সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৩, ২০২১
news-image

 

মোঃ জুয়েল রানা, তিতাসঃ

‘ভাইয়া, আমি বাঁচতে চাই’ কান্নাভেজা কণ্ঠে বলছিল কুমিল্লার তিতাস উপজেলা বলরামপুর ইউনিয়নের গাজীপুর গ্রামের পশ্চিম চকের বাড়ির মৃত জিলু মিয়ার মেয়ে কাজল রেখা (৩০)।

কাজল রেখা চার বোনের মধ্যে সে দ্বিতীয়। নেই ভাই, বাবা। গরীব হওয়ায় কম বয়সেই বিয়ে দেয় কাজল রেখাকে। হাসি খুশিতেই চলছিলো সুন্দর সংসার এবং তাদের ঘরে জন্ম নেয় একটি কন্যা সন্তান। এই ভাবেই ৭/৮ বছর কেটে যায় তার। হঠাৎ আরেকটি সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পরে কাজল রেখা। তারপরও বাঁচাতে পারে নেই গর্ভে থাকা পুত্র সন্তানকেও। এর পরেই কাজল রেখার জীবনে নেমে আসে অন্ধকার। ছেড়ে চলে যায় পাষণ্ড স্বামী। কে জানে তার শরীরে বাসা বেঁধেছে মারাত্মক এক ব্যাধি।

অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জানা যায় সে কিডনি রোগে আক্রান্ত। নষ্ট হয়ে গেছে একটি কিডনি এবং নষ্ট হওয়ার পথে দ্বিতীয়টি। টাকার অভাবে হসপিটালের বারান্দা থেকে ফিরে আশে বাড়িতে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যা, কাজল রেখা গাজীপুর গ্রামের পশ্চিম চকের বাড়ি নির্জন এলাকায় একটি দোচালা টিনের ঘরে মাটিতে সোয়ে ব্যথার যন্ত্রণায় বিছানায় ছটফট করছে।নেই বিদ্যুৎ ব্যবস্থা। সাথে আছে তার বৃদ্ধ মা ও তার ১১ বছরের একটি কন্যা সন্তান।

এদিকে কাজল রেখার এক মাত্র ভরসা বৃদ্ধ মা ফাতেমা বলেন, মেয়ের দীর্ঘ চিকিৎসায় চালাতে অনেক টাকার দরকার। আমার নেই ছেলে স্বামী। মেয়েদের দেওয়া দুই চারশ টাকায় আমি চলি। কয়েক মাস আগে গ্রামের মানুষের কাছ থেকে হাত পেতে কিছু টাকা নিয়ে চিকিৎসার জন্য ঢাকা নিয়ে গেছি কিন্তু ডাক্তার বলছে ওর অপারেশন করতে হলে অনেক টাকা লাগবে। যা আমার পক্ষে সম্ভব না। আর দ্রুত অপারেশন করতে পারলে সুস্থ জীবনে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে কাজল রেখার।

এমন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে কাজল রেখা এই সুন্দর পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে চায়। চিকিৎসার অর্থের জন্য সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার অনুরোধ করেছে কাজল রেখা ও তার মা ফাতেমা।

তাই বাবা, ভাই ও স্বামী হারা এই মেয়েটির বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজন সবার সহায়তা।

যোগাযোগ করুন এই নম্বরে: 01977244733 (বিকাশ)- কাজল রেখার ছোট বোন। এছাড়াও সহযোগিতার জন্য যোগাযোগ করা যাবে এই নাম্বারেঃ 01986106758 (মা ফাতেমা)।

আর পড়তে পারেন