শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বরুড়ায় নবাব ফয়জুন্নেছা চৌধুরীর ওয়াকফকৃত প্রায় ৭ একর সম্পত্তি বেদখল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৭, ২০২১
news-image

 

এমডি. আজিজুর রহমান:

কুমিল্লা জেলার উপজেলার ভাউকসার গ্রামে নবাব ফয়জুন্নেছা চৌধুরীর দুই কন্যার ওয়াকফকৃত প্রায় ৭ একর সম্পত্তি বেদখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, নওয়াব ফয়জুন্নেসা চৌধুরী রাণী জন্মগ্রহণ করেন কুমিল্লা জেলার হোমনাবাদ পরগনার (বর্তমানে লাকসামের) অন্তর্গত পশ্চিমগাঁয়ে। তিনি জমিদার আহমেদ আলী চৌধুরী আর মা আরাফান্নেসা চৌধুরাণীর ঘরে ১৮৩৪ সালে প্রথম কন্যা সন্তান হিসেবে জন্মগ্রহণ করেন।

সে সময়ের বরুড়ার আরেক স্বনামধন্য জমিদার সৈয়দ মোহাম্মদ গাজীর সাথে ১৮৬০ সালে তার বিয়ে হয়। তিনি ছিলেন মোহাম্মদ গাজীর দ্বিতীয় স্ত্রী। তৎকালিন সময়ে তিনি বরুড়া উপজেলার ভাউকসার ইউনিয়নের ভাউকসার গ্রামে তার শশুর বাড়িতে দৃষ্টি নন্দন তিন গম্বুজ বিশিষ্ট একটি মসজিদ নির্মাণ করেছিলেন। পরবর্তী তার দুই মেয়ে বদরেন্নেছা চৌধুরী রাণী ও আজিজুন্নেছা চৌধুরী রাণী দুইটি মসজিদসহ প্রায় ৭ একর সম্পত্তি ওয়াক্ফ করে দিয়েছিলেন।

জমিদারের প্রথা শেষ হয়ে গেলেও কালের স্বাক্ষি হয়ে দাড়িয়ে আছে এ নান্দনিক মসজিদটি। ধারণ করছে নবাব ফয়জুন্নেছার ছন্দময় ইতিহাস। মসজিদটির বাহিরে ছোট ছোট অনেকগুলো গম্বুজ রয়েছে। ভেতরে ও বাহিরের দেওয়ালে রয়েছে নকশা ও কারো কাজ। এ দৃষ্টিনন্দন নির্মাণ শৈল্পিক যে কাউকে আকৃষ্ট করবে।

সম্প্রতি নবাব ফয়জুন্নেছার দুই মেয়ের ওয়ক্ফকৃত সম্পত্তি প্রায় ৭ একরের মতো হলেও বাস্তবে তা নেই। অনেক সম্পদ বেদখল হয়ে গেছে। সব-শেষে মসজিদ কমিটির সভাপতি ছিলেন সৈয়দ এনায়তুল হক। তিনি ভাউকসার ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মাশরুর হকের বাবা। ওনার মৃত্যুর পরে প্রস্তাবিত কমিটি মসজিদটি পরিচালনা করছেন। একই স্থানে আরেকটি মসজিদ পরিচালনা করছেন ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মাশরুর হক।

সম্প্রতি তিনি আজিজুন্নেছা চৌধুরী রাণী ওয়াক্ফকৃত বেদখল হওয়া সম্পদ দখলমুক্ত করতে আদালতে একাধিক মামলা দায়ের করেছেন। জমিদার আমলের ইতিহাসের স্বাক্ষী নওয়াব ফয়জুন্নেসা চৌধুরী রাণীর নির্মিত মসজিদটির বর্তমানে ভেতরে ও বাহিরে আস্তর খসে পড়ছে। রাষ্ট্রিয়ভাবে সংস্কার ও রক্ষনাবেক্ষণের উদ্যোগ না নিলে জমিদার আমলের ইতিহাস বিলিন হয়ে যাবে।

এ ব্যাপারে নাম না প্রকাশে স্থানীয় কয়েকজন জানান, পুরোনো মসজিদটির সম্পত্তি লিল্লাহ ওয়াকফ করা হয়েছিলো। আর নতুন মসজিদটির সম্পত্তি আওলাদ ওয়াকফ করা হয়েছিলো। কাগজপত্র না থাকায় অধিকাংশ সম্পত্তির এখন কোন হদিস নেই। আওলাদ ওয়াকফকৃত সম্পত্তি নিয়েই এখন সর্বত্র বিরোধ চলছে। তাছাড়া ভাউকসার ইউনিয়নের বড় দিঘীটিও লিল্লাহ ওয়াকফকৃত সম্পত্তি ছিলো। কিন্ত আওলাদ ওয়াকফকৃত ওয়ারিশরা ভূয়া কাগজ বানিয়ে তা ভোগ দখল করছে বলে মন্তব্য করেন। এ সব সম্পত্তি উদ্ধারে সরকারের পক্ষ থেকে এগিয়ে আসতে হবে।

এ ব্যাপারে পুরোনো মসজিদ কমিটি সভাপতি সৈয়দ কামরুল আলম মামুন ও সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক এনাম জানান, আমরা অর্থের অভাবে মসজিদটি সংস্কার করতে পারছি না। এ বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে সহযোগিতার জন্য কুমিল্লা জেলা পরিষদ ও কুমিল্লা আঞ্চলিক প্রত্নতাত্ত্বিক অফিসের ধারে ধারে ঘুরেও কোন সহযোগিতা পায়নি। ইতিহাসকে লালন করতে তিনিরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি কামনা করেছেন।

এ বিষয়ে ভাউকসার ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মাশরুর হক বলেন, মহিউসী নারী নবাব ফয়জুন্নেছা চৌধুরী রাণী ছিলেন নারীদের জন্য এক অনন্য দৃষ্টান্ত। তিনি আমাদের বরুড়ার বধূ হওয়ায় আমরা গর্বিত।

তিনি আরো জানান, নবাব ফয়জুন্নেছা চৌধুরী রাণীর দুই কন্যা বদরুন্নেছা চৌধুরী রাণী ও আজিজুন্নেছা চৌধুরী রাণী। এ দুই কন্যা নবাব ফয়জুন্নেছার নির্মিত মসজিদ ও আজিজুন্নেছার আরো একটি মসজিদসহ প্রায় ৭ একর সম্পত্তি ওয়াকফ করে দিয়েছিলেন। বর্তমানে অধিকাংশ সম্পত্তি বেদখল হয়ে গেছে।

নবাব ফয়জুন্নেছার মসজিদটি একটি প্রস্তাবিত কমিটি দিয়ে চলছে। টুকিটাকি সংস্কার করে পাঞ্জেগানা নামাজ আদায় করছে মুসলল্লিরা। আর আজিজুন্নেছার চৌধুরী রানীর মসজিদটির কমিটি সভাপতির দায়িত্বে আমি আছি।

বর্তমানে আমি আজিজুন্নেছার বেদখল হওয়া সম্পত্তি দখল মুক্ত করার জন্য ইতিমধ্যে আদালতে মামলা করেছি। এ সব বিষয়ে আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকেও অবহিত করেছি। মামলাগুলো চলমান রয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনিসুল ইসলাম জানান, মসজদিসহ সকল ওয়াকফকৃত সম্পত্তি সংরক্ষিত করার লক্ষে কুমিল্লা কোটবাড়িতে অবস্থিত প্রত্নতাত্ত্বিক দপ্তরের আঞ্চলিক পরিচালক আতাউর রহমানকে অবহিত করা হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে ওনাকে নিয়ে মসজিদটি পরিদর্শন করা হবে।