শনিবার, ১৭ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বিএনপিতে খালেদা জিয়া মাইনাস হতে চলেছেন ?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৩, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট:

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে বছরব্যাপী কর্মসূচির উদ্বোধন করেছে বিএনপি। রাজধানীর একটি হোটেলে সোমবার জমকালো ওই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সবকিছু ছাপিয়ে আলোচনায় আসে ব্যানার। বিএনপির প্রায় সব অনুষ্ঠানের ব্যানারে দলের চেয়ারপারসনের ছবি থাকলেও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর উদ্বোধনীর ব্যানারে ছিলেন না খালেদা জিয়া। এতে শুধু দলটির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ছবি শোভা পায়। দলের অনেকের মধ্যে তাই শংকা দেখা দিয়েছে- খোদ দলেই কি মাইনাস হতে চলেছেন বেগম খালেদা জিয়া ? যা ওয়ান ইলেভেন সরকারের সময় চেষ্টা করা হয়েছিল।

দলের চেয়ারপারসনের ছবি না থাকায় ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত নেতাকর্মীদের কেউ কেউ অবাক হন। এ নিয়ে দলটির নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে। এমনকি ব্যানারটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সেখানেও দলীয় নেতাকর্মীরা আয়োজক কমিটির কঠোর সমালোচনা করছেন।

ক্ষোভ প্রকাশ করে বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান এক ফেসবুক স্টেটাসে লেখেন, ‘বদলে যাওয়া এ এক অন্যরকম বিএনপি। সব আছে, সবাই আছে, শুধু নেই বেগম খালেদা জিয়ার ছবি ও নামটি। এই ঘোর দুষ্কালেও অনেকেই ছিলেন স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন অনুষ্ঠানমালার শুভ উদ্বোধন উপলক্ষ্যে লেকশোর হোটেলে আয়োজিত এই জাঁকালো অনুষ্ঠানে। তবে বিএনপির আমন্ত্রণ পেয়েও সভানেত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগ নেতারা এবং দাওয়াত না পাওয়ায় জামায়াত নেতারা ছিলেন অনুপস্থিত।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন জাতীয় কমিটির সদস্যসচিব ও বিএনপির চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম  বলেন, জিয়াউর রহমান মানেই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। বাংলাদেশ মানেই জিয়া। তাই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে শুধু জিয়াকে ফোকাস করতে চেয়েছি। এ কারণে দলীয় চেয়ারপারসনের ছবি ব্যবহার করা হয়নি।

একই কারণে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ছবিও ব্যবহার করা হয়নি। তা ছাড়া এ কর্মসূচিটাকে আমরা সর্বজনীন করতে চেয়েছি, দলীয় নয়। এ কারণে জিয়ার ছবি ব্যবহার করেছি।

বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, ‘জিয়া থাকলে বিএনপি থাকবে। জিয়া থাকলেই খালেদা জিয়া থাকবেন, তারেক রহমান থাকবেন। তাই ব্যানারে খালেদা জিয়ার ছবি মুখ্য নয়। ব্যানারে ছবি না থাকলেও অনুষ্ঠানজুড়েই বিএনপির চেয়ারপারসন আলোচনায় ছিলেন।’

বিএনপির যেকোনো ধরনের কর্মসূচিতে সাধারণত তিনজনের ছবি ব্যবহার হয়, যার মধ্যে থাকে দলটির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান, চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। কিন্তু স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের ব্যানারে শুধু দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ছবি ব্যবহার করা হয়।

তবে হোটেলের প্রবেশমুখে খালেদা জিয়ার ছবি সংবলিত ফেস্টুন দেখা গেছে। এ ছাড়া উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শুরুতে বিএনপির চেয়ারপারসনের জন্য দোয়া চাওয়া হয়। তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানানো হয়। অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন করেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। স্বাগত বক্তব্য দেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সভাপতিত্ব করেন স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক ও স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

সূত্র জানায়, ব্যানারে ছবি না থাকার বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয়সহ তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, আমিও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলাম।

ব্যানারে দলীয় প্রধানের ছবি না দেখে অনেককেই বলতে শুনেছি, তাহলে কি বিএনপি খালেদা জিয়াকে ভুলেই গেছে। তার ছবি ব্যানারে যদি পরিকল্পিতভাবে বাদ দেওয়া হয়, সেটা এক জিনিস, আর যদি অপরিকল্পিতভাবে হয়ে থাকে তাহলে তা অমার্জনীয় অপরাধ।

তিনি আরও বলেন, কারাগারে যাওয়ার পর ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) সম্মানে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে একটি চেয়ার খালি রাখা হতো। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্তত সে রকম করেও একটি চেয়ার খালি রাখা যেত। কিন্তু সেটাও কেন হয়নি, তা দলের নীতিনির্ধারকরা বলতে পারবেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা নাজিম উদ্দিন আলম বলেন, আমানউল্লাহ আমানের নেতৃত্বে নয়াপল্টনে যে সাজসজ্জা করা হয়েছে সেখানে জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া এবং তারেক রহমানের ছবি রয়েছে। জিয়াউর রহমান আমাদের গর্ব। আর খালেদা জিয়া দলের বর্তমান চেয়ারপারসন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কেন ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) ছবি রাখা হয়নি, তা আমি জানি না। আমার মনে হয়, ম্যাডামের ছবি রাখা উচিত ছিল।

আর পড়তে পারেন