানিবাসে অবস্থিত বেসামরিক ব্যাক্তিবর্গকে পাক হানাদার বাহিনী অন্তরীন করে। এছাড়াও কুমিল্লা সেনানিবাসের পাশ্ববর্তী এলাকা এবং কুমিল্লা শহর থেকে অনেক ব্যাক্তিবর্গকে কুমিল্লা সেনানিবাসে ধরে আনা হয় । ২৯ মার্চ শুরু হয় এক নারকীয় হত্যাযজ্ঞ । সবচেয়ে বড় হত্যাযজ্ঞ চালানো হয় কুমিল্লা সেনানিবাসের স্কোয়াশ রতম ও তার পাশ্ববর্তী এলাকায় । ২৪ জন সামরিক অফিসার, ৩০০ জন বিভিন্ন পদবীর সেনাসদস্যসহ সেনানিবাসে অবস্থানকারী প্রায় ৫০০ জন ব্যাক্তিকে সেদিন বর্বর পাক -হানাদার বাহিনী নির্মমভাবে হত্যা করে । বিভিন্ন জায়গায় হত্যাকান্ড চালিয়ে তারা অনেক মৃতদেহ বর্তমানে এই অবস্থানে গণকবর দেয় । পরবর্তীতে এখানে সমাহিত শহীদদের কিছু সংখ্যক মৃতদেহ সনাক্ত করে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক ও পুলিশের তত্বাবধানে সেনানিবাসের বিভিন্ন স্থানে ও কুমিল্লা শহরে পুনরায় সমাহিত করা হয় । অন্যান্য অনেক শহীদদের মৃতদেহ বর্তমানে অবস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত আছে ।

একাত্তরের বধ্যভূমিতে স্মৃতিসৌধঃ তুমি রবে নীরবে, হৃদয়ে মম

এ বীর শহীদদের স্মরণে সেনানিবাসের এমআর চৌধুরী গ্রাউন্ডের পূর্ব পার্শ্বে উচু টিলার চূড়ার পাদদেশেই স্থাপিত হয়েছে বীর শহীদদের স্মৃতি স্তম্ভ “” তুমি রবে নীরবে, হদদয়ে মম”। যাদের তথ্য পাওয়া গেছে এমন ১৪৭ জন বীর শহীদের নামাঙ্কিত রয়েছে এ সৌধের শোকের প্রতীক কালো ফলকে।

৩। স্বাধীন স্বদেশ তোমাদের দানঃ

কুমিল্লা সেনানিবাসের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত তৎকালীন ৪০ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্স (বর্তমানে ৩১ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের) প্রধান অফিস প্রাঙ্গনে উচু টিলার পাদদেশে নির্মিত এ স্মৃতি স্তম্ভে প্রোথিত আছে ৪৭ বীর শহীদদের নাম। তৎকালীন ৪০ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের প্রধান কার্যালয় অবস্থিত সে টিন শেড বিল্ডিং এর বারান্দায় তৎকালীন পাক হানাদার বাহিনীর বাঙ্গালী সেনাদের হত্যায় ব্যবহৃত অসংখ্য বুলেটের চিহৃ রয়েছে এখনো।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ১৯৭১ সালে ৪০ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্স কুমিল্লা সেনানিবাসে স্বাভাবিক দায়িত্ব পালনে নিয়োজিত ছিল। লেঃ কর্ণেল এন এ এম জাহাঙ্গীর তখন এই ইউনিটের অধিনায়ক। ২৫ মার্চের কালো রাতের পরে যে সকল বাঙ্গালী সামরিক কর্মকর্তা ও সৈনিক সেনানিবাসে আটকা পড়েছিলেন তাদের প্রায় কেউই আর বেরিয়ে যেতে পারেনি। ময়নামতি সেনানিবাসে বাঙ্গালী সৈনিকদের নারকীয় হত্যাযজ্ঞের মুল নায়ক ছিলেন পাকিস্তানী ৫৩ ফিল্ড আর্টিলারীর লেঃ কর্ণেল ইয়াকুব মালিক। অধিকাংশ হত্যাযজ্ঞ সংগঠিত হয়েছিল তৎকালীন ব্রিগেড হেডকোয়ার্টাস, ইস্পাহানী পাবলিক স্কুল ও ফতেহ মোহাম্মদ স্টেডিয়াম (বর্তমানে এম আর চৌধুরী স্টেডিয়াম) এর দক্ষিণ প্রান্তে।
২৭ মার্চ ১৯৭১ তারিখ সকালে বাঙ্গালী সৈনিক অধ্যুষিত অন্যান্য ইউনিটের মতো ৪০ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্স এর সকল অস্ত্র জমা দেওয়ার নির্দেশ আসে। অধিনায়ক এর আদেশ গ্রহণ করেন, কিমও পাক সেনা কর্মকর্তাদের আসল উদ্দেশ্য অনুমান করতে পরে কিছু অস্ত্র জমা দিয়ে বাকি অস্ত্র লুকিয়ে ফেলেন। তিনি ইউনিটের সকল সদস্যকে নির্দেশ দেন যে, যদি মৃত্যু অনিবার্যই হয়, তবে ঐ সকল অস্ত্র নিয়ে বীরের মত যুদ্ধ করে জীবন উৎসর্গ করবে; কিন্তু আত্মসমর্পন করে নিজেকে তথা মাতৃভূমিকে কলংকিত করবে না।

২৯ মার্চ ১৯৭১ তারিখে শুরু হয় ময়নামতি সেনানিবাসের নারকীয় হত্যাযজ্ঞ। বিকেল আনুমানিক সাড়ে তিনটার দিকে, ৪০ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের অবস্থানে আর্টিলারী ও মেশিনগানের তীব্র আওয়াজ চর্তুদিকে প্রকম্পিত করে তুললেও ৪০ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের সদস্যদের মনে ছিলনা কোন দ্বিধাদ্বন্দ্ব। দেশ মাতৃকার জন্য জীবন দিতে তারা ছিল প্রস্তুত। শত্রুর বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধের অগ্নি স্ফুলিঙ্গ জ্বলে উঠেছিল তাদেরই হাতে। বর্তমানে ৩৫ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের সীমানা প্রাচীরে অবস্থিত টিলায় তৈরী সারিবদ্ধ ব্যাংকার থেকে ভারী অস্ত্রে সজ্জিত পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে হালকা অস্ত্র নিয়ে বীরের মত যুদ্ধ করে ৩ জন সদস্য ব্যতীত ইউনিটের বাকি সবাই শাহাদাত বরণ করেন।

৩০ মার্চ ১৯৭১ এর প্রত্যুষে পাক বাহিনীর দুজন সিপাহী তাদের উধ্বর্তন কর্মকর্তার নির্দেশে তৎকালীন ৪০ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্সের লেঃ কর্ণেল জাহাঙ্গীরকে তাঁর বাসা থেকে উঠিয়ে ব্রিগেড হেডকোয়ার্টার্সে নিয়ে যায়। ব্রিগেডের তৎকালীন পাকিস্তানী প্রশাসনিক জেসিও আকবর খান লেঃ কর্ণেল জাহাঙ্গীরকে ব্রিগেড হেডকোয়াটার্সের সামনে চোখ বেঁধে একটি গর্তের পাশে গুলি করে হত্যা করে।

পরবর্তীতে ১৯৭২ সালের মার্চ মাসে লেঃ কর্ণেল জাহাঙ্গীরের মরদেহ ব্রিগেড হেডকোয়ার্টাস সংলগ্ন বধ্যভূমি থেকে তুলে নিয়ে কুমিল্লা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের ভিতরে অবস্থিত একটি টিলায় পূর্ণ সামরিক মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। ৪০ ফিল্ড এ্যাম্বুলেন্স এর অন্যান্য শহীদদের মরদেহ শায়িত রয়েছে কুমিল্লা সেনানিবাসে অবসিহত স্বাধীনতা যুদ্ধে স্মৃতি বিজরিত “” যাদের রক্তে মুক্ত স্বদেশ” সংলগ্ন কবর স্থানে।

প্রতিবছর এ স্থানে শহীদ পরিবারবর্গের সদস্যসহ সেনানিবাসের সকলের অংশগ্রহণে শহীদদের উদ্দেশ্যে দোয়া, পুস্পস্তবক অর্পণ ও স্মৃতিচারণমূলক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। শহীদদের পরিবারকে প্রয়োজন অনুযায়ী সেনানিবাস কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে সাহায্য সহযোগিতাও করা হয়।

৪। স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ মহীয়সী নারীর সমাধী ক্ষেত্রঃ

কুমিল্লা সেনানিবাসে পাক হানাদার বাহিনী শুধুমাত্র বাঙ্গালী সেনাসদস্যদেরই হত্যা করেনি। কুমিল্লা অঞ্চলের সুধীজন, ছাত্র-যুবক, স্বাধীনতাকামী মুত্তিুযোদ্ধা ও সমর্থক নির্বিশেষে সেনানিবাসের বধ্যভূমিগুলোতে হত্যা করা হয়। তরুন যুবতীদের উপরও চালিয়েছে লাঞ্চনা ও নির্যাতন, যুদ্ধকালীন সময়ে পাক বাহিনীর হাতে নির্যাতিত ও শাহাদাৎ বরণকারী এক মহীয়সী যুবতীর সমাধিক্ষেত্র রয়েছে বর্তমানে সেনা ইঞ্জিনিয়ার্স ব্যাটালিয়নের বোট শেডের সম্মুখ ভাগে। সে সাহসী নারী তৎকালীন কুমিল্লা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী শাহীন আক্তার বানু। তার নিজ হতে লেখা একটি চিরকুট তাঁর শাহাদাত কালীন সময়ে পাওয়া যায়। সেখানে লেখা আছে –
“” আমি জীবনের প্রারম্ভেই পাকিস্তান হানাদার বাহিনী কর্তৃক অপমানিত ও লাঞ্চিত হয়েছি, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ভ্রাতৃপ্রতীম সদস্যগণ ভুলে যেওনা যে, স্বাধীনতার জন্য সহস্রাধিক ভাই ও বোনেরা এভাবে সর্বস্ব বিলিয়ে দিয়েছে”।
তার চিরকুটের লেখাটি সমাধিক্ষেত্রের পাশে একটি তাম্র লিপিতে লিপিবদ্ধ রয়েছে।

স্বাধীনতাত্তোর কুমিল্লা সেনানিবাসঃ  উন্নয়নের নব প্রত্যয়-

১। জাতির পিতার স্বপ্ন- বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমী :  স্বাধীনতা লাভের পর জাতির পিতার স্বপ্নের মিলিটারী একাডেমী গড়ে উঠে দেশের প্রাচীনতম ও ঐতিহাসিক কুমিল্লা সেনানিবাসে । মুত্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অফিসারদের প্রশিক্ষণের জন্য বঙ্গবন্ধু ১১ ই জানুয়ারী ১৯৭৪ সালে কুমিল্লা সেনানিবাসে প্রতিষ্ঠিত করেন বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমী। যদিও ১ বছর পরই চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীর বর্তমান অবস্থানে স্থানান্তরিত হয়ে পুর্ণাঙ্গ রূপ পায় । বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমীর স্বর্নালী স্মৃতির স্বাক্ষর বহন করছে এ সেনানিবাস। বর্তমানে সেনানিবাসের ইঞ্জিনিয়ার্স ব্যাটালিয়নের পূর্ব দিকের প্রবেশ পথে রয়েছে পুর্বতন মিলিটারী একাডেমীর প্রধান গেইট; তৎকালীন ক্যাডেট অফিস, প্লাটুন কমান্ডারদের কার্যালয়, পিটি ও ড্রিল গ্রাউন্ডও রয়েছে এ ব্যাটালিয়নের বিভিন্নাংশে। স্থাপনাসমূহ বর্তমানে ইঞ্জিনিয়ার্স ইউনিটের প্রশাসনিক ও প্রশিক্ষণ কাজে ব্যবহার হচ্ছে ।

বর্তমানে বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমীর প্রশিক্ষণার্থী, দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন সামরিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি এবং প্রশিক্ষণার্থীগণ স্মৃতিবহুল এ স্থাপনা সমূহ পরিদর্শন করে থাকে।

২। এমআর চৌধুরী গ্রাউন্ডঃ

১ম ক্যাডেট ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী অনুষ্ঠানে জাতির পিতার ভাষনে সামরিক কৌশলপত্র ঃ  ১৯৭১ সালে, ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে জাতির পিতা যেমন জাতির উদ্দেশ্যে স্বাধীনতা সংগ্রাম ও স্বাধীনতা যুদ্ধের দিক নির্দেশনা দেন। ঠিক তেমনি ১১ই জানুয়ারি ১৯৭৪ সালে কুমিল্লা সেনানিবাসের এম আর চৌধুরী গ্রাউন্ডে তারই স্বপ্নের মিলিটারী একাডেমীর ১ম ক্যাডেট ব্যাচের অফিসার হিসেবে কমিশন প্রাপ্তির কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে সশস্ত্র বাহিনীকে উদ্দেশ্য করে যে ভাষন দেন তা বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়ন ও আধুনিকায়নের কৌশলপত্র বলা হয়। সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ কমান্ডারের জন্য ব্যবহদত গ্রাউন্ডটির নাম ছিল ফতেহ মোহাম্মদ স্টেডিয়াম। স্বাধীনতার পর শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা এম আর চৌধুরীর নামে এ গ্রাউন্ডের নামকরণ করা হয়।

শহীদ লেঃ কর্ণেল মুজিবুর রহমান চৌধুরী সংক্ষেপে এম আর চৌধুরী ১৯২৭ সালের ০১ এপ্রিল সিলেট জেলার গোপালগঞ্জ থানার রনকেলি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৫০ সালের ১৬ জুন পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন। ১৯৭১ সালের ১৭ মার্চ ইবিআরসির প্রধান প্রশিক্ষক থাকাকালীন তিনি বাঙ্গালী সেনাসদস্যদের সশস্ত্র বিদ্রোহের জন্য সংগঠিত করেন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি অবনতি হলে তিনি ইবিআরসিতে উপস্থিত বাঙ্গালী সৈনিকদের মাঝে অস্ত্রাাগার থেকে অস্ত্র শস্ত্র বিতরণ করতঃ পাক সেনাদের বিরতদ্ধে সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলার নির্দেশ প্রদান করেন। এ সময় পাক সেনারা অতর্কিত হামলা করে অসংখ্য বাঙ্গালী সেনাসদস্যদের নৃশংসভাবে হত্যা করে। এ হামলায় লেঃ কর্ণেল এম আর চৌধুরীও শাহাদত বরণ করেন। লেঃ কর্ণেল এম আর চৌধুরীর সৈনিকদের মাঝে অস্ত্র বিতরণের সময়োচিত পদক্ষেপ বহু বাঙ্গালী সেনার প্রাণ রক্ষা করে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে লেঃ কর্ণেল এম আর চৌধুরীর আত্মত্যাগকে স্মরণীয় করে রাখতে এই গ্রাউন্ডের নামকরণ করা হয় “”এম আর চৌধুরী গ্রাউন্ড” ।

১৯৭৪ সালের ১১ই জানুয়ারি কুমিল্লা সেনানিবাসে বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমীর ১ম ব্যাচের ক্যাডেটদের উদ্দেশ্যে প্রদানকৃত ঐতিহাসিক ভাষনে জাতির পিতা দেশ, দেশপ্রেমিক সশস্ত্র বাহিনীর নিয়ে তাঁর ভাবনা ও অভিলক্ষ্যের কথা ব্যক্ত করেন এবং সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের প্রতি দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।
এ ভাষণকে সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নও আধুনিকায়নের কৌশলপত্র হিসেবে ভূষিত হয়। ভাষণের সংক্ষিপ্ত বিশ্লেষণ নিম্নে উপস্থাপন করা হলোঃ

বিশ্বখ্যাত বাংলাদেশ সশস্ত্রবাহিনী ও মিলিটারী একাডেমী নিয়ে তাঁর স্বপ্ন ও প্রত্যয় ঃ জাতির পিতা তাঁর ভাষণে বলেন “” আমি আশা করি, ইনশাল্লাহ এমন দিন আসবে; এই একাডেমীর নাম শুধু দক্ষিণ এশিয়াই নয়, সমগ্র দুনিয়াতে সুনাম অর্জন করবে । ” সে স্বপ্ন আজ অক্ষরে অক্ষরে বাস্তবে পরিণত হয়েছে। জাতিসংঘে আজ সর্বোচ্চ সংখ্যক শান্তিরক্ষী প্রেরণ ও প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে দেশের সুনাম সমগ্র দুনিয়াতে ছড়িয়ে দিচ্ছে। বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমী সেই সশস্ত্র বাহিনীর অফিসার তৈরীর সুতীকাগার । দক্ষিণ এশিয়াসহ সারা বিশ্বের ক্যাডেটগণ প্রশিক্ষণ নিচ্ছে জাতির পিতার এ স্বপ্নের একাডেমীতে ।

সেনাবাহিনীর সদস্যদের দায়িত্ববোধ সম্পর্কে জাতির পিতাঃ জাতির পিতা তাঁর ভাষণে সেনা কর্মকর্তাগণের দায়িত্ব ও কর্তব্যে সম্পর্কে সুস্পষ্ট নির্দেশনা প্রদান করেন। তিনি বলেন, “”জাতির পিতার উপর তোমার দায়িত্ব, জনগনের উপর তোমার দায়িত্ব, দেশের উপর তোমার দায়িত্ব এবং যে সমস্ত সৈনিকদের তোমরা আদেশ উপদেশ দিয়ে কাজ করবা তাদের উপর দায়িত্ব, তোমার কমান্ডারের উপর তোমার দায়িত্ব এবং তোমার নিজের উপর তোমার দায়িত্ব, তোমাদের দায়িত্ব জ্ঞান থাকা প্রয়োজন। তা না হলে জীবনে মানুষ হতে পারবানা”।

সেনাবাহিনীর সদস্যদের উপর জাতির পিতার গভীর আত্মবিশ্বাসঃ দেশের মানুষের প্রতি বরাবরই বঙ্গবন্ধু ছিলেন আত্মপ্রত্যয়ী ও আত্মবিশ্বাসী। এ মাটি ও এ দেশের স্থান তথা সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের প্রতিও তাঁর ছিল অগাধ বিশ্বাস। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, “” আজ যা আমি দেখলাম, তাতে আমি বিশ্বাস করতে পারি যে, যদি পূর্ণ সুবিধা দেওয়া যায়, আমার ছেলেদের এই শক্তি আছে যে, যে কোন দেশের যে কোন সৈনিকের সাথে তারা মোকাবেলা করতে পারে” ।

সশস্ত্র বাহিনীতে পরস্পরের সাথে সুসম্পর্কের বিষয়ে জাতির পিতাঃ   জাতির পিতা হিসেবে সেনাসদস্যদের নিজের ছেলে আখ্যায়িত করে তাঁর বক্তব্যে বলেন, “” ছেলেরা আমার, তোমরা নতুন জীবনে যাচ্ছ । মনে রেখ, তোমরা একেকজন সামরিক কর্মচারী, যাদের নীচে থাকবে আমার সৈনিক বাহিনী। তাদের কাছেও অনেক শেখার আছে, তাদের সংগে মিশতে হবে, তাদের জানতে হবে, দুঃখের সময় দাড়াতে হবে, তাদের পাশে থাকতে হবে। মনে রেখ, শাসন করা তারই সাজে সোহাগ করে যে। তুমি যখন শাসন করবা, সোহাগ করতে শেখ। তাদের দুঃখের দিনে সাথে দাড়িও, তাদের ভালবেস, কারন তোমার হুকুমে সে জীবন দিবে, তোমাকে শ্রদ্ধা অর্জন করতে হবে”।

মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে সেনাসদস্যদের প্রতি জাতির পিতার পরামর্শ :  জাতির পিতা বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমীর প্রথম ব্যাচের উদ্দেশ্যে মানুষ হওয়ার ব্রতে আদর্শবান হওয়ার যে নির্দেশনা দিয়েছেন, তা প্রকৃতপক্ষে সশস্ত্র বাহিনীর সকলের জন্য প্রযোজ্য। তিনি বলেন “” সাড়ে সাত কোটি মানুষের মুখ কালা করোনা । তোমরা আদর্শবান হও, সৎ পথে থেকো। মনে রেখো, মুখে হাসি বুকে বল তেজে ভরা মন, মানুষ হইতে হবে মানুষ যখন”।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়ে উঠতে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের প্রতি জাতির পিতার নির্দেশনাঃ বঙ্গবন্ধু তাঁর ভাষণে বলেন, “” প্রধানমন্ত্রী আসবে, যাবে; জাতির পিতা একবারই হয়, দু’বার হয়না”। জাতির পিতা হিসেবে সুস্পষ্টভাবে তিনি বলেন, “” মাতৃভূমিকে ভালবেস, মনে রেখ, তোমাদের মধ্যে যেন পাকিস্থানির মেন্টালিটি না আসে, তোমরা পাকিস্তানের সৈনিক নও, তোমরা বাংলাদেশের সৈনিক” ।

সৎ ও ন্যায়ের পথে ইস্পাত দৃঢ় থাকার নির্দেশনা জাতির পিতার :   জাতির পিতা তাঁর বক্তব্যে বলেন, “” যেখানে অন্যায় অবিচার দেখবা, চরম আঘাত করবা। ন্যায়ের পক্ষে দাড়াবা, গুরুজনকে মেনো, সৎ পথে থেকো, শৃংখলা রেখো, তাহলে জীবনে মানুষ হতে পারবা, এ কথা তোমাদের ভুলে গেলে চলবেনা”।

মালিক নয়, সেবকের মানসিকতায় গড়ে উঠতে নির্দেশঃ   জাতির পিতা বলেন, “” মনে রেখো, জনগণ কারা? তোমার বাপ, তোমার ভাই, তোমাদের যে মায়না আসে, কোথা থেকে আসে ? সকলের বেতন আসে বাংলার দুঃখী মানুষের ট্যাক্সের টাকা দিয়ে। তোমরা তাদের মালিক নও, তোমরা তাদের সেবক, তাদের অর্থে তোমাদের সংসার চলবে। তাদের শ্রদ্ধা করতে শিখ, তাদের ভালবাসতে শিখ, নিরপরাধ লোকের উপর যেন অন্যায় না হয়, সেদিক খেয়াল রেখো”।

সোনার বাংলা গড়ায় ভূমিকা রাখতে সশস্ত্র বাহিনীকে আহবান ও নির্দেশনাঃ  জাতির পিতা তাঁর ভাষণের শেষাংশে তাঁর আশার কথা, স্বপ্নের কথা, দেশকে ও দেশের মানুষকে কোন পর্যায়ে দেখতে চান উল্লেখ করে সামরিক বাহিনীসহ সকলকে সোনার বাংলা গড়তে আহবান জানান ও নির্দেশনা প্রদান করেন। তিন সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, “” আরো দেখতে চাই, সে কি জানো ? সোনার বাংলা দেখতে চাই, আরো দেখতে চাই, কি জানো ? দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটাতে চাই, আরো কি দেখতে চাই ? এদেশের দুঃখী মানুষ পেট ভরে ভাত খাক, গায়ে কাপড় পরুক, অত্যাচার জুলুম বন্ধ হয়ে যাক, এটাই আমি দেখতে চাই। এজন্য সকলের কাছে আমার আবেদন, আইজ তোমাদের এই প্লাটফর্ম থেকে সামরিক বাহিনী, বেসামরিক বাহিনী, জনগণ সকলকে আবেদন করব, সংঘবদ্ধ হয়ে এর বিরুদ্ধে সংগ্রাম করো, আর দেশ গড়ার কাজে আত্ম নিয়োগ করো”।

লেখক:

লেঃ কর্ণেল মোঃ নাজমুল হুদা খান,

এমফিল, এমপিএইচ ।

সূত্রঃ

১। বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমির প্রথম ব্যাচের সমাপনী অনুষ্ঠানে জাতির পিতার ভাষণ; বঙ্গবন্ধু অনলাইন আর্কাইভ; ০৫ মার্চ ২০২০।

২। আমি দেখে না যাবার পারি কিন্তু সোনার বাংলা হবে; banglanesw24.com ; ০৭ মার্চ ২০২০।
৩। আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া সম্পাদিত কুমিল্লা জেলার ইতিহাস, জেলা পরিষদ, কুমিল্লা, ১৯৮৪।
৪। আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া সম্পাদিত কুমিল্লা জেলার ইতিহাস, জেলা পরিষদ, কুমিল্লা, ১৯৮৪।
৫। মেজর নাসির উদ্দিন আহাম্মদ (অব.) দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে দুর্র্ধষ জাপান, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন, ২৯ আগষ্ট ১১, কলকাতা গেজেট ১৯৪৩, নং-৩৬০ ডিফ।
৬। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ যাদুঘর, কুমিল্লা সেনানিবাস
৭। Relic of World War-11, Field Marshal Slim’s Command post, Cumilla Cantonment.
৮। “”স্বাধীন স্বদেশ তোমাদের দান” স্মৃতিস্তম্ভের স্মৃতিফলক,কুমিল্লা সেনানিবাস
৯। “” তুমি রবে নীরবে, হৃদয়ে মম” সেনানিবাসের বধ্যভূমিতে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভের স্মৃতিফলক ,কুমিল্লা সেনানিবাস
১০। এম আর চৌধুরী গ্রাউন্ডের নামফলক, কুমিল্লা সেনানিবাস
১১। “”স্বাধীন স্বদেশ তোমাদের দান” স্মৃতিস্তম্ভের স্মৃতিফলক, কুমিল্লা সেনানিবাস

 

 

আর পড়তে পারেন