রবিবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বরুড়ায় শরাপতি বন্ধন দারিদ্র বিমোচন সমিতির প্রায় হাজার সদস্যের সাড়ে ৮ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯
news-image

এম. এস ইমরান ঃ
কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার আগানগর ইউনিয়নের “শরাপতি বন্ধন দারিদ্র বিমোচন সমিতির প্রায় এক হাজার এক শত সদস্যের সঞ্চয়ের সাড়ে ৮ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, গত ২০০৯ সালের ৭ জুন প্রতিষ্ঠিত হয় “শরাপতি বন্ধন দারিদ্র বিমোচন” সমিতি ০১ । এর সাথে সাথেই শরাপতি সঞ্চয় ঋণদান সমিতি ০২ নামের আরেকটি সমিতি খোলে, যার রেজিঃ নং ৭৮। এই দুই সমিতির সভাপতি খায়রুল আক্তার, ক্যাশিয়ার (ম্যানেজার)মোঃ কবির হোসেন, উপদেষ্টা ফারুক হোসেনকে নিয়োগ দিয়ে সমিতির কার্যক্রম শুরু করে। এই দুই সমিতির কার্যক্রমের আওতায় মোট ১০৯৩টি নাম (শেয়ার) নিয়ে প্রত্যেক নামে “শরাপতি বন্ধন দারিদ্র বিমোচন” সমিতি ০১ প্রতি সপ্তাহে ২০ টাকা ও প্রতি ধানের মৌসুমে ২০০ টাকা হারে সঞ্চয় সংগ্রহ করে। পাঁচ বছরে প্রতি গ্রাহকের মোট ৮ হাজার টাকা জমা দেওয়ার পর ১৮ হাজার টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় কর্তৃপক্ষ। এভাবে প্রতি গ্রহককে ৫ বছরে ১৫ হাজার টাকার জমা দেওয়ার বিপরীতে লভ্যাংশসহ মোট ৫০ হাজার টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রতি দেয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সমিতির জমাকৃত অর্থ বৃদ্ধির সাথে সাথে কমিটির সদস্যদের মধ্যে অর্ন্তকোন্দল বৃদ্ধি পায়। ফলে সমিতির উপদেষ্টা, পরে সভাপতি খায়রুল আক্তারকেও বরখাস্ত করে সমিতি। পরবর্তীতে সমিতিতে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। একাধিক সভা-মিটিং হয়। বিচার বসে। কিন্তু কোন লাভ হয়নি। সমিতির ক্যাশিয়ার কবির হোসেনকে কারো টাকা ফেরত দেয়নি। উল্টো যারাই টাকা ফেরত চেয়েছে তাদেরকে মামলার জালে ফাঁসিয়েছে কবির হোসেন । এমন অভিযোগ করেছেন অসহায় হয়ে যাওয়া সমিতির সদস্যরা।

সমিতির ক্যাশিয়ার কবির হোসেন এ পর্যন্ত ৩১টি মামলা দিয়েছেন ৬০ জন সদস্যের বিরুদ্ধে । এই সমিতির বেশিরভাগ সদস্য রিক্সাচালক,দিনমজুর ও গ্রামের অসহায় মহিলা।

সদস্যরা জানান, কবির হোসেন নিজ বাড়ি ভেঙ্গেচুড়ে, অগ্নিসংযোগ করে আমাদেরকে মামলার আসামি করে। এভাবে সে সবাইকে হয়রানি করছে। তার সাথে প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তার যোগসাজশ রয়েছে ।তাদেরকে দিয়ে আমাদের ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে। আমরা অসহায়। আমরা আমাদের পাওনা টাকা ফেরত চাই।

এ বিষয়ে বরুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজম উদ্দিন মাহমুদ জানান, এ বিষয়টি আমি জানি। অনেকে ওই সমিতির কবির হোসেনের কাছে টাকা পাওনা বলে জানা গেছে। কিন্তু আমাদের কাছে কেউ কোন অভিযোগ করেনি।

আর পড়তে পারেন