রবিবার, ১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাগিচাগাওয়ে স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা, স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ি পলাতক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১৫, ২০২১
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা শহরের বাগিচাগাওয়ে দুলাল মিয়ার মেয়ে ফারহানা আলম ঋতু নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাত আনুমানিক ১০টায় বি-বাড়িয়া জেলা কসবা থানা নয়নপুর বেলতুলী গ্রামে স্বামীর নিজ বাড়ীতে স্বামী ও শ্বশুর শাশুড়ি পিটিয়ে শ্বাসরোধে মৃত্যু নিশ্চিত করেছেন বলে অভিযোগ করেছে নিহতের পরিবার।

কসবা থানার পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাত আনুমানিক ২টায় ফারহানা আলম ঋতুর মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বুধবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে বি-বাড়িয়া সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। ফারহানা আলম ঋতুর মৃত্যুর খবর পেয়ে তার মা চিনুন বেগম বড় ভাই জানে আলম রাজু সহ এলাকায় লোক জন কসবা ছুটে যান।

জানা যায়, গত ১২ ফেব্রুয়ারি কসবা নয়নপুর বলতলী মুক্তিযোদ্ধা নুরু মিয়ার ছেলে, কুমিল্লার ডিবি পুলিশ আমেনা খাতুন আঁখির ছোট ভাই হোমিও চিকিৎসক মোঃ দেলোয়ার হোসেনের সাথে ফারহানা আলম ঋতুর বিয়ে হয়। ২মাস ২দিন পর গত মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাতে স্বামী দেলোয়ার হোসেন, তার পিতা নুরু মিয়াসহ কয়েক জন মিলে ফারহানা আলম ঋতুকে পিটিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে পালিয়ে যায়। কসবায় পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধার করে। তার স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি সবাই পলাতক রয়েছে।

এদিকে ফারহানা আলম ঋতুর বড় ভাই জানে আলম রাজু জানান, আমার ছোট বোন স্বামীর বাড়ি থেকে নিজের বাড়িতে বেড়াতে আসে। আমার ছোট বোন আমার শ্বশুর বাড়ীতে আমার মায়ের সাথে বেড়াতে যাওয়ার কারণে তার ননশ কুমিল্লা ডিবি পুলিশ এসআই আমেনা খাতুন আঁখি আমার মোবাইলে হুমকি দিয়ে বলে তোমার বোন কে যদি তার শ্বশুর বাড়ীতে না পাঠাও অনেক বড় সমস্যা করব। তখন আমি তার কাছে ক্ষমা চাই। পরে আমার বোনের শ্বশুর মুক্তিযোদ্ধা নুরু মিয়া আমাদের বাড়িতে এসে আমার বোন ফারহানা আলম ঋতুকে নিয়ে যায়। পরে ১৩ এপ্রিল রাত ১২টায় তিনি আমাকে মুঠোফোনে বলেন তোমার বোনের অবস্থা ভালো না আবার বলে তোমার বোন মারা গেছে। পরে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

তিনি আরো বলেন, বোনের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে এ রাতে ছোটে যাই । গিয়ে দেখি পুলিশ বোনের লাশ সিএনজি দিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।

ফারহানা আলম ঋতুর মা চিনু বেগম বলেন, আমার মেয়ের শ্বশুর নুরু মিয়া আমার কাছে যৌতুক চেয়েছে তার ঘর ফার্নিচার দিয়ে সাজিয়ে দিতে। আমি অপরগতা জানাই। আমার মেয়ে আত্মহত্যা করতে পারে না। তার স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়ি মিলে যৌতুকের জন্য পিটিয়ে শ্বাসরোধ করে আমার মেয়েকে হত্যা করে পালিয়ে যায়। আমার মেয়ে আমার বড় ছেলের শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে যাওয়াকে কেন্দ্র করে ছেলের বোন কুমিল্লার ডিবি পুলিশ আমেনা খাতুন আঁখির সাথে বাকবিতন্ডা হয়। সে বলে আমার মেয়ে কে খুব দ্রুত স্বামীর বাড়িতে না পাঠালে সমস্যা করবে। তাঁরা পরিকল্পনা করে আমার মেয়েকে হত্যা করেছে।

এদিকে কসবা থানার পুলিশ জানান, লাশ ঘটনাস্থলে উদ্বার করে ময়না তদন্ত শেষে লাশ মা এবং ভাইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

ফারহানা আলম ঋতুর লাশ বুধবার রাত সাড়ে সাতটায় কুমিল্লা বাগিচাগাঁও পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এদিকে ফারহানা আলম ঋতুর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

বি-বাড়িয়ার সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের একজন চিকিৎসক বলেন, ‘ওই গৃহবধূর গলা ও পিঠে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।’

কসবা থানার এসআই আনোয়ার হোসেন জানান, ‘এখনও মামলা হয়নি। মরদেহ দাফনের পর নিহতের স্বজনরা মামলা করবেন বলে জানানো হয়েছে। ঘটনার পরপরই নিহতের স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি পালিয়ে যান।’

আর পড়তে পারেন