শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাস নেই,তবু কুমিল্লা শহর থেকে গ্রামের বাড়ি ছুঁটছেন মানুষ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১২, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
ঈদের আর একদিন বাকী।এখনো মানুষ আর মানুষ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহানগরে। লকডাউনের কারণে বন্ধ রয়েছে দূরপাল্লার যান চলাচল। তবুও ঈদ উদযাপন করতে নাড়ির টানে ছাড়ছে গ্রামের বাড়ি ছুঁটছেন মানুষ। লরি, ট্রাক, মালবাহী, ছোট ছোট পিকআপে কোনো প্রকার স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি আদেশ মানা হচ্ছে না। দূরপাল্লার যাত্রীবাহী যানবাহন না চলাচল করায় ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে তাদের।

বুধবার (১২ মে) সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লায় অংশের দাউদকান্দি ও পদুয়া বাজার, চান্দিনায় এলাকায় এমন চিত্র দেখা গেছে।

গ্রামের বাড়িতে যেতে ইচ্ছুক হাজার হাজার মানুষকে ফজরের নামাজের পর থেকে ভিড় করতে দেখা গেছে। কুমিল্লা জেলার শাসনগাছা ও জাঙ্গালিয়া এলাকা বাস কাউন্টারের মাধ্যমে টিকিট কেটে  ঈদ বা বিভিন্ন ছুটিতে বাড়ি ফিরে যেত যাত্রীরা।

কিন্তু ‘লকডাউন’র কারণে দূরপাল্লার যাত্রীবাহী যানচলাচল বন্ধ থাকায় যাত্রীদের বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে।
ঢাকা চট্টগ্রামের মহাসড়কের পদুয়ার বাজার অংশে অপেক্ষা করছেন মনির হোসেন। পরিবার নিয়ে ঈদ পালন করতে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড এলাকায় যাবেন। কিন্তু দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকায় কয়েক ঘণ্টা ধরে চিটাগাং রোড এলাকায় পরিবারের সদস্য নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন।

তিনি বলেন, বাসে চট্টগ্রাম যেতে ১২০থেকে ২০০ টাকা ভাড়া লাগতো। এখন মাইক্রো দিয়ে জনপ্রতি ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা ভাড়া চাচ্ছে চালকরা। অতিরিক্ত ভাড়া হওয়ায় এখনো দাঁড়িয়ে আছি।কি আর করবো যেতো হবে আমাদের।

চান্দিনা এলাকায় বসবাস করেন ইমরুল হোসেন । এনজিওতে কাজ করেন। পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে চাঁদপুর যাবেন। দুই ঘণ্টা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চান্দিনা অপেক্ষা করছেন। কিন্তু অতিরিক্ত ভাড়া চাওয়ায় সড়কে দাঁড়িয়ে আছেন।

তিনি বলেন, আমার পরিবারের সবাই গ্রামে থাকেন। সব সময় গ্রামেই ঈদ পালন করি। এবারও যাবো। কিন্তু প্রাইভেটকার ও মাইক্রো চালকরা প্রচুর ভাড়া চায়। এদিকে সারাদিন সীমিত আকারে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দূরপাল্লার বাস চলতে দেখা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে কুমিল্লায় ময়নামতি হাইওয়ে ট্রাফিক পুলিশের ওসি বলেন, সকাল থেকে আমরা দূরপাল্লার কয়েকটি বাস আটক করে শাস্তির আওতায় এনেছি।স্বাস্থ্যবিধি বিষয়টি আমরা গুরুত্ব সহকারে দেখছি।

আর পড়তে পারেন