বুধবার, ৩রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন- ২০২১ঃ বাঙ্গালীর বিজয়ের প্রতিধ্বনি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২১, ২০২১
news-image

লেঃ কর্ণেল মোঃ নাজমুল হুদা খান, এএমসি:
১৯৭১ সালে বিশ্বের বুকে স্বাধীন বাংলাদেশ অধ্যায় রচনা এবং লাল সবুজের পতাকা অর্জনের পর স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান বিজয়ীর বেশে দেশের মাটিতে পা রাখেন ১৯৭২ সালের ১০ই জানুয়ারি। বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসকে সামনে রেখে আয়োজন করা হয়েছে ”বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন- ২০২১”। জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকী উদ্যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সহায়তায় দেশব্যাপি এ ম্যারাথনের আয়োজনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, সশস্ত্র বাহিনী ও সমন্বয়কারী অন্যান্য সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগ প্রশংসনীয়। এ উদ্যোগ সারা দেশের মানুষের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। এটি আন্তর্জাতিকভাবেও বঙ্গবন্ধুর জ›মশত বার্ষিকী উদযাপনের ক্ষেত্রে ভিন্ন মাত্রা যোগ করবে। ক্রমান্বয়ে এ আয়োজনের ব্যাপ্তি বৃদ্ধি পাবে এবং রক্তে কেনা এ দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, উন্নতি ও সমৃদ্ধিও বার্তাগুলো আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলেও ছড়িয়ে পড়বে। এ আয়োজন সত্যিকারার্থেই দেশ ও জাতিকে করোনা অতিমারীতেও উদ্বুদ্ধ করবে।

১০ই জানুয়ারি ১৯৭২-বিজয়ী জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন:
ম্যারাথনের ইতিহাসের সাথে ‘নানিকাক্যাম্যান’ বা ‘আমরা বিজয়ী হয়েছি’ বাক্যটি ওতপ্রোতভাবে জড়িত। গ্রীসের ম্যারাথন শহরে আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে একটি সংখ্যালঘু বাহিনীর যুদ্ধ জয়ের বিখ্যাত বার্তাটি ছিল ‘নানিকাক্যাম্যান’। প্রেক্ষাপট যদিও ভিন্ন; তথ্যাপি বাঙ্গালী জাতিও পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ জয়ের পর এ জয়ের রূপকার জাতির পিতার বিজয়ীর বেশে দেশের মাটিতে পা রাখেন। তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন- ২০২১ আয়োজনটি যেন বাঙ্গালীর বিজয়েরই প্রতিধ্বনি।

ম্যারাথনের ইতিহাস জানতে হলে আমাদের ফিরে যেতে হবে প্রাচীণ গ্রীসে, খ্রীষ্টপূর্ব পঞ্চম শতাব্দীতে। খ্রীষ্টপূর্ব ৪৯০ সালে গ্রীসের পাশ্ববর্তী পার্সিয়ানরা নিজেদের সৈন্যদলকে এথেন্স দখলে লেলিয়ে দেয়। কিন্তু এক পর্যায়ে গ্রীসের ম্যারাথন শহরের যোদ্ধারা পার্সিয়ান হানাদারদের বিরুদ্ধে বড় জয় নিশ্চিত করে। কিংবদন্তি অনুসারে এ বিজয় সংবাদ রাজধানী এথেন্সবাসীর কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য সেনা বার্তাবাহক ফেইডিপ্পিডেস প্রায় ২৬ মাইল বিরতিহীন দৌড়ে এথেন্স শহরের কেন্দ্রে পৌঁছান এবং গ্রীক ভাষায় ”নানিকাক্যাম্যান” বা ‘আমরা বিজয়ী হয়েছি’ সংবাদটি দিয়েই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। ১৮৯৬ সালে গ্রীসে অনুষ্ঠিত প্রথম অলিম্পিক প্রতিযোগিতায় সর্বপ্রথম অ্যাথেলেটিক ইভেন্ট হিসেবে ম্যারাথনের অর্ন্তভুুক্তি হয়। খ্রীষ্টপূর্ব পঞ্চম শতাব্দির সে ম্যারাথন শহরের যোদ্ধাব্দের বিজয় এবং বার্তাবাহক ফেইডিপ্পিডেসের স্মরণে এ ইভেন্টের নামকরণ করা হয় ম্যারাথন।

গ্রীসে ম্যারাথন যুদ্ধ বিজয়ের বার্তাবাহক ফেইডিপ্পিডেসের ভাস্কর্য:

ম্যারাথন শহর ও রাজধানী এথেন্সের দূরত্ব যদিও প্রায় ৩০ মাইল, কিন্তু বার্তাবাহক ফেইডিপ্পিডেসের দৌড়টি ছিল চড়াই-উৎরাই অতিক্রম করে অনেকটা ক্রস কান্টি রেসের মত এবং তার সে কিংবদন্তীতুল্য দৌড়ের দূরুত্ব ছিল ২১ থেকে ২৬ মাইলের মতো। সে নিরিখে গ্রীস অলিম্পিক কর্তৃপক্ষ নতুন ইভেন্ট ম্যারাথন দৌড়ের দূরত্ব হিসেবে ৪০ কি.মি. বা ২৪.৮৫ মাইল ধার্য্য করেন। ১৯০৮ সালে লন্ডন অলিম্পিকে রাণী আলেকজান্দ্রার নির্দেশে ম্যারাথন দৌড় শুরু হয় ব্রিটিশ উহন্ডজর ক্যাসেল থেকে এবং শেষ হয় অলিম্পিক স্টেডিয়াম হিসেবে খ্যাত হোয়াইট সিটি স্টেডিয়ামের রয়্যাল ভিউয়িং বক্রোর সামনে এসে; যার দূরত্ব ২৬.১৯৫ মাইল। লন্ডন অলিম্পিকের পর পুরো ১৩ বছর তর্ক বির্তকের পর ১৯২১ সালের মে মাসে আন্তর্জাতিক অ্যামেচার অ্যাথেলেটিক ফাউন্ডেশন ম্যারাথনের আদর্শ দূরত্ব হিসেবে ২৬.১৯৫ মাইলকেই বেছে নেয়। যদিও বিভিন্ন ইতিহাসবিদদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে এ ম্যারাথন উৎপত্তির ইতিহাস নিয়ে। কারো কারো মতে প্রাচীনকালে বিভিন্ন রাজ্যের বার্তাবাহকদের মধ্যে দীর্ঘ পরিসরে দৌড়ে গিয়ে সংবাদ আদান প্রদানের ক্ষমতা থাকতে হতো। বার্তাবাহকদের এ দীর্ঘ দৌড়ের প্রথা থেকেও ম্যারাথন নামক দৌড় প্রতিযোগিতার ভাবনা জন্ম হতে পারে।

আবার কারো মতে, ম্যারাথন দৌড়ের প্রচলন শুরু হয় প্রাচীন সুমেরিয় সভ্যতার আমলে। সুমেরে রাজা শুলগী ছিলেন একজন দক্ষ ক্রীড়া ও দৌড়বিদ। তিনি একবার সিদ্ধান্ত নেন, তার রাজ্যের নিপ্পুর নামক স্থান থেকে দৌড়ে মেসোপটেমিয়ার যাবেন। সে মোতাবেক, জনগনের আনন্দ ও উদ্দীপনায় এই স্থানদ্বয়ের মধ্যকার ৭০ কি.মি. দূরত্ব দৌড়ে শেষ করেন রাজা শুলগী। যাই হোক, প্রথম গ্রীক অলিম্পিকে যেহেতু ম্যারাথন ইভেন্টটি শুরু হয়, সুতরাং এর সাথে সংশ্লিষ্ট তথ্য উপাত্তগুলোই সঠিক বলে ধরে নেয়া যায়।

১৮৯৬ সাল থেকে চলে আসা এ ম্যারাথন ইভেন্ট ক্রমে দেশে দেশে জনপ্রিয় হতে থাকে। এডভেঞ্চার প্রিয় মানুষদের কাছে স্থান, কাল ও পাত্রভেদে ম্যারাথন শব্দটির সাথে যোগ হয়েছে হাফ, আলট্রা, আলট্রা-ট্রেইল, স্টেজ ম্যারাথনের মতো শব্দগুলো। হাফ ম্যারাথন ফুল ম্যারাথনের অর্ধেক দূরত্ব, আলট্রা ম্যারাথন ৫০-১০০ কি. মি. পর্যন্ত দূরত্বের হয়ে থাকে। আর যে সব ম্যারাথন দূরত্বের হিসেবে না হয়ে সময়ের হিসেবে নির্ধারিত হয় তা হচ্ছে স্টেজ ম্যারাথন। আর ট্রেইল ম্যারাথনে লম্বা  দূরত্ব দৌড়ানোর সাথে ম্যারাথনারদের হাইকিং জাতীয় কাজও করতে হয়। সব কিছু ছাপিয়ে রয়েছে ভেথ ভ্যালিতে প্রায় ৫০ ডিগ্রী সেলসিয়াসে ১৩৫ মাইলের “বেড ওয়াটার আলট্রা ম্যারাথন” কিংবা দক্ষিণ মেরুতে -২৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসে “এ্যান্টার্কটিক আইস ম্যারাথন” ইত্যাদি।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন- ২০২১ এ দেশ-বিদেশের ম্যারাথনারগণ:

বাংলাদেশে ইতোপূর্বে বিভিন্ন উপলক্ষে ও মাত্রায় ম্যারাথন অনুষ্ঠিত হয়। জনহিতকর কাজে তহবিল সংগ্রহ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা কিংবা বিভিন্ন জনকল্যানমূলক কর্মকান্ডে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন এ ইভেন্টের আয়োজন করে। কিন্তু মুজিব বর্ষে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসটিকে মাইলফলক হিসেবে ধরে বাংলাদেশের মাটিতে এবারই প্রথম আন্তর্জাতিক মানের ম্যারাথনের আয়োজন। মোট তিনটি ক্যাটাগরীতে এ ম্যারাথন পরিচালিত হচ্ছে, যথাঃ- ফুল ম্যারাথন, হাফ ম্যারাথন এবং ডিজিটাল ম্যারাথন। ফুল ম্যারাথনে (৪২.১৯৫ কি.মি.) ফ্রান্স, ফোনিয়া, ইথিওপিয়া, বাহরাইন, বেলারুশ, ইউক্রেনে, মরক্কো, ভারত, মালদ্বীপ, নেপাল ও পাকিস্তানসহ দেশী বিদেশী ১০০ জন দৌড়বিদ অংশ নেন। হাফ ম্যারাথনে (২১.০৯৭ কি.মি.) ১০০ জন দেশীয় দৌড়বিদ অংশগ্রহণ করেছেন। এছাড়া মুজিবর্ষে “ডিজিটাল বাংলাদেশে ডিজিটাল ম্যারাথন” – শ্লোগানকে প্রতিপাদ্য হিসেবে ৫ কি.মি. ও ১০ কি.মি. ডিজিটাল ম্যারাথন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ডিজিটাল ম্যারাথন চলবে ১০ই জানুয়ারিতে শুরু হয়ে ৭ মার্চ পর্যন্ত।

BSMDM- – ২০২১ অ্যাপ ব্যবহার করে এ ডিজিটাল ম্যারাথন অংশ নেয়া যাচ্ছে। দেশ ব্যাপি প্রায় ১০ লক্ষ লোক এ ম্যারাথন অংশ নেবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিভিন্ন দেশেও এ ম্যারাথনের আয়োজন করা হচ্ছে।

কুমিল্লা সেনানিবাসে ডিজিটাল ম্যারাথনে অংশগ্রহণকৃতদের একাংশ:
ম্যারাথন শহরের যুদ্ধ জয়ের স্মরণে ১৮৯৬ সালে প্রথম গ্রীস ম্যারাথন নামে দূর পাষ্ফার দৌড় অর্ন্তভুক্তির পর দেশে দেশে বিশ্ববাসীর কাছে তা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে শারীরিকভাবে দক্ষ ও মানসিক শক্তিতে দৃঢ় ব্যক্তি মাত্রেই ম্যারাথন একটি প্রিয় অংশগ্রহণমূলক কর্মকান্ড। এটি শুধু মাত্র নিছক ক্রীড়া ইভেন্টই নয়; এর রয়েছে জাতীয়, সামাজিক ও ব্যক্তি পর্যায়ে অনুপ্রেরণা ও প্রভাব। যথাঃ-

জাতীয়ঃ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন- ২০২১ এ ফ্রা›স, ইথিওপিয়া, মরষ্কো, মালদ্বীপ, বাহরাইন, বেলারুশ, ইউক্রেনে, ভারত ও পাকিস্তানসহ দেশ বিদেশের ম্যারাথনারগণ অংশ নেয়। এ উদ্যোগ শুধু বাংলাদেশেই নয়; দেশের বাইরেও বিভিন্ন দেশে এ আয়োজন করা হচ্ছে। এতে বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, উন্নতি ও সমৃদ্ধির বার্তাগুলো আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে পরিচিত পাবে এবং দেশের আরো মুখোজ্জল হবে।

সামাজিকঃ
বন্ধুত্ব ও উদ্দীপনাঃ ম্যারাথনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে একে অপরের সাথে সদ্ভাব, বন্ধুতা, মানবিক ও দৈহিক সুস্বাস্থ্যের সম্পর্কগুলো দৃঢ়তর হয়। স্বাস্থ্যকর কাজে কিশোর, তরুণ ও পেীঢ় সব বয়স ও শ্রেণির পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়।

ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সাথে পরিচিতিঃ এই ইভেন্টের মাধ্যমে ম্যারাথন এবং আয়োজনের সাথে সংশ্লিষ্ট ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সাথে যেমন পরিচয় ঘটে, তেমনি অংশগ্রহণকারীদের সম্পর্কে জানার মাধ্যমে আলোকিত ভবিষ্যতের দিকে অগ্রসর হওয়া এবং সাহসের সাথে পথ চলতে উৎসাহ যোগায়।

সামাজিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নঃ ম্যারাথনে অংশগ্রহণকারী এবং অন্যান্যদের মধ্যে দৈহিক ও সামাজিক স্বাস্থ্যের উন্নয়ন এবং সচেতনতাসহ সুস্বাস্থ্যের প্রতি উৎসাহ সৃষ্টি করে।

ব্যক্তিগতঃ
আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধিঃ ম্যারাথনের মতো দূর পাষ্ফার বিভিন্ন মাত্রার দৌড়ে অংশগ্রহনে দৈহিক ও মানসিকভাবে আত্মবিশ্বাসী হয়ে গড়ে উঠার সুযোগ ঘটে।

ব্যক্তি স্বাস্থ্যের উন্নতিঃ এ কর্মকান্ড দেহের প্রধাণ অংগসমূহ যথাঃ হƒদপিন্ড, ফুসফুস, পেশী, রক্ত চলাচল, অস্থিসন্ধি সমূহের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

লক্ষে পৌছাঁর দৃঢ়তাঃ যে কোন সাহসী কর্মকান্ড মানুষকে তার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যে পৌছাঁতে উদ্দীপ্ত করে এবং ধৈর্য্য ও সহ্য ক্ষমতার বৃদ্ধি ঘটায়।

শারীরবৃত্তিয় কার্যক্রমের ক্ষমতা বৃদ্ধিঃ ম্যারাথনের মতো শারীরিক কর্মকান্ড দেহের প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। শরীরের শ্বেতকণিকার সংখ্যা বাড়ায়, বিপাক ক্রিয়ার হার বাড়িয়ে শরীরের অন্যান্য তন্ত্রগুলোকে অধিক কার্যক্ষম করে তোলে।

কোভিড কো-মর্বিডিটি নিয়ন্ত্রণে ভূমিকাঃ ম্যারাথনে অংশগ্রহনকারীগণ সাধারণভাবে শারীরিকভাবে দক্ষ থাকতে সচেষ্ট থাকে। ওজন, রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ও কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে কোভিড- ১৯ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

ম্যারাথন যেমন আমাদেরকে ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সাথে পরিচয় ঘটায়; তেমনি সুস্থ সমাজ ও মানুষ বিনিমানে সহায়তা করে। ১০ই জানুয়ারি ১৯৭২ তারিখে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন উপলক্ষ্যে মুজিব বর্ষে এ আয়োজন নিঃসন্দেহে দেশের বর্তমান প্রজন্মকে আমাদের বিজয় ও স্বাধীনতার ইতিহাস সম্পর্কে আরো গভীরভাবে জানতে ও উপলদ্ধি করতে সাহায্য করবে। আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলেও বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা এবং কৃষ্টি সম্পর্কে পরিচিতি ঘটাবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, সশস্ত্রবাহিনী এবং সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান এ ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগের জন্য প্রশংসার দাবীদার।

পরিশেষে, ঘুমহীন ৮০ ঘন্টা ৪৪ মিনিট টানা ৫৬০ কি.মি. দৌড়ে খ্যাত এবং এক নাগাড়ে ৫০ দিনে আমেরিকার ৫০ টি ম্যারাথনে অংশগ্রহনকারী বিশ্ব রেকর্ডকৃত “আল্ট্রা ম্যারাথন ম্যান” হিসেবে পরিচিত দৌড়বিদ ডিন কারনাফেযের একটি বিখ্যাত উক্তি দিয়ে শেষ করতে চাই, তিনি এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, “আমি দৌড়াই, কেননা আমার পদচিহ্ন বিবর্ণ হতে হতে আমি হয়তো গুটি কয়েক মানুষকে অনুপ্রাণিত করে যেতে পারবো, যারা সহজ পথ এড়িয়ে ঝুঁকিপূর্ন ট্রেইল দিয়ে ছুটবে, পায়ের পর পা ফেলে আমার মত একই গন্তব্যে পৌছাঁবে। আমি দৌড়াই, কেননা এটি সবসময় আমাকে ঠিক ঐখানটায় পৌঁছে দেয়, যেখানে আমি যেতে চাই।”

ফেইডিপ্পিডেস ম্যারাথন যুদ্ধে জয়ের পর বিজয় বার্তা নানিকাক্যাম্যান বা “আমরা বিজয় পেয়েছি” গ্রীসের রাজধানী এথেন্সে পৌঁছে দিয়েছিলেন। আমরা বলতে চাই, বাংলাদেশ বিজয় পেয়েছে, এখন সময় ম্যারাথনের ন্যায় শক্তি ও সাহসের সাথে উন্নতি ও সমৃদ্ধির পথে এ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া।

সূত্রঃ বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও ইন্টারনেট ।

আর পড়তে পারেন