রবিবার, ১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বিজয়পুরের মৃৎশিল্প যাচ্ছে মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপের ১৮ টি দেশে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৮, ২০১৭
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
শিক্ষা, সংস্কৃতি, লোকজ ঐতিহ্য ও প্রতœতাত্ত্বিক নিদর্শনের পথিকৃৎ কুমিল্লা জেলার কালোর্ত্তীণ শিল্পকর্মের মধ্যে এ জেলার লালমাই-ময়নামতির পোড়া মাটির ফলকগুলো উল্লেখ্যযোগ্য। এ পোড়া মাটির ফলক কুমিল্লা জেলার মৃৎশিল্পীদের অসামান্য নৈপুণ্যের স্বাক্ষর বহন করছে। আধুনিক সভ্যতার এ সময়ে দেশের ঐতিহ্যবাহী অনেক শিল্প হারিয়ে গেলেও বিলুপ্ত হয়ে যায়নি কুমিল্লার মৃৎশিল্প। মৃৎশিল্পের এ ঐতিহ্য ধারাবাহিকতায় কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার বিজয়পুর ইউনিয়নের জেলখানা বাড়ি এলাকার মৃৎশিল্প এখনও সারা দেশে ব্যাপকভাবে সমাদৃত। মৃৎ শিল্পীদের নিপুণ হাতের তৈরি মাটির জিনিসপত্র দেশের গন্ডি পেরিয়ে এখন এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপের প্রায় ১৮টি দেশে রপ্তানি করে উপার্জন হচ্ছে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা।


৬০-এর দশকে যখন এ অঞ্চলের তথা বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প প্রায় ধ্বংসের পথে, দেশের সমবায় রেজিষ্টেশনভুক্ত একমাত্র এ সমবায় সমিতির জনক বার্ড প্রতিষ্ঠাতা ড. আখতার হামিদ খান কুমিল্লা-চাঁদপুর মহাসড়কের প¬িশ্চম পার্শ্বে ১৯৬১ সালে রুদ্রপালের ১৫ সদস্য নিয়ে মৃৎশিল্পের উন্নয়নের কথা চিন্তা করে মাত্র ১৫০ টাকা আমানত সংগ্রহ করে “রুদ্রপাল সমবায় সমিতির” মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু করেন। ১৯৬২ সালে বিজয়পুর তথা কুমিল্লার মৃৎশিল্পীদের একমাত্র প্রতিনিধিমূলক সংগঠন রুদ্র পাল সমবায় সমিতি প্রতিষ্ঠা করা হয়।

রুদ্্রপাল বংশের নামকরণে সমিতিটি গঠন করা হয়। সেই সময় কুমিল্লায় মৃৎশিল্পের প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিলো ৬৪৪টি। মৃৎশিল্পে অভিজ্ঞতা ও উন্নতির মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ ,শেয়ার ও আমানত বৃদ্ধির মাধ্যমে মূলধন গঠন, শিল্পজাত দ্রব্যের সুষ্ঠু রাজারজাতকরণ সর্বোপরি মৃৎশিল্পীদের বেকারত্বের সমস্যা দূরীকরণের লক্ষ্যে এ সমিতি গঠিত হয়। এলাকার হিন্দু মুসলমান মিলিয়ে প্রায় ২১০ টি পরিবারের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটেছে এই শিল্পের মাধ্যমে।
জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলাধীন দক্ষিণ বিজয়পুর, গাংকুল, টেগুরিয়াপাড়া, নোয়াপাড়া, বারপাড়া, উত্তর বিজয়পুর ও দুর্গাপুরসহ মোট ৭টি গ্রামের (কুমার) মৃৎশিল্পীগণ এ প্রতিষ্ঠানটি দাঁড় করিয়েছেন। শুরুর দিকে মাত্র ১৫ জন সদস্য সমন্বয়ে সমিতি গঠন করা হলেও পর্যায়ক্রমে সমিতির সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ২০৯ জনে উন্নীত হয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ১৪৮ জন এবং মহিলা ৬১ জন। এছাড়া মৃৎশিল্পজাত পণ্য উৎপাদন, বাজারজাতকরণ কার্যক্রমে ৩ হাজার ২৪২ জন পুরুষ এবং ২ হাজার ৮২৬ জন মহিলাসহ মোট ৬ হাজার ৬৮ জন লোক জড়িত রয়েছে। এ এলাকায় বসবাসকারী ৭০০ পরিবারের প্রায় অধিকাংশ সদস্যই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এ শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছে। এলাকায় মৃৎশিল্প উৎপাদনকারীদের বেকারত্ব দূরীকরণে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই এ প্রতিষ্ঠানটি কাজ করে আসছে।


এখানে প্রায় ৩ হাজার মাটির তৈরি জিনিসপত্র তৈরি করা হয়। এগুলোর মধ্যে হাঁড়ি,পাতিল,বাটি ,বদনা, মটকা, প্রদীপ, ছাইদানী, গেলাস, সানকি, ঘড়া, কল্কি, গামলা,জলাবিড়া,জটধুসি, জলকান্দা, চুনপাত্র, সরাই, দুধের হাড়ি, ফুলদানী, মালসা, থালা, পানের বাটা ,সন্ন্যাসীর গাড়, খেলনা, কলস, মুবঘট ,লক্ষ্মীঘট, আয়োঘট,পুজারঘট, দোয়াত বৈয়াম, দুধ সানার পত্র, লক্ষ্মীসরা, মটকা, কাজলবাটি নাদা, তবলার বায়া, মৃদংগ নাল, পাখোয়াজের মাটির খোলসহ অসংখ্য রকমের দৃষ্টিনন্দন জিনিসপত্র রয়েছে।

বিজয়পুরের মৃৎর্শিল্পীদের তৈরি নান্দনিক ও রুচিসম্পন্ন পেট্রেট ঘর সাজানোর আধুনিক ধারার কারুকার্য খচিত সরঞ্জামাদি বিপুল সাড়া জাগাতে সক্ষম হয়েছে ।
এখানে উৎপাদিত মাটির জিনিসপত্র দেশের ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, চাঁদপুর, খুলনাসহ প্রায় ৩৪টি জেলায় সরবরাহ হচ্ছে। এ মৃৎশিল্প দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক বাজারেও বেশ সমাদৃত। এখানকার উৎপাদিত পণ্যগুলো আমেরিকা, লন্ডন, সৌদি আরব, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, কানাডা, জাপান, হল্যান্ড, ইতালিসহ বিশ্বের প্রায় ১৮ টি দেশে রপ্তানি হচ্ছে।


বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি প্রতিনিধি দল, ইংল্যান্ডের অর্থমন্ত্রী, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী, সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনাসহ বিদেশী ব্যক্তিবর্গ এখানে এসে পরিদর্শন করে এখানের উৎপাদিত পণ্য দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।


রুদ্রপাল সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতি রতন চন্দ্র পাল জানান,“ জেলার কুমাররা চাক ঘুরিয়ে মাটিকে দিচ্ছে শিল্পের রূপ। মাটির এক টুকরো পিন্ড থেকে তৈরি করে মৃৎপাত্র। সেই পাত্রে আঙুলের সুনিপুণ চাপ দিয়ে নকশা কেটে নানা রকম দৃষ্টি মনোহর কারুকাজ করে। ঐতিহ্যবাহী এ পেশাটিকে মানসš§তভাবে বাঁচিয়ে রাখার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছি।

আর পড়তে পারেন