মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতির ১০ম জাতীয় সম্মেলন’ সফল করতে সংবাদ সম্মেলন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১০, ২০২০
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
আগামী ১২ ও ১৩ মার্চ ‘বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি’র ১০ম জাতীয় সম্মেলন কুমিল্লা টাউনহল ময়দানে সফল করার লক্ষ্যে নানা বিষয় নিয়ে অবহিতকরণে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ‘সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি’।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুমিল্লা টাউন হল বীরচন্দ্র মিলনায়তনের মুক্তিযুদ্ধ কর্ণার’র কনফারেন্স রুমে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির চেয়ারম্যান পরেশ কর’র সভাপতিত্বে ওই সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ‘বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি’ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রেজা।

এ সময় অন্যান্য’র মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি কেন্দ্রীয় প্রেসেডিয়াম মেম্বার কমরেড আবদুল্লাহ- আল- ক্বাফি রতন, বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আরিফুল ইসলাম নাদিম, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি কুমিল্লা জেলা সভাপতি কমরেড এবিএম আতিকুর রহমান বাশার, জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য বীর মুক্তিযাদ্ধা কমরেড মোহাম্মদ হোসেন, জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযাদ্ধা কমরেড মফিজ উদ্দিন আহমেদ প্রমূখ।

সংবাদ সম্মেলনে ‘বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি’ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রেজা বিভিন্ন সরকরি বরাদ্ধ লুটপাটকারীদের প্রতিরোধের ডাক দিয়ে বলেন, আমাদের এ সম্মেলন- দেশের সবচেয়ে অবহেলিত দরিদ্র মানুষগুলো বাঁচার জন্য রেশন, পেনশন, কাজ-মজুরী, পূর্ণাঙ্গ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে গ্রামাঞ্চলে জোরদার গণআন্দোলন গড়ে তোলা। তিনি বলেন, ১৯৮১সালের ১৮মার্চ সংগঠনটির প্রতিষ্ঠা থেকে গত ৩৯বছর ক্ষেতমজুর সমিতি এদেশের গ্রামের গরিব, ক্ষেতমজুর, গ্রামীণ শ্রমজীবী নারী-পুরুষের অধিকার আদায়ের সংগঠনে পরিনত হয়েছে। ক্ষেতমজুর সমিতির আন্দোলনের ফলে খাস জমি ১ টাকা সালামির বিনিময়ে ভূমিহীন ক্ষেতমজুর স্বামী-স্ত্রীর নামে রেজিষ্ট্রি করে দেয়ার আইন তৈরী হয়েছে। সারা দেশে ক্ষেতমজুর সমিতির নেতৃত্বে হাজার হাজার একর খাস জমি এবং ৩০ হাজার খাস পুকুরে লাল নিশান টানিয়ে দিয়ে ক্ষেত মজুররা দখলে নিয়েছে। ১নং খতিয়ানে খাস জমির উপর ভূমিহীন ক্ষেত মজুরদের আইনি অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়।

তিনি আরো বলেন, প্রতিবছর গ্রামের গরিবদের জন্য নানা ধরনের কর্মসূচী ও প্রকল্পে বিপুল পরিমান বরাদ্ধ দেয়া হয়, কিন্তু এসকল বরাদ্ধ প্রকৃত ভূমিহী বা প্রাপকরা পান না। ক্ষমতাসীন শ্রেণী, নেতা- কর্মীরা প্রশাসনের যোগশাজসে আত্মসাৎ করে। তিনি সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচীর অধিনে বাদ্ধকুত অর্থ যাতে চেয়ারম্যান মেম্বার আত্মসাৎ করতে না পারে তার জন্য গ্রামাঞ্চলে প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে তোলার ডাক দেন।

কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রেজা বলেন, ১৯৩৮ সালে কুমিল্লায় সারা ভারত কৃষক সভার তৃতীয় সর্বভারতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ৮২বছর পর আগামী ১২ ও ১৩ মার্চ গ্রামের গরিব মানুষদের সংগঠন বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতির ১০ম জাতীয় সম্মেলন কুমিল্লা টাউন হল ময়দানে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ওই সম্মেলনে বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। সম্মেলন সফল করতে কুমিল্লাবাসী যে নৈতিক ও আর্থিক সমর্থন দিয়েছেন তার জন্য তিনি কুমিল্লাবাসীকে কৃতজ্ঞতা জানান। সেই সাথে তিনি বলেন, আমাদের এ সম্মেলন করোনা ভাইরাসের প্রভাব সহ নানা কারনে লাখ জমায়েত’র পরিকল্পনা প্রত্যাহার করে সারা দেশের ১০হাজার নারী- পুরুষ ক্ষেতমজুর আগামী ১২মার্চ উদ্ভোধনী সভায় উপস্থিত থাকবেন এবং উদ্ভোধনী সভা শেষে একটি র‌্যালী শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করবেন। এতে যানজট হওয়ার আশংকা থাকায় তিনি কুমিল্লাবাসীর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করেন। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লা ইলেক্ট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপিস্থত ছিলেন।

আর পড়তে পারেন