মঙ্গলবার, ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বরুড়ায় কোথাও রাখা হয়নি খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মমিনুল হকের নাম

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২১
news-image

 

মো. আজিজুর রহমান, বরুড়া:

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান ফটকে স্কুল প্রতিষ্ঠাতার নামের পরিবর্তে লেখা হয়েছে জমি দাতার নাম। ৫০ বছর ধরে খোশবাস উচ্চ বিদ্যায়ের ভবনে জমি দাতা কিংবা প্রতিষ্ঠাতার নাম লেখা ছিলনা। হঠাৎ করে খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের গভর্ণি বডির পরিচালনা পর্ষদ কর্তৃক স্কুল শাখার প্রধান ফটকের মাঝে স্কুল প্রতিষ্ঠাতা মমিনুল হক ভূঁইয়ার নাম না লিখে, জমি দাতা জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়ার নাম লেখা হয়। এই নিয়ে ঐ এলাকার সর্ব-সাধারণের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রীয়া দেখা দিয়েছে।

এ ব্যাপারে পরিচালনা পর্ষদের আদিখ্যেতায় স্কুল প্রতিষ্ঠাতা মমিনূল হক ভূঁইয়া পরিবার অভিযোগ তুলেছেন। এবং স্কুল শাখার প্রধান ফটকে প্রতিষ্ঠাতার নাম বাদ দিয়ে একক ভাবে জমি দাতার নাম লেখায় প্রাক্তন শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকার মানুষও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৯৬৯ সালে বরুড়া উপজেলার খোশবাস উত্তর ইউনিয়নের খোশবাস বাজারে অবস্থিত খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন প্রয়াত মমিনুল হক ভূঁইয়া। তৎকালীন সময়ে তিনি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে বি এ পাশ করে ডাক বিভাগের উচ্চ পদের কর্মকর্তা হিসেবে চাকরী করেন। চাকরী থেকে যখন অবসরে গ্রামে চলে আসেন তখন একটা স্কুল করার পরিকল্পনা করেন এবং খোশবাস গ্রামের দানবীর জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়ার কাছে জমি চেয়ে নিয়ে স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। সম্পর্কে মমিনুল হক ভূঁইয়ার দাদির আপন ভাই ছিলেন জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া। ঐ স্কুলে মমিনুল হক ভূঁইয়া ১৩ বছর প্রতিষ্ঠাকালীন প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত থেকে ১৯৮২ সালে অবসরে চলে আসেন। স্থানীয় সাংবাদিক মো. ইউনুছ খান জানান, আমরা ছোটকাল থেকে যেনেছি এ স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন মমিনুল হক ভূইয়া। হঠাৎ করে প্রতিষ্ঠাতার নাম বাদ দিয়ে জমি দাতার নাম মূল ফটকে লেখা হয়। সাধারণত প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতার নাম মূল ফঠকে থাকে। আর দাতা সদস্যদের নাম অফিস রুমের ভেতরে বোর্ডে লেখা থাকে। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। বর্তমানে বিদ্যালয়ের কোথাও প্রতিষ্ঠাতার নাম লেখা নেই। নতুন প্রজম্মের কাছে মমিনুল হক এক অজানা অতিথির নাম হয়ে পড়ে রইলো।

প্রয়াত মমিনুল হক ভূঁইয়ার দৌহিত্রী আমেরিকান প্রবাসী ফাহমিদা সুলতানা বলেন, এ স্কুলের জমি দাতা জয়নুল আবেদীন এবং প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত মমিনুল হক ভূঁইয়া। তিনি প্রতিষ্ঠাকালীন প্রথম প্রধান শিক্ষক ছিলেন (১৯৬৯-১৯৮২) সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয়ের জন্মটা এভাবে হয়নি, যিনি জমি দান করেন তিনি ছিলেন মমিনুল হকের দাদির ভাই জয়নুল আবেদিন। মমিনুল হক জমিটা উনার কাছ থেকে চেয়ে নিয়ে সেখানে খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয় করেছিলেন। সেই ইতিহাসের সাক্ষি হচ্ছে জমির খাঁ ভূঁইয়ার পরিবারের সবাই। মমিনুল হক সাহেবে যখন মারা যান তখন সবাই চেয়েছিল উনার দাফন স্কুল মাঠে যেন হয়, কিন্তু হক সাহেবের পরিবারের সবার ইচ্ছায় সেদিন সেই দাফন পারিবারিক কবরস্থানে হয়। তিনি ছিলেন বলেই আজকে এখানে স্কুল হয়েছে। হক সাহেবের একজন প্রাক্তন ছাত্র হাইস্কুলকে কলেজে উন্নতি করতে সহায়তা করেন। এই স্কুলের ছাত্র রশিদ সাহেব তখন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ডিজি ছিলেন। যিনি করোনায় মারা যান গত বছর।তবে পঞ্চাশ বছর পর সবাই জানতে পারল জমি দাতার নাম, এই কথার মানে আমি বুঝতে পারি নাই। জমির খাঁ ভূঁইয়ার পরিবারের ও খোশবাসের সবাই জানে ঐ স্কুলের জন্ম কিভাবে হয়েছে। সাধারণত কোন স্কুলের গেইটে স্কুলের নাম লেখা থাকে। কিন্তু জমি দাতার নাম লেখা থাকে আমি কোথাও দেখেছি বলে মনে পড়ে না। আমি মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল ও কলেজের কলেজ শাখায় শিক্ষকতা করেছি ১৭ বছর। ঢাকা শহরের বহু কলেজে ব্যবহারিক পরীক্ষা নিতে বহু বার গিয়েছি কিন্তু আমি কোথাও দেখেনি যে, কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ফটকে জমি দাতার নাম লেখা থাকে।

মমিনুল হক চেয়ে ছিলেন যে খোশবাসের পরবর্তী প্রজন্ম শিক্ষার আলো থেকে যেন বঞ্চিত না হয়, সে দায়িত্ববোধের জায়গা থেকেই তিনি সকল প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। তবে আজকে আমি একটা কথা না বলে পারছিনা, সেই দিন এই স্কুল প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা করা হক সাহেবের পক্ষে খুব সহজ কাজ ছিল না। তিনি উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত ও দৃঢ় মনোবল সম্পন্ন ছিলেন বলেই সেটা সম্ভব হয়েছিল। আমি স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদ কে আহবান করে বলব, আপনারা স্কুল গেইটে জমিদাতার নাম জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়ার নাম দিয়ে কোন ভাবে দায় এড়াতে পারেন না। আপনার অবিলম্বে দুইজন কৃতিমান মানুষ কে সম্মান করে স্কুলের ভিতরে একটা নামফলক করে নতুন প্রজন্ম কে সঠিক ইতিহাস জানাবেন। খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ এর প্রাক্তন ছাত্রছাত্রী সংসদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইনজামানুল হক সৈকত বলেন “খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয়ের অস্তিত্বের সাথে মিশে রয়েছে মমিনুল হক সাহেব। কেননা উনি এ স্কুল প্রতিষ্ঠা না করলে হয়ত আজ খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হত না৷ সুতারং কর্তৃপক্ষের নিকট আকুল আবেদন, প্রতিষ্ঠাতার নাম যেন এই পলকে দেওয়া হয়”।

ফয়সাল মাহমুদ বলেন, কোন স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার তথা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের গেইটে নামের পাশে সৌন্দর্য বর্ধনে কারা কাজ করছে সেই লেখা থাকার মানে কি? তাদের নামের প্রচার? এগুলো হচ্ছে হীনমন্যতার পরিচায়ক”। জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়ার উত্তরসূরী খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রী নিলুফার কবির রেখা বলেন, আমার মতে জমি দাতার নামের পাশে প্রতিষ্ঠাতার নামও দেয়া উচিত ছিল। এখানে কারো অবদান কম নয়। জয়নুল আবেদীন ভূঁইয়া আমার দাদা ছিলেন, মমিনুল হক ভূঁইয়াও আমার আরেক দাদা ছিলেন। উনাদের সন্মান জানাতে দুজনের নাম দিলে কার কি ক্ষতি হতো? যারা এ কাজের দায়িত্বে ছিলেন তারা এটার পরিবর্তন করে নতুন করে দুজনের নাম বসিয়ে ঠিক করে আনুন। এলাকাবাসীকে দ্বিধাদ্বন্দে ফেলবেন না। আশা করি এতে কেউ দ্বিমত প্রকাশ করবেন না। আমরা খোশবাস গ্রামকে খুব ভালবাসি।

এ ব্যাপারে এডভোকেট নিনা জানান, মমিনুল হক আমার দাদা হন। তিনি এ স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। তিনি খোশবাস এলাকার বহু উন্নয়নের রূপকার ছিলেন। কখনো নিজে বিজ্ঞাপন করেননি। হঠাত করে জমিদাতার নাম মূল ফটকে লিখে নতুন বির্তকের জন্ম দিয়েছে পরিচালনা পর্ষদ। বিষয়টি দুঃখজনক।

এ বিষয়ে খোশবাস উচ্চ বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ মো. শাহ আলম জানান, গভর্ণি বডির পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তে এ নাম লেখা হয়। মমিনুল হক ভূঁইয়া কখনো প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন কিনা তিনি জানেন না।

এ বিষয়ে স্কুলের গভর্ণি বডির সভাপতি মজিবুর রহমান বলেন, প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে রেজুলেশনে কোথাও মমিনুল হক ভূইয়ার নাম নেই। নাম পরিবর্তনের বিষয়টি পরিচালনা পর্ষদ জানে। তিনি নতুন করে সভাপতি হয়েছেন। এ সব বিষয়ে তিনি অবগত নন।

আর পড়তে পারেন