বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বরুড়ায় আ’লীগের দ্বন্দ্ব নিরসনের জন্য দুই মন্ত্রীর আগমণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৮, ২০১৭
news-image

স্টাফ রির্পোটার:

কুমিল্লার বরুড়া উপজেলা আ’লীগের দলীয় নেতৃবৃন্দদের মাঝে দ্বন্দ্ব নিরসনের লক্ষ্যে শনিবার বাংলাদেশ আ’লীগের প্রভাবশালী দুই মন্ত্রী, পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল ( লোটাস কামাল) এমপি ও রেলপথ মন্ত্রী মজিবুল হক এমপি আসবেন। এ আগমন উপলক্ষে উপজেলা আ’লীগের উদ্যোগে ১১ ঘটিকার সময় বরুড়া উপজেলা মিলায়তনে সূধি সমাবেশ ও বিকেল সাড়ে ৩টায় কেন্দ্রীয় ঈদগাহ্ ময়দানে এক জনসভা অনুষ্ঠত হইবে।
জানা যায়, গত ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের পর থেকে কমিল্লা জেলার বরুড়া উপজেলা আ’লীগ ২টি গ্রুপে এবং ২০১৪ সালে আরো ১টি গ্রুপে বিভক্ত হয়। তারা এ ৩টি গ্রুপে বিভক্ত থাকা সত্বেও গত ৯ বছরে কোন সহিংসতা ছাড়াই রাজনীতিতে সক্রিয় রয়েছে। বর্তমানে তারা ৩ টি গ্রুপে বিভক্ত থাকার পরও দলের বিভিন্ন কর্মসূচী, জাতীয় দিবস, দলীয় প্রচার প্রচারণায় রয়েছে ত্রিমুখি তৎপরতা।
এ উপজেলা ১৫ টি ইউনিয়ন, একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। এ উপজেলায় ৩৩৩টি গ্রাম রয়েছে। ১৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ৭টি ইউনিয়নে বিএনপি ইউপি চেয়ারম্যান, ৭ টিতে আ’লীগ চেয়ারম্যান ও একটিতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান রয়েছে। সংসদ সদস্য ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাতীয় পার্টি। পৌর মেয়র, উপজেলার চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিএনপির।

গত ২৪ এপ্রিল বরুড়া উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করেছে কুমিল্লা (দঃ) জেলা আ’লীগ কমিটি। আহবায়ক নির্বাচিত হয়েছেন সাবেক সংসদ সদস্য নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল। ১৯৮৪/৮৫ ইং দিকে সাবেক সাংসদ নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল চারবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য মরহুম আবদুল হাকিম এমপির হাত ধরে বরুড়া রাজনীতিতে আসেন। আদ্রা ইউনিয়ন থেকে তার রাজনীতি শুরু। ১৯৯৬ সালে আবদুল হাকিম বরুড়া থেকে এমপি নির্বাচিত হন।

ওই সময় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অঞ্চল থেকে সংরক্ষিত আসনের এমপি বানান অধ্যাপিকা পান্না কায়সারকে। তখনো আবদুল হাকিম বরুড়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি। ওই সময় এমপি পান্না কায়সারের সাথে নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল ঢাকা থেকে বরুড়ায় আসা শুরু করে। পান্না কায়সার কোথাও অনুষ্ঠান দিলে আ’লীগ থেকে পাল্টা অনুষ্ঠান ঘোষনা করা হতো। কোথাও কোথাও ফুটবল খেলার আয়োজন করা হতো। উপজেলা প্রশাসন তখন ওই অনুষ্ঠানে ১৪৪ ধারা জারি করতো। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত এভাবে চলছিলো বরুড়া উপজেলা আ’লীগের কার্যক্রম। ২০০১ সালে বিএনপি থেকে একে এম আবু তাহের পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০১ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত এলাকায় আবদুল হাকিম ও নজরুলের গণসংযোগ, সভা সমাবেশ বৃদ্ধি পায়।

বিএনপি ক্ষমতা শেষে দেশে ১/১১ আসার পর অনেক নেতা কর্মী গা ডাকা দিয়ে থাকে। ২০০৮ সালে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আবদুল হাকিম প্রথমে নৌকা প্রতীক নিয়ে মনোনয়ন পত্র দাখিল করলেও ঠিক মনোনয়ন বাচাইয়ের পূর্ব মুর্হুতে নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুলকে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নৌকা মার্কা প্রতীক প্রদান করেন। ফলে আবদুল হাকিমের মনোনয়ন পত্রটি বাতিল হয়ে যায়। বর্তমান সংসদ সদস্য জাপা নেতা বীর-মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক নুরুল ইসলাম মিলন মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে নজরুল কে সমর্থন জানান। ফলে নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল বিএনপির প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য জাকারিয়া তাহের সুমনকে পরাজিত করে এমপি নির্বাচিত হন।

ওই সময়ও উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ছিলেন আবদুল হাকিম। এ সময় ২ ভাগে বিভক্তি হয়ে বরুড়া উপজেলা আ’লীগের কার্যক্রম ভালো ভাবে শুরু হয়। নজরুল এমপি হওয়ার পর দেশে পুনরায় উপজেলা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। মনোনয়ন দাখিল করেন অধ্যাপক নূরুল ইসলাম মিলন ও হাফিজ আহমেদ। নজরুল হাফিজ আহমেদ থেকে সমর্থন জানান। হাফিজ আহমেদ উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এমপি ও চেয়ারম্যানের মধ্যে প্রকাশ্যে বিরোধ না থাকলেও ভিতরে ভিতরে ২ জনের মাঝে কিছুটা দুরুত্ব ছিলো। নজরুলের ৫ বছর মেয়াদ শেষে ২০১৪ সালে ৫ই জানুয়ারী নির্বাচন বর্জন করে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। হরতাল, অবরোধ উপেক্ষা করে নজরুল হেলিকপ্টার করে ঢাকা থেকে বরুড়ায় এসে নৌকা প্রতীক নিয়ে মনোনয়ন পত্রটি দাখিল করেন।

এরই মাঝে সাবেক রাষ্ট্রপতি হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদের দল জাপার সাথে আ’লীগের চুক্তি অনুযায়ী বরুড়া আসন জাতীয় পার্টির ভাগে পড়ে। তখন প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে নজরুল মনোনয়ন প্রত্যাহার করে, জাপা নেতা বর্তমান সংসদ সদস্য অধ্যাপক নুরুল ইসলাম মিলনের পক্ষে কাজ শুরু করেন। ঐ সময় আবদুল হাকিম তার ছেলে বর্তমান কুমিল্লা (দঃ) জেলা আ’লীগের প্রভাবশালী সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. এইচ এম কামরুল ইসলাম কে দিয়ে স্বতন্ত্র এমপি প্রার্থী হিসেবে দাড় করিয়ে দেন। ৫ জানুয়ারী অধ্যাপক নূরুল ইসলাম মিলন এমপি নিবার্চিত হন।

কিছুদিন না যেতেই দেশে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচন আসে। বিএনপি থেকে আলহাজ্ব আবদুল খালেক চৌধুরী, নজরুলের গ্রুপ থেকে ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক মিয়াজী, আবদুল হাকিম গ্রুপ থেকে আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আগানগর ইউপি চেয়ারম্যান মাজহারুল ইসলাম মিঠু মনোনয়ন দাখিল করেন।

মনোনয়ন বাচাই কালে ঠিকাদারী লাইসেন্স থাকার কারনে ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক মিয়াজীর মনোনয়ন পত্রটি বাতিল হয়ে যায়। যেটা শেষ পর্যন্ত হাইকোটের প্রধান বিচারপতি পর্যন্ত ঘড়ায়। সে খানেও এনামের মনোনয়নটি বাতিল হয়ে যায়। মনোনয়ন বাতিল হওয়াকে কেন্দ্র করে নজরুল কে দোষারোপ করে ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক মিয়াজী নজরুলের গ্রুপ থেকে বের হয়ে নতুন করে আরো ১টি প্রভাবশালী গ্রুপ তৈরী করেন। তখন থেকে শুরু বরুড়া উপজেলা আ’লীগের ৩ ভাগে বিভক্তি। রাজনৈতিক সিনিয়র অনেক নেতা ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক মিয়াজীর গ্রুপে যোগদান করেন।

এরই মধ্যে চারবারের নির্বাচিত জনপ্রিয় সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল হাকিম সাহেব ইন্তেকাল করেন। উনার অবর্তমানে তাঁর ছেলে এ্যাড. এস এম কামরুল ইসলাম, দলের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া কে সাথে নিয়ে রাজনীতির চলমান ধারাকে অব্যাহত রাখেন।

তখন ঐ সময় বরুড়ায় পৌর নির্বাচন আসে। দলীয় মনোনয়ন নিয়ে আসেন নজরুল সাবেক পৌর মেয়র বাহাদুরুজ্জামানের জন্য। তারপর উপজেলার নয়টি ইউনিয়নের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের নিবার্চন আসে। এ্যাড. কামরুল ইসলামের গ্রুপের কমিটি অর্থাৎ বর্তমান জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াল এডমিরাল আবু তাহের ও মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়ার সুপারিশ কৃত তালিকায় নয়টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে নিবার্চন করেন প্রাথীরা। একবার নজরুলের সুপারিশ আরেকবার এ্যাড. কামরুল গ্রুপের সুপারিশ কেন্দ্রে গৃহীত হয়। এ নিয়ে নেতা কর্মীদের মাঝে কাদাঁ ছোড়াছুড়ির মাত্রাটা আরো বেড়ে যায়।

গত ২৪ এপ্রিল কুমিল্লা (দঃ) জেলা আলীগের সভাপতি পরিকল্পনামন্ত্রী আহম মোস্তফা কামাল (লোটাস) ও সাধারণ সম্পাদক রেলমন্ত্রী মজিবুল হক স্বাক্ষরিত সাবেক সাংসদ নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুলকে আহবায়ক করে ১০১ সদস্য বরুড়া উপজেলা আ’লীগে আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করে। এতে অপর ২টি গ্রুপের নেতৃবৃন্দদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। কমিটির ঘোষনার ২/১দিনের মাথায় এ্যাড. কামরুল ইসলাম গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া, সাংবাদিক সম্মেলন করে আহবায়ক কমিটি মানিনা বলে ঘোষনা দেন এবং পূর্বের ন্যায় দলের কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার জন্য নেতা কর্মীদের নির্দেশ দেন। যদিও নজরুলের আহবায়ক কমিটিতে ৩ গ্রুপের নেতা কর্মীদের নাম রয়েছে।

গত শাকপুর ও ভাউকসার ইউনিয়ন নির্বাচনে নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুলের স্বাক্ষরিত পেপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেন। কিন্তু দলীয় কোন্দলের কারনেই নাকি ঐ ২টি ইউনিয়নের আ’লীগের প্রার্থীরা পরাজিত হয় বলে স্থানীয় আ’লীগের সমর্থকেরা মন্তব্য করেন।

এদিকে বরুড়া উপজেলা আ’লীগ ৩টি গ্রপে বিভক্তির কারনে, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লা-৮ বরুড়া এ আসনে আ’লীগের অবস্থান কোথায় গিয়ে দাড়াঁবে এ হতাশায় উপজেলা আ’লীগের সাধারণ কর্মী ও সমর্থকদের কপালে ভেসে উঠেছে দুঃশ্চিন্তার ভাঁজ। তাছাড়া বরুড়া উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের একাধিক গ্রামে ঘুরে জানা যায়,আাগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে জয়ী হতে হলে আমাদেরকে ত্রিমুখি দ্বন্দ্বকে চিরতরের মতো কবর দিতে হবে।
বর্তমান উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল, উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক কমিটির সকলের উপস্থিতি কামনা করে ১৭ জুন আহবায়ক কমিটির প্রথম সভা আহবান করেন এবং ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক মিয়াজী তার কর্মীদের নিয়ে ঐ সভায় অংশগ্রহন করেন।
ঐদিন সভায় নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল বক্তব্যে বলেন, উপজেলা আ’লীগে কোন গ্রুপিং নেই, আমাদের মাঝে রয়েছে প্রতিযোগীতা। বড় দল হিসেবে নেতা কর্মীদের মান অভিমান থাকতে পারে। আমি আশা করি আগামী একাদশ জাতীয় নিবার্চনে সকল মান অভিমান ভুলে গিয়ে কাঁধে কাঁধ রেখে মিলে মিশে কাজ করবো।

এদিকে দুই মন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে, বরুড়ায় আ’লীগের সাধারণ কর্মী ও সমর্থকদের মাঝে নতুন আশার আলো জেগে উঠেছে। তারা মনে করছে এ সমাবেশের পর বরুড়া উপজেলা আ’লীগের দ্বন্দ্ব চিরতরের মতো সমাপিÍ ঘটবে।

তাছাড়া সভা সফল করার জন্য বিভিন্ন স্থানে বৈঠকসহ আলোচনা করেন সাবেক সংসদ সদস্য নাছিমুল আলম চৌধুরী (নজরুল) ও কুমিল্লা (দঃ) জেলা আ,লীগের শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জি: এনামুল হক মিয়াজী। গতকাল ২ নেতাই নেতা কর্মীদের নিয়ে মঞ্চের কাজ তদারকি করেন। ইতি মধ্যে বিভিন্ন স্থানে নেতা কর্মীদের সৌজন্যে তোরণ ও ব্যানার, পোষ্টার, ফেষ্টুন লাগানো হয়েছে। মন্ত্রীদের আগমনকে কেন্দ্র করে আ’লীগ নেতা কর্মীদের মাঝে আনন্দ উচ্ছ্বাস দেখা যায়।

আর পড়তে পারেন