সোমবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বই আলোচনা : নিসর্গ মেরাজ চৌধুরীর ‘মাৎস্যন্যায়’

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২২, ২০২০
news-image

মোঃ সামিউল ইসলাম জিসান:

“মাৎস্যন্যায়” শব্দটি শোনেননি কিংবা এর ব্যাপারে কিছুই পড়েননি এমন মানুষ হয়তো খুঁজে পাওয়া কিছুটা দুষ্কর। পড়াশোনার বদৌলতে ” মাৎস্যন্যায়” এর নাম আমরা কমবেশি অনেকেই শুনেছি এবং এই ব্যাপারে পড়েছিও কিছুটা। কিন্তু কাঠখোট্টা লেখাগুলোতে মনযোগ ধরে রাখা যেমন কষ্ট হয়ে যায় বা তেমনি জেগে উঠে কিছুটা বিরক্তিও।

সহজভাবে বললে “মাৎস্যন্যায়” নির্দেশ করে এমন এক সময়কে যখন ভারত-বাংলার ইতিহাসের নির্দিষ্ট এক অংশ ছিলো অরাজকতা,হিংস্রতা আর দূর্বলের উপর সবলের অত্যাচারে ভরা। যে অবস্থা স্থায়ী ছিলো সপ্তম এবং অষ্টম শতক জুড়ে।

নিসর্গ মেরাজ চৌধুরির লেখা এ বইটি ইতিহাস আশ্রিত হলেও পুরোপুরি ইতিহাস বা ঐতিহাসিক বই একে বলা যায়না। বইটির ঘটনা শুরু হয় জ্ঞানের অন্বেষণে বর্তমান কুমিল্লার চান্দিনার কৈলাইন গ্রামের রাজবংশ ত্যাগ করে জ্ঞানের পিপাসায় কাতর হয়ে পথে বেরিয়ে পরা দান্তে ভদ্র এর জীবনাবস্থার বর্ণনা দিয়ে৷ ফুটে উঠে এই দান্ত ভদ্র থেকে “মহাজ্ঞানী” উপাধিধারক পন্ডিত শীল ভদ্র হয়ে উঠার গল্প। যিনি তৎকালীন বিখ্যাত বিদ্যাপিঠ “নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়” এ পাঠদান করা ১০০ টি বিষয়েই ছিলেন সমানভাবে দক্ষ।

একদিকে যেমন বইটিতে ছাপ আছে জ্ঞানের আলো ছড়ানো নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঠিক তেমনি বইটির অপরদিক আলোকপাত করে ইতিহাসের তৎকালীন যুদ্ধবিগ্রহ, রাজবংশের পট পরিবর্তনসহ নানা কুটিলতার দিকে। ইতিহাসের পাতায় বিখ্যাত এক ব্যক্তি চীনা পরিব্রাজক হিউ এন সাং এর ব্যাপারেও উঠে এসেছে বেশকিছু তথ্য। নালন্দার আচার্য শীলভদ্রের মৃত্যুর কয়েক বছর পর কনৌজের মহারাজ হর্ষবর্ধণ পরোলোক গমন করেন। উত্তরসুরীর অভাবে এক বিশাল রাজ্য ভেঙে বিভক্ত হয়ে যায় ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র খন্ডে । রাজা হর্ষের মন্ত্রিদের একেকজন নিজেদের রাজা ঘোষণা দিয়ে ছোট ছোট রাজ্যে বিভক্ত হয়ে পড়েন। একের পর এক পট পরিবর্তনে বাংলা, গৌড় ও সমতটের গৌরবে ভাটা পরে যায়। একজন দীর্ঘস্থায়ী মহারাজার অভাব ও পাশাপাশি রাজ্যগুলোর মধ্যে বন্ধুত্ব, ঐক্যবদ্ধতার অভাব প্রজাদের মধ্যেও সেচ্ছাচারিতা, প্রতিহিংসা, লুটতরাজ ও দুর্বলের উপর সবলের অত্যাচার বাড়তেই থাকে। শাসনকারী না থাকার ফলে সৃষ্টি হয় অন্ধকার এক সময়ের। ধর্মপাল,হর্ষবর্ধন,শশাঙ্কসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক চরিত্রের ইতিহাস তুলে ধরার সাথেসাথে শীলভদ্রের মৃত্যুর পরপরই কিভাবে সময়ের দ্রুত পরিবর্তনে সুন্দর গোছানো সে বাংলা ধীরেধীরে এগিয়ে যায় সে ভয়াবহ অবস্থার দিকে তা বর্ণনা করা হয়েছে বইটিতে সাবলীল ভাষায়।

বইটি ব্যক্তিগতভাবেভাবে আমাকে আকর্ষণ করেছে এবং ভালো লাগার কারণ হয়েছে তার সাবলীল ভাষা ও সহজ বর্ণনার কারণে। এর ফলে যেকোনো বয়সের পাঠকই বইটি তৃপ্তির সহিত পড়তে পারবেন। যদিও তথ্যসূত্র হিসেবে ব্যবহৃত বইগুলো নিয়ে শতশত বছর ধরেই চালু রয়েছে তর্ক-বিতর্ক। তবে সবমিলিয়ে বইটি সুখপাঠ্য এবং “মাৎস্যনায়” এর ব্যাপারে জানার পথে আরও আগ্রহ তৈরীর জন্যে আদর্শ।

সৃষ্টি নিয়ে কথা বলার পর শেষ করছি সৃষ্টির স্রষ্টার ব্যাপারে বলে। বইটির লেখক নিসর্গ মেরাজ চৌধুরী বর্তমানে লেখকের পাশাপাশি একজন চিকিৎসকও। স্কুলজীবন থেকেই যুক্ত ছিলেন লেখালেখির সাথে যার কিছুকিছু জায়গা করে নিয়েছে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকাতেও। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা, বিতর্ক, নাট্যভিনয় ও আবৃত্তির মাঠেও করেছেন বিচরণ৷ পঞ্চম এ বইটি প্রকাশের আগে সাদা কাক কালো পানি, মেঘ ও মেঘশ্রী, কৃষ্ণ বেলারজল, সেই আগুন সেই আলো তার অন্যান্য প্রকাশিত বই।

লেখক:

মোঃ সামিউল ইসলাম জিসান
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়,দ্বিতীয় বর্ষ
ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগ

আর পড়তে পারেন