শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বরুড়ায় সড়কের বেহালদশা, দীর্ঘ ১০ বছরেও লাঘব হয়নি জনদুর্ভোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৯, ২০২১
news-image

 

এমডি. আজিজুর রহমান, বরুড়া:

কুমিল্লার বরুড়ায় সড়কের বেহালদশা, প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার স্বীকার হচ্ছেন পথচারী ও যাত্রীরা। বার বার জনপ্রতিনিধি পরিবর্তন হলেও দীর্ঘ ১০ বছরেও এলাকার মানুষের দুর্ভোগের চিত্র পরিবর্তন হয়নি।

বুধবার (০৯ জুন) সকাল ১০ টার দিকে আমড়াতলী, বাতাইছরি ও শিকারপুর সরজমিনে গিয়ে সড়কের এ দৃশ্য দেখা যায়।

জানা গেছে, বরুড়া উপজেলার শিলমুড়ী উত্তর ইউনিয়নের আমড়াতলী, বাতাইছড়ি ও শিকারপুর সংযোগ সড়কটির বিভিন্ন অংশে ভেঙ্গে খানাখন্দ সৃষ্টি এবং কিছু অংশে ভেঙ্গে পুকুরে পড়ে মৃত্যুপুরিতে পরিনত হয়েছে। দীর্ঘতম সড়টির অবস্থা এখন বেহাদশায় পরিনত হয়েছে। সড়কটিতে দীর্ঘ ১০ বছর যাবৎ ধরে কোন সংস্কার করা হয়নি। প্রতিনিয়ত সিএনজি, অটো ও মাইক্রোবাসসহ বিভিন্ন ঘটনায় স্বীকার হয়ে পঙ্গুত্ব নিয়ে দিন পার করছে ভুক্তভোগীরা।

স্থানীয় বাসিন্দা ভুক্তভোগী আবুল হোসেন (৫০), বাচ্চু মিয়া (৬০) জানান, গত রবিবারে তিনি অটোতে করে আমড়াতলী যাওয়ার পথে খাদে পড়ে অটো উল্টে পুকুরে একজনের হাত ও আরেকজনের পা ভেঙ্গে যায়। স্থানীরা উদ্ধার করে হসপিটালে পাঠালে প্রাণে বেঁচে গেলেও পঙ্গুত্ব নিয়ে দিন পাড় করছেন। এছাড়াও সড়কের পাশে অনেকেই বাড়ি নির্মাণ করে সড়কের সরকারি জমি দখল করে রেখেছেন। তারা সড়কটির দ্রুত সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে বাতাইছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ হোসাইন বাবুল জানান, সড়কটির অবস্থা খুবই খারাপ। যার কারনে এ তিন এলাকার বাসিন্দারা কোথাও যেতে ১০ টাকার ভাড়া ৩৫ টাকা এবং ৩০০ টাকার ভাড়া ৮০০ টাকা দিতে হয়। তাছাড়া কাচামালের ট্রাক চলাচল করতে না পাড়া খুচরা ব্যবসায়ী এখানে এসে কচুর লতিসহ সব ধরনের সবজি কিনতে পারছেন না। এতে করে সবজি কৃষকের বাড়িতে পঁচে নষ্ট হচ্ছে এবং স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে কাঙ্খিত মূল্য পাচ্ছে না। সবকিছু মিলিয়ে এখানকার মানুষেরা চরম দুর্ভোগে বসবাস করছে। সড়কটি পুর্ননির্মাণ সম্ভব না হলে অন্তত চলাচলের উপযোগী করার জন্যে হলেও সংস্কার করার দাবি জানান তিনি।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইসহাস জানান, সড়কটি নিয়ে আমার ইউনিয়নবাসী অনেক কষ্ট পাচ্ছেন। আমি সড়কটি সংস্কারের দস্য জন্য সংসদ সদস্য, ইউএনও, উপজেলা ইঞ্জিনিয়ারকে অবহিত করেছি। কোন প্রতিকার পায়নি। তবে, যত দ্রুত সম্ভব হয় সংস্কারে যেনো উদ্যোগ নেওয়া হয় সে বিষয়ে পুনরায় যোগাযোগ করবেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার ফুয়াদ জানান, সড়কটি নির্মাণের জন্য দের বছর পূর্বে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছিল। পরবর্তী সড়কটি সদর ও লাকসামের সাথে বরুড়ার এ অংশটি রোডসেন হাইওয়ে কেটে নিয়ে যাওয়ায় প্রস্তাবনাটি বাতি হয়ে যায়। এ সড়কে রোডসেন হাইওয়ে ছাড়া অন্য কেউ কাজ করতে পারবে না।

এ বিষয়ে সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রেজা-ই রাব্বি জানান, গত বছর এ সড়কটিসহ আরো কয়েকটি সড়কের প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছিলো। করোনার কারনে কাজ করা হয়নি। আগামী অর্থ বছরের জুলাই মাসে সড়কের নির্মাণ কাজ করা হবে বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে সড়ক ও জনপদ মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম-সচিব ও বরুড়ার কৃতি সন্তান মনিন্দ্র কিশোর মজুমদার জানান, সড়কটির কাজ গতবছর সম্পন্ন হওয়ার কথা। যেহেতু কাজটি হয়নি আমি সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রেজা-ই রাব্বির সাথে যোগাযোগ করব। এছাড়াও সড়কটি দ্রুত সংস্কার করার জন্য তিনি আশ্বস্ত করেন।

 

আর পড়তে পারেন