শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশের ই-কমার্স খাতকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে”নগদহাট বাংলাদেশ লিমিটেড”কাজ করছে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৮, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

তথ্যপ্রযুক্তির চরম উৎকর্ষের এই যুগে ব্যবসা বানিজ্যের প্রচলিত পদ্ধতি ও ধ্যান ধারণা আমূল বদলে গেছে। ইন্টারনেট ও প্রযুক্তি পণ্য সহজলভ্য হওয়ায় বিশ্বজুড়ে ব্যবসা-বাণিজ্যের জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ই-কমার্স জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার পথে অগ্রসরমান বাংলাদেশেও এখন ই-কমার্স দ্রুত বিস্তৃত হচ্ছে। বাংলাদেশের বিদ্যমান ই-কমার্স সেবার দুর্বলতাসমূহ কাটিয়ে গ্রাহক এবং ভোক্তাদের বিশ্বমানের ই-কমার্স সেবা দেয়ার প্রত্যয়ে নগদহাট বাংলাদেশ লিমিটেড পথচলা শুরু। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে যাত্রা শুরু করা প্রতিষ্ঠানটির সেবা ইতোমধ্যে দেশের গুরুত্বপূর্ণ সবগুলো বড় শহরে পরিব্যাপ্ত হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে সারা দেশে তাদের কার্যক্রম শুরু করার জন্য তৎপরতা শুরু করেছে। প্রতিষ্ঠার অল্প সময়ের মধ্যেই নগদহাট দেশের স্বনামধন্য ব্র্যান্ডের পণ্য নিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে।

বাংলাদেশের ই-কমার্স খাতকে সর্বোচ্চ পেশাগত দক্ষতা ও ভোক্তা কেন্দ্রিক মনোভাব নিয়ে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে এবং, দেশব্যাপী বিপুল সংখ্যক সফল উদ্যোক্তা তৈরির জন্য “নগদহাট বাংলাদেশ লিমিটেড” প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই কাজ করে যাচ্ছে। ন্যায্যমূল্যে আসল পণ্য দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাঙ্ক্ষিত ভোক্তার নিকট পৌঁছিয়ে গ্রাহক সন্তুষ্টি অর্জনে নগদহাট প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সঠিক সময়ে পণ্য ডেলিভারির বিষয়টি নিশ্চিত করার মাধ্যমে নগদহাট সম্ভবত অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে নিজেদেরকে অনেকখানি এগিয়ে নিয়েছে। নিজেদের অসাধারণ এফিলিয়েট সেবার মাধ্যমে গ্রাহকদের উপার্জনের সুযোগ ও বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে নগদহাট আন্তরিকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে। এফিলিয়েট সেবার মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ উদ্যোক্তা সৃষ্টির মাধ্যমে নগদহাট বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব সমস্যার স্থায়ী ও দীর্ঘমেয়াদি সমাধান নিশ্চিতকরণে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিচ্ছে।

নগদহাটের ম্যানেজম্যান্টের সাথে সংশ্লিষ্টরা প্রতিবেদককে পণ্য সংগ্রহ থেকে শুরু করে বিপণন ও বিক্রয় পর্যন্ত অর্থাৎ, পুরো কর্ম প্রক্রিয়া সম্পর্কে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানান।

প্রাথমিক পর্যায়ে নগদহাট প্যারেন্ট কোম্পানি বা উৎপাদনকারীর নিকট থেকে পণ্যের স্যাম্পল সংগ্রহ করে থাকে। পণ্যের স্যাম্পল সংগ্রহের পর নগদহাটের ছঈ ঊীঢ়বৎঃং গণ কোয়ালিটি চেক করে থাকেন। কোয়ালিটি চেক সম্পন্ন করার পর নগদহাট সতর্কতার সাথে বাজার বিশ্লেষণ করে থাকে। বাজার বিশ্লেষণের মধ্যে পণ্যের ভ্যালু চিহ্নিতকরণ, মূল্য যাচাই ও মূল্য নির্ধারণ অন্তর্ভুক্ত। বাজার বিশ্লেষণের পর নগদহাট তার মার্কেটপ্লেস বা নগদহাট ওয়েবসাইটে নির্দিষ্ট আইটেমটি আপলোড করে থাকে। আপলোডের পর নগদহাট আইটেমটি প্রমোট করার জন্য অনলাইন এবং অফলাইন এই দুই মাধ্যমেই বিপণন কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। বিপণন কার্যক্রমের মাধ্যমে ভ্যালু সৃষ্টির ফলশ্রুতিতে ক্রেতা নির্দিষ্ট পণ্য বা আইটেম অর্ডার করে। অর্ডার প্লেইসমেন্টের পর নগদহাট পণ্যের প্যাকেজিং কার্যক্রম সম্পন্ন করে থাকে। প্যাকেজিংয়ের পর নগদহাটের ডিসট্রিভিউশন চ্যানেলের মাধ্যমে পুরো ডেলিভারি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। নগদহাট প্যারেন্ট কোম্পানি বা উৎপাদনকারীর নিকট থেকে পণ্য সংগ্রহ করার কারণে ন্যায্যমূল্যে অরিজিনাল প্রোডাক্ট সরবরাহ করতে পারে। শক্তিশালী ডিসট্রিভিউশন চ্যানেল থাকার কারণে গ্রাহক নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অর্ডারকৃত পণ্য হাতে পেয়ে যায়।

নগদহাট কিছু সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়া অনুসরণ করে মার্চেন্ট, সোর্সার, রফতানিকারক, উদ্যোক্তা এবং এফিয়িলেটরদের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে থাকে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠিত ব্র্যান্ডের পাশাপাশি নগদহাট বিভিন্ন উদীয়মান কোম্পানি ও উদ্যোক্তাদের নিকট থেকেও পণ্য সংগ্রহ করে থাকে। নগদহাট অনলাইন ও অফলাইনে চুক্তিবদ্ধ উদীয়মান কোম্পানি ও নতুন উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত মানসম্পন্ন পণ্যকে প্রমোট করে ব্যবসা সম্প্রসারণ করে থাকে। নগদহাট চুক্তিবদ্ধ কোম্পানি বা উদ্যোক্তার জন্য ব্যবসার নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি করে ও আইডিয়া দিয়ে আর্লি গ্রোথ অর্জনে সহায়তা করে থাকে। চুক্তিবদ্ধ কোম্পানি বা উদ্যোক্তার বিক্রিত পণ্য থেকে নগদহাট অত্যন্ত সহনীয় মাত্রার কমিশন গ্রহণ করে থাকে। নগদহাট কর্তৃপক্ষের সংকল্প হচ্ছে সবাই একসাথে নিয়ে এগিয়ে যাওয়া।

নিউ জেনারেশন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান নগদহাট বাংলাদেশ লিমিটেড প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই উদ্যোক্তা তৈরির পাশাপাশি নতুন উদ্যোক্তাদের পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে যাচ্ছে।

প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ ইস্রাফীল মোল্লা প্রতিবেদককে জানান, উদ্যোক্তা তৈরির মাধ্যমে বেকারত্ব সমস্যার দীর্ঘমেয়াদি সমাধান নগদহাটের অন্যতম মিশন। তিনি দৃঢ়তার সাথে জানান, “আপনি যদি স্বল্প পুঁজিতে অথবা বিনা পুঁজিতে উপার্জন শুরু করতে চান অথবা উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান সেক্ষেত্রে আপনি নগদহাটকে পাবেন এক বিশ্বস্ত সহযোগী হিসেবে।”

দেশের ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব সমস্যার দীর্ঘমেয়াদি ও টেকসই সমাধানে কার্যকর ভূমিকা রাখাকে নগদহাট বাংলাদেশ লিমিটেডের অন্যতম মিশন হিসেবে গ্রহণ করেছে। এইজন্য বিভিন্ন উপায়ে উদ্যোক্তা তৈরি, উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করা এবং জনসাধারণকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করে তোলার কাজটি নগদহাট নিষ্ঠার সাথে করে যাচ্ছে। দ্রুত বর্ধনশীল ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম নগদহাট বাংলাদেশের ই-কমার্স সেবা খাতে ব্যতিক্রমী কিছু বৈশিষ্ট্য সংযোজন করেছে। তার মধ্যে খুবই প্রশংসিত ও ব্যতিক্রমী একটি ফিচার হচ্ছে নগদহাটের এফিলিয়েট মার্কেটিং ফিচারটি। এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে বেকার লোকজন স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগ পায় এবং ধীরেধীরে উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি হয়। নগদহাট ম্যানেজমেন্ট কর্তৃপক্ষ উক্ত প্রতিবেদককে জানান, নগদহাট মূলত দেশের ক্রমবর্ধমান বেকার সমস্যার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের মহান ব্রতকে সামনে রেখে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর ধারণাটি সংযোজন করেছে। নগদহাটের এফিলিয়েট মার্কেটিং ফিচারটি খুবই কার্যকর, সময়োপযোগী এবং ইউজার ফ্রেন্ডলি একটি ফিচার। নগদহাটের প্ল্যাটফর্মে পণ্য বা সেবা বিক্রির মাধ্যমে যেকেউ অতি সহজেই উপার্জন করতে পারছেন। এফিলিয়েট মার্কেটিং কার্যক্রমটি একজন এফিলিয়েট মার্কেটার বিভিন্নভাবে পরিচালনা করতে পারে। যেকেউ স্যোশাল মিডিয়া এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইটে নগদহাট প্ল্যাটফর্মে প্রোডাক্টকে বিপণন করে বা প্রমোট করে কাঙ্ক্ষিত ভোক্তার কাছে পণ্য বিক্রয় নিশ্চিত করতে পারে। এছাড়া, কোন ব্যক্তি তার পরিবার, বন্ধু-বান্ধব, শুভানুধ্যায়ী ও পরিচিতজনদের মাঝে নগদহাট প্ল্যাটফর্মের পণ্যকে প্রমোট, রিকমেন্ড বা রেফার করে বিক্রয় নিশ্চিত করার মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটার হিসেবে অর্থ উপার্জন করতে পারে। নগদহাট এফিলিয়েট মার্কেটারদার জন্য আকর্ষণীয় অঙ্কের কমিশনের ব্যবস্থা রেখেছে। নগদহাটের অর্থ লেনদেন প্রক্রিয়া অত্যন্ত স্বচ্ছ, গতিশীল এবং এফিলিয়েট মার্কেটারদের জন্য সুবিধাজনক। নগদহাট কর্তৃপক্ষ বলেন, আমাদের তরুণ শ্রেণির অনেকেই স্বল্প বিনিয়োগের মাধ্যমে উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্ন দেখেন। কিন্তু, বাধা হয়ে দাঁড়ায় পণ্য বিক্রির অনিশ্চয়তা এবং প্রচারণার জন্য বিপুল ব্যয়ের বিষয়টি। নগদহাট নতুন স্বপ্নবাজ উদ্যোক্তাদেরকে নগদহাট প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে। নগদহাটের সাথে যুক্ত হওয়ার মাধ্যমে একজন তরুণ ও নতুন উদ্যোক্তা পাচ্ছেন বিপুল প্রচারণা ব্যয় থেকে মুক্তি। এবং, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে নগদহাটের শক্তিশালী ব্র্যান্ড ইমেজ ও কৌশলী মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজির কারণে নতুন উদ্যোক্তা হওয়া সত্ত্বেও স্বল্পতম সময়ের মধ্যে তার পণ্যের বিপুল প্রসার ও বিজনেস গ্রোথ নিশ্চিত হচ্ছে।

নগদহাটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, “নগদহাট বাংলাদেশ লিমিটেড দেশবাসীর জন্য একটি নির্ভরযোগ্য ও বিশ্বমানের ই-কমার্স সেবা নিশ্চিতের লক্ষ্যে নিরন্তরভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে সম্ভাবনাময় তরুণ জনগোষ্ঠীর মধ্য থেকে বিপুল সংখ্যক উদ্যোক্তা সৃষ্টি করে দেশের দীর্ঘমেয়াদি অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতা নিশ্চিতের লক্ষ্যে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। অনেক বড় স্বপ্ন নিয়ে আমরা কাজ করছি। আমাদের সম্মানিত গ্রাহক ও শুভানুধ্যায়ীদের সাথে নিয়েই আমরা আমাদের স্বপ্ন পূরণ করবো।”

আর পড়তে পারেন