শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বরুড়ায় আ‘লীগ নেতার বিরুদ্ধে খাসজমি দখল করে স্থাপনা নির্মানের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২২, ২০২১
news-image

এমডি. আজিজুর রহমান, বরুড়াঃ

কুমিল্লা জেলার বরুড়া উপজেলার ধনিশ্বর বাজারের পাশে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে সরকারি খাসজমি দখল করে স্থাপনা নির্মানের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (২২ জুন) সকালে ধনিশ্বর বাজারে সরজমিনে গিয়ে স্থাপনা নির্মানের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়।

জানা গেছে, উপজেলার গালীমপুর ইউনিয়নের ধনিশ্বর বাজারের পাবলিক টয়লেটটি ব্যবহারের অনুপযোগী হওয়ায় দীর্ঘদিন যাবৎ পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়েছিলো। স্থানীয় মাংশ ব্যবসায়ীরা এ স্থানটিতে গরু জবায়ের কাজটি করতেন। পরবর্তীতে মাংশ ব্যবসায়ীদের সরিয়ে দিয়ে ধনিশ্বর গ্রামের বাসিন্দা মৃত-রহম আলীর ছেলে ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের নেতা সিরাজুল ইসলাম (৬০) বাজারের পুরনো সরকারি পাবলিক টয়লেটি ভেঙ্গে স্থাপনা নির্মাণ করেন। সিরাজুল ইসলাম টয়লেটের জায়গাসহ বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে জেলা প্রাশাসক কুমিল্লার ১নং খতিয়ানভূক্ত ১২৩৬ ও ১২৩৭ দাগে প্রায় ১৫ শতাংশ (খাস) সম্পত্তি দীর্ঘদিন যাবৎ দুটি দোকান নির্মান করে ভোগদখল করে আসছেন।

এছাড়াও একই দাগ থেকে প্রায় ৪ বছর পূর্বে স্থানীয় ব্যবসায়ী জয়নাল হাজারীর কাছে স্ট্যাম্পের মাধ্যমে ৪ শতাংশ সরকারি খাসজমি বিক্রি করে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা।

স্থানীয়রা জানান, দলীয় প্রভাব খাটিয়ে তিনি সরকারি এ খাসজমি দখল করে স্থাপনা নির্মান করেছেন। বাহির দিয়ে দেওয়াল নির্মান করে ভেতরে নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এ কাজ গোপন রাখতে বন্ধ করে দিয়েছেন মানুষের চলাচলের একটি সরু রাস্তা। এতে করে মানুষের ভোগান্তিও বেড়েছে।

ধনিশ্বর বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, একটি দাতা সংস্থা কর্তৃক আনুমানিক ১৯৯৩ সালে একটি ছাদ বিশিষ্ট বিল্ডিংয়ে ৪টি টয়লেট নির্মান করা হয়েছিলো। দুইটি টয়লেট আগেই থেকেই নষ্ট হয়ে গিয়েছিলো। আর দুইটা বাজারে মানুষরা ব্যবহার করতো। কিছুদিন পূর্বে সিরাজ ও তার ছেলেরা টয়লেটটি ভেঙ্গে স্থাপনা নির্মাণ করে। খবর পেয়ে এক মাস পূর্বে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ইউনিয়ন তশিলদার রতন জায়গাটি পরিদর্শন করেন। এবং পরবর্তীতে এসিলেন্ডের নির্দেশে তশিলদার রতন কাজ বন্ধের জন্য নোটিশ প্রদান করেন।

এ ব্যাপারে সিরাজুল ইসলামে আপন ছোট ভাই রুস্তম আলী জানান, সিরাজ বর্তমানে সরকারি টয়লেটের জায়গাসহ কোন লিজ ছাড়াই প্রায় ১৫ শতাংশ সম্পত্তি ভোগদখল করছে। বর্তমানে সে নতুন স্থাপনা নির্মানের সময় আমার পৈতৃক ২ শতাংশ জমিও দখল করে নিয়েছে। এ ব্যাপারে আমি এসিলেন্ডের বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমি সরকারি খাসজমি দখল করিনি। এটা আমার খতিয়ানভূক্ত জমি। আমার জমিতে আমি স্থাপনা নির্মাণ করেছি। বাজারে আরো একটি দোকান আছে সেটিও আমার ক্রয় সম্পত্তি। অতিতে বাজারে আমি কোন দোকান ঘর বিক্রি করিনি।

এ ব্যাপারে গালীমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রবিউল আলম জানান, জায়গাটি নিয়ে কয়েকদিন পূর্বে দুই পক্ষের মধ্যে জামেলা হলে এ বিষয়ে আমি অবগত হই। যতদূর জানি, একমাস পূর্বে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ইউনিয়ন তশিলদার রতন জায়গাটি পরিদর্শন করেছেন।

এ বিষয়ে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মীর রাশেদুল ইসলাম জানান, বিষয়টি আমি দুই মাস পূর্বে অবগত হয়েছি এবং অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করি। গত সপ্তাহে পুনরায় জায়গাটি দখলের বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। পরে ইউনিয়ন তশিলদার রতনকে নোটিশ করার জন্য নির্দেশ দিয়েছি। আগামী জুলাই মাসের শুরুতে আমাদের সার্ভেয়ার দিয়ে জমির পরিমান নির্ধারন করে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে।

আর পড়তে পারেন