বৃহস্পতিবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব: সশস্ত্র বাহিনীর ভাবনা ও বিকাশে জাতির পিতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৮, ২০২১
news-image

লেঃ কর্ণেল মোঃ নাজমুল হুদা খান:

ভূমিকা:

পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ একটি অন্যতম রাষ্ট্র,যা শক্তিশালী একটি প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে অত্যন্ত কম সময়ের যুদ্ধে স্বাধীনতা লাভে সক্ষম হয়। অর্থনৈতিক দিক থেকে দুর্বল, নিজস্ব বাহিনী, রশদ এবং যথোপযুক্ত প্রশিক্ষন না থাকার পরও যুদ্ধ জয়ের কৃতিত্ব দেখায় বাংলাদেশ।হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের দূরদৃষ্টি সম্পন্ন নেতৃত্ব, রাজনৈতিক ও কুটনৈতিক প্রজ্ঞা, স্বাধীনতা অর্জন ও সার্বভৌমত¦ রক্ষায় সামরিক এবং নিরাপত্তা কৌশল নির্ধারনে সূদুরপ্রসারী স্বপ্ন, পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নই ছিল সাফল্যের চাবিকাঠি। তাই বঙ্গবন্ধু শুধু একজন বিশে^র অন্যতম সফল ও শ্রেষ্ঠ রাজনীতিকই ছিলেন না, সামরিক কৌশল প্রনয়নেও তিনি ছিলেন একজন প্রাজ্ঞ সমর নায়ক।

১৯৪৭ সালে ভারত-পাকিস্তানে বিভাজনের পর থেকে বাংলাদেশ ছিল তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানী শাসকদের অপশাসন. শোষন, নিপীড়ন, বঞ্চনার উর্বরভূমি। তাই সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসংখ্যার এ দেশকে স্বাধীন করাই ছিল জাতির পিতার মুল লক্ষ্য। প্রখর রাজনৈতিক দর্শনের মাধ্যমে তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে; সামরিক কৌশল , শক্তি অর্জন ও প্রোয়গ স্বাধীনতা লাভ ও স্বাধীনতা পরবর্তী দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার প্রধান হাতিয়ার বিষয়। এ বাস্তবায়ন ও নির্দেশনা সমূহের সংক্ষিপ্ত উপস্থাপনাই এ প্রবন্ধের প্রতিপাদ্য বিষয়।

ঐতিহাসিক ছয় দফা – বাঁচার কর্মসূচীতে সামরিক দাবীনামা অর্ন্তভুক্তি:

তৎকালীন পাকিস্তানের দু’অংশের মধ্যকার বৈষম্য এবং পুর্ব পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ উপনিবেশিক শাসন অবসানের লক্ষে ১৯৬৬ সালের মার্চ মাসে আওয়ামীলীগের কাউন্সিলে ‘‘আমাদের বাঁচার দাবি ৬-দফা ’’ কর্মসূচী ঘোষিত হয়। ৬-দফার প্রথম দু’টিতে মূলতঃ সংবিধান ও সরকার পদ্ধতি, তৃতীয় ও চতুর্থ দফায় অর্থনৈতিক বৈষম্য হ্রাস ও নিয়ন্ত্রণ, ৫ম দফায় দেশের দু’অংশের বানিজ্যিক সম্পর্কের বিষয়গুলো উত্থাপিত হয়। ৬ষ্ঠ দফায় প্রতিরক্ষা বিষয়ক দাবীটি পেশ করা হয়। দফাটি ছিল নিম্নরুপঃ

‘‘প্রতিরক্ষায় পূর্ব পাকিস্তানকে স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে আধা-সামরিক রক্ষী বাহিনী গঠন, পূর্ব পাকিস্তানে অস্ত্র কারখানা স্থাপন এবং কেন্দ্রীয় নৌবাহিনীর সদর দফতর পূর্ব পাকিস্তানে স্থাপন করতে হবে”। এতে সুষ্পষ্ট তিনটি বিষয় উল্লেখ রয়েছে।

১। প্রতিরক্ষায় পূর্ব পাকিস্তানকে স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে আধা-সামরিক রক্ষী বাহিনী গঠন ঃ

দাবীটি যে অত্যন্ত অর্থবহ ও সুদূর প্রসারী কৌশলের অংশ ছিল তা সহজেই অনুমেয়। জাতির পিতা তাঁর দূরদৃষ্টি সম্পন্ন প্রজ্ঞার মাধ্যমে বুঝতে পেরেছিলেন যে,পূর্ব পাকিস্তানের স্বাধীনতায়ই এ ভূখন্ডের অবহেলিত মানুষের মুক্তি নিহিত। সে জন্য পশ্চিম পাকিস্তানের সাথে সমর যুদ্ধে অবর্তীণ হতে হবে, তা অবধারিত। সুতরাং এর পূর্ব প্রস্তÍতির অংশ হিসেবে আধা-সামরিক বাহিনী গঠনই ছিল এর অর্ন্তনিহিত কৌশল। আধা সামরিক বাহিনীকে যথাযথ প্রশিক্ষন দিয়ে কনভেনশনাল/ননকনভেনশনাল যুদ্ধ কৌশল রপ্তকরন এবং তাদের মাধ্যমে বিপুল জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্ত করে দখলদার বাহিনীকে প্রতিরোধ করাই ছিল এ দাবীর মূল লক্ষ্য। স্বাধীনতা যুদ্ধের শেষের দিকে এ কৌশলের কাছে হানাদার বাহিনী পর্যদুস্ত হয়ে পরেছিল।

২। পূর্ব পাকিস্তানে অস্ত্র কারখানা স্থাপন:

প্রশিক্ষিত জনবলের পাশাপাশি যুদ্ধ জয়ের মূল চালিকা শক্তি হচ্ছে রসদ ভান্ডার অর্থাৎ অস্ত্র ও গোলাবারুদ। সুতরাং অবশম্ভ্যাবী যুদ্ধে প্রশিক্ষিত আধা-সামরিক বাহিনী গঠনের পাশাপাশি যদি অস্ত্র কারখানাটিও পূর্ব পাকিস্তানে স্থাপন করা যায়, তাহলে যুদ্ধকালীন এ অস্ত্র ভান্ডার ব্যবহার করা যাবে। সে কৌশলের অংশ হিসেবেই বঙ্গবন্ধু এ দাবীটিকে ৬-দফার অন্তর্ভূক্ত করেছিলেন; তা বলা বাহুল্য।

৩। কেন্দ্রীয় নৌবাহিনীর সদর দপ্তর পূর্ব পাকিস্তানে স্থাপন করতে হবে ঃ বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ,এছাড়া দেশের দক্ষিন সীমানার পুরটা জুড়েই রয়েছে বঙ্গোপসাগর। ভবিষৎ যুদ্ধের কৌশল হিসেবে নৌবাহিনী একটি গুরুত্বপূর্ন শক্তি হিসেবে ভূমিকা পালন করতে পারবে। সে কারনে অত্যাসন্ন যুদ্ধে ভৌগলিক পারিপাশির্^ক ভূমিরুপের কৌশল সমূহ ব্যবহারের লক্ষ্যেই নৌবাহিনীর সদর দপ্তর পূর্ব পাকিস্তানে স্থাপনের দাবী তোলা হয়েছিল বলে প্রতীয়মান।

৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষন যুদ্ধ কৌশলের নির্দেশনা:

১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে জাতির পিতা তাঁর বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ভাষনে জাতির সংকটময় মুহুর্তে সামগ্রীক পরিস্থিতি বিশ্লেষন পূর্বক জাতিকে যুদ্ধকৌশল তথা সামরিক বিনির্দেশনা ও প্রদান করেন। জাতির পিতার ভাষনের শেষাংশ বিশ্লেষন করলে এটি সুস্পষ্ট হয় যে, তিনি সেদিন যেমন যুদ্ধের ঘোষনা দেন, তেমনি যুদ্ধ জয়ের কৌশলসমূহের বিষয়েও দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। ভাষনের এতদসংক্রান্ত অংশসমুহ নিম্নরুপঃ
১। ‘‘তোমাদের উপর আমার অনুরোধ রইল, প্রত্যেক ঘরে দূর্গ গড়ে তোল। তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করতে হবে এবং জীবনের তরে রাস্তাঘাট যা যা আছে, সবকিছু আমি যদি হুকুম দিবার নাও পারি তোমরা বন্ধ করে দেবে। আমরা ভাতে মারব, আমরা পানিতে মারব।”

২। ‘‘একটা কথা মনে রাখবেন, শত্রু বাহিনী ঢুকেছে, নিজেদের মধ্যে আতœকলহ সৃষ্টি করবে, লুটতরাজ করবে।”

৩। ‘‘আমার অনুরোধ প্রত্যেক গ্রামে, প্রত্যেক মহল্লায়, প্রত্যেক সাব-ডিবিশনে আওয়ামিলীগের নেতৃতে¦ সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোল। তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাক।”

জাতির পিতার বক্তৃতার উপরোক্ত প্রথমাংশে আধুনিক কনভেনশনাল ও নন-নন কনভেনশনাল উভয় ধরনের যুদ্ধে Denial Plan কার্যকর করনের নির্দেশিকা রয়েছে। এটি যুদ্ধ জঢের একটি গুরুত্বপূর্ন দিক; এর অর্থ হচ্ছে নিজেদের কোন সম্পদ, সুযোগ-সুবিধা যাতে শত্রুরা ব্যবহার না করতে পারে এবং ‘‘আমরা ভাতে মারব, আমরা পানিতে মারব” এর উক্তিটি মাধ্যমে Denial Plan এর চূড়ান্ত কার্যকরের নির্দেশনা রয়েছে। ‘‘প্রত্যেক ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোল: এ বক্তব্যেও মাও সেতুং এর সফল গেরিলা যুদ্ধের নির্দেশনা প্রতিফলন। নিজেদের ঘর, বাড়ী, পাড়া, গ্রাম থেকে শত্রুর বিরুদ্ধে ছোট ছোট বাঁধা সৃষ্টির মাধ্যমে শত্রুকে পর্যদুস্ত করাই এর মূল উদ্দেশ্য। মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ করে সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসে এ কৌশল পাক হানাদার বাহিনীকে পরাজয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌছে দিয়েছিল।

জাতির পিতা মুক্তিযোদ্ধা ও যুদ্ধ পরিচালনাকারীদের জন্য সতর্কবাণী উচ্চারন করেন বক্তব্যের দ্বিতীয়াংশে। যুদ্ধ শুরুর প্রাককালেই দেশীয় রাজাকার, আলবদর ও তাদের সমর্র্থকগন দেশের মানুষ বিশেষ করে মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের সমর্থকদের বাড়িঘর ও ধনসম্পদ লুটপাটে লিপ্ত হয়েছিল। এছাড়া নিজেদের মধ্যে এমনকি প্রবাসী সরকারের মধ্যেও দ্বন্দ সৃষ্টিকারীগণ যে লুকিয়ে ছিল তাও এখন সবার জানা।

তৃতীয়াংশে দেশবাসী, মিলিটারী, প্যারামিলিটারী সদস্য সহ সকলে যাতে সঠিকভাবে সুসংগঠিত হতে পারে সে নির্দেশনা প্রদান করেন জাতির পিতা। এর ফলশ্রুতিতে সারা দেশে ১১ টি সেক্টরে বিভক্ত হয়ে সশস্ত্র বাহিনী, প্যারামিলিটারী বাহিনীর সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধাগন শক্তিধর পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সফল প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সক্ষম হয় এবং বিশ্বের বুকে স্বাধীন সার্বভৌম দেশ হিসেবে বাংলাদেশের আবির্ভাব ঘটে।

স্বাধীনতাত্তোর বাংলাদেশঃ সশস্ত্র বাহিনীর অভ্যুদয় ও উন্নয়নে জাতির পিতা:

বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের এক মাস পর ১৯৭২ সালের ১০ই জানুয়ারি জাতির পিতা যখন দেশের মাটিতে পা রাখেন, তখন পুরো দেশ ছিল একটি ধ্বংসস্তুপ। দেশ ও আন্তর্জাতিক শত্রুদের বিরুদ্ধে বিজয় অর্জিত হয়েছে সত্যি, তবে তাদের নানাবিধ ষড়যন্ত্র অব্যাহত ছিল তখনও এমন নানাবিধ সংকটের মুখেও জাতির পিতা সার্বভৌমত্বকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে মাত্র তিন মাস অর্থাৎ মার্চ ১৯৭২ সালের মধ্যে সকল ভারতীয় বাহিনীর সদস্যদের ফেরত পাঠান। এ ধরনের ইতিহাস আজ থেকে অর্ধশতক পূর্বে কেন, আধুনিক বিশ্বেও বিরল। জাতির পিতার দূরদৃষ্টি, প্রবল আত্মবিশ্বাস এবং দেশের মানুষের প্রতি শ্রদ্ধা ও সার্বভৌমত্বের প্রতি সর্বোচ্চ সম্মান ছিল বলেই তা সম্ভব হয়েছিল।

১৯৭২ সালের এপ্রিল মাসেই জাতির পিতা সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী গঠন করেন। সশস্ত্র বাহিনীর শক্তি বৃদ্ধির জন্য ১৯৭২-১৯৭৪ সাল পর্যন্ত সেনাবাহিনীতে পাঁচটি ব্রিগেড প্রতিষ্ঠিত হয়। সেনাবাহিনীর জন্য আধুনিক ট্যাংক ও আর্টিলারীর সাঁজোয়া যান অন্তর্ভূক্ত করেন। নৌবাহিনীর জন্য সংগৃহীত হয় আধুনিক পেট্রোল ক্রাফট এবং প্রতিষ্ঠা লাভ করে চট্রগ্রাম নৌঘাটি ঈশা খাঁ এবং খুলনায় নৌঘাটি তিতুমীর। বিমান বাহিনীর জন্য মিগ-২১, এমএফ সুপারসনিক যুদ্ধ বিমান, এন-২৪ ভিআইপি বিমান ও বেশ ক’টি এমআই-৮ ও Alouette-3 হেলিকপ্টার অন্তর্ভূক্ত করা হয়। ১৯৭৩ সালে কুমিল্লায় বাংলাদেশ মিলিটারী একাডেমী প্রতিষ্ঠা করেন, যা পরবর্তীতে ১৯৭৪ সালের এপ্রিলে চট্রগ্রামের ভাটিয়ারিতে পূর্ণাঙ্গরূপ লাভ করে। একই সালে বিমান বাহিনী একাডেমী ও প্রতিষ্ঠা লাভ করে। জাতির পিতাই রাষ্ট্রীয় প্রটোকলে সশস্ত্র বাহিনীকে সব বাহিনীর উর্ধ্বে স্থান দিয়েছিলেন। তাঁর নির্দেশে সশস্ত্রবাহিনী ১৯৭২ সালে চোরাচালান রোধ এবং ১৯৭৩-১৯৭৪ সালে দেশ জুড়ে ভয়াবহ বন্যায় জাতির পাশে দাঁড়ায়।

১৯৭৩ সালে আরবদের ন্যায় সংগত আরব-ইসরাইল যুদ্ধের সমর্থনে সাহসী ও সূদূর প্রসারী সিদ্বান্ত নেন বঙ্গবন্ধু সরকার। সেখানে একটি সেনা মেডিক্যাল টিম এবং মিশর সেনাবাহিনীর জন্য চা পাঠিয়েছিলেন জাতির পিতা। এটিই ছিল বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রথম বৈদেশিক দায়িত্ব। মেডিক্যাল টিমটি সিরিয়ার দামেস্কের দারেস সালামে একটি ফিল্ড হাসপাতাল তৈরীর মাধ্যমে সিরিয়া ও ফিলিস্তিনি যোদ্ধাদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করত। মাস ব্যাপী এ কার্যক্রমের তাৎপর্য সমগ্র আরব জাহানে ছড়িয়ে পড়ে। মিশনটি ছিল বাংলাদেশে সেনাবাহিনী ও পররাষ্ট্রনীতির একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক। তখনো মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার অধিকাংশ দেশ বাংলাদেশকে স্বীকৃতি না দিলেও এ মিশনের বাংলাদেশকে বন্ধু ও মুসলিম দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। মিশরের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আনোয়ার সাদাত বাংলাদেশকে ৩০ টি ট্যাংকও উপহার দেন।

বিস্ময়কর এ কূটনৈতিক অভিযানের প্রাক্কালে জাতির পিতা ঘোষণা দিয়েছিলেন ” আরবরা আমাদের স্বীকৃতি দিক আর না দিক, তারা আমাদের ভাই। তাদের ন্যায্য সংগ্রামে আমরা তাদের পাশে আছি।” প্রকৃতপক্ষে এভাবেই জাতির পিতা বিশ্বনেতা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিলেন।

আরব-ইসরাইল যুদ্ধে সিরিয়ায় নিয়োজিত বাংলাদেশ সেনা মেডিক্যাল টিম
উপসংহার ঃ প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশের স্বাধীনতা, দেশের মানুষকে অন্যায় অবিচার, শোষণ নিপীড়ন থেকে উদ্ধার করে তাদের মুখে হাসি ফোটানোর মাধ্যমে একটি সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার স্বপ্নের সাথে দেশকে একটি মর্যাদাবান ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলতে শক্তিশালী সশস্ত্র বাহিনী গড়াও ছিল জাতির পিতার অন্যতম স্বপ্ন। সে কারনেই সকল সফল আন্দোলন তথা ৬ দফা, স্বাধীনতা সংগ্রাম ও স্বাধীন বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় ও নিরাপত্তায় সামরিক কৌশল, সশস্ত্র বাহিনী গঠন, উন্নয়ন এবং ভবিষৎ দিক নির্দেশনার পথ ধরে আজ সুশৃংখল ও সুসংগঠিত সশস্ত্রবাহিনী দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে দেশের সুনাম বৃদ্ধিতে সক্ষম হচ্ছে।
সূত্রঃ
১। বাঙ্গালীর মুক্তির সনদ ৬- দফা;www.albd.org/bn/articles/news/3192০৪ জুন ২০২০
২। মেজর জেনারেল এ কে মোহাম্মদ আলী শিকদার, পিএসসি (অব.);
বঙ্গবন্ধুর সমর দর্শন ও প্রতিরক্ষা চিন্তা; কালের কন্ঠ, ০৫ আগষ্ট ২০১৫
৩। ৭ই মার্চের ভাষন পটভূমি ও তাৎপর্য; দৈনিক জনকন্ঠ, ০৫ মার্চ ২০২০
৪। এয়ার কমডোর ইশফাক ইলাহী চৌধুরী (অব.); যুদ্ধোত্তর সশস্ত্র বাহিনী পূর্ণগঠনে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা; সমকাল, ২৮ মার্চ ২০২০
৫। বিগ্রেঃ জেনারেল মোঃ বায়োজিদ সারোয়ার (অব.); সিরিয়ার রনাঙ্গনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ঃ ৪৭ বছর পর ফিরে দেখা সেই ঐতিহাসিক ঘটনা; সামরিক ডাইজেষ্ট; bonga newsnextbd.com, ৩১ অক্টোবর ২০২০

লেখক:

লেঃ কর্ণেল মোঃ নাজমুল হুদা খান, এমফিল, এমপিএইচ

অতি: পরিচালক: কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল।

আর পড়তে পারেন