রবিবার, ১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ফরিদা বেগমের জীবন কাটে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১০, ২০২১
news-image

 

মোঃ রুহুল আমিনঃ

মানুষ কত বিচিত্র, আর কতইনা বিচিত্রেভরা মানুষের জীবন। এমনই একজন মানুষের জীবনের গল্প বলবো আজ।তিনি হচ্ছে ফরিদা বেগম(৪০)। কিন্তু দেখতে মনে হয় তার বয়স ৬০ বছরের বেশি। অনাহারে-অধ্যাহারে তার সারা জীবন কেটেছে। তাই ৪০ বছরের ফরিদাকে আজ দেখতে মনে হয় ৬০ বছরের বৃদ্ধা। তার জন্ম বরিশালের মুলাদী উপজেলার কাজীরচর গ্রামে। জন্মের কয়েক বছরের মধ্যে বাবা হারান ফরিদা বেগম। মা অন্যের বাড়িতে কাজ করে যা পেতেন তাদিয়ে কোন রকমে চলতো তাদের সংসার।সব সময় অভাব অনটন লেগেই থাকতো তাদের সংসারে।

সেই ছোট বয়সেই ফরিদা মনে মনে ভাবতেন মা’কে কিভাবে সাহায্য করা যায়। তাই মাত্র সাত বছর বয়সে ফরিদা পাড়ি জমান ঢাকায়। ঢাকায় এসে উঠলেন সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের পাশে বুলবুলি মাঠের সরকারি পরিত্যাক্ত জায়গায় গড়ে উঠা বস্তিতে। শুরু হয় তার জীবন সংগ্রাম। এত কম বয়সী একজন মানুষ তার উপর তিনি মেয়ে শিশু! সব সময়ই ভয় তাড়া করতো তাকে। এবয়সে কখনো বাসা-বাড়ি আবার কখনো পথে পথে সারাদিন মানুষের ব্যবহৃত ফেলে দেয়া পানির বোতল, কাগজ কুড়িয়ে স্থানীয় ভাঙ্গারি দোকানে বিক্রি করে চলতো তার জীবন।

এক সময় সদর ঘাটে পরিচয় হয় মাসুদ আলমের সাথে। মাসুদ আলমের বাড়ি চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার গাবদেরগাঁও গ্রামে। সে অনেকটা ভবঘুরে মানুষ।পরিচয় থেকে ভালোবাসা এবং শেষে বিয়ে করেন তারা। বিয়ের পরও স্বামী-স্ত্রী উভয়ে থাকতেন ফরিদা বেগম যে বস্তিতে থাকতেন সেখানেই। এই বস্তিতেই ফরিদার ঘরে জন্ম নেয় ২ ছেলে এক মেয়ে। ২০০৮ সালে সিটি কর্পোরেশন ভেঙ্গে দেয় বুলবুলী বস্তি। বস্তি ভেঙ্গে দেয়ার পর থেকে বুলবুলী থাকেন সদরঘাটের পল্টুনের বাদাম তলী প্রান্তে খোলা আকাশের নীচে। সেই থেকেই খোলা আকাশের নীচে কাটছে ফরিদার জীবন। ইতিমধ্যে স্বামী মাসুদ মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ায় তাকে ফরিদগঞ্জের স্বামীর বাড়িতে রেখে এসেছেন ফরিদা। তার এক মেয়ে ও ২ ছেলে থাকেন বরিশালে তার মায়ের কাছে। ফরিদা থাকেন ঢাকার সদরঘাটের পল্টুনে।

২৯ মার্চ ঢাকায় এসেছি, আর ৪ এপ্রিলেরে মধ্যে নিজের ব্যক্তিগত ও দাপ্তরিক কাজ শেষ করতে না পারায় বাড়ি ফিরা হয়নি আমার। এরই মধ্যে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের সংক্রমণ অনেক বৃদ্ধি পাওয়ায় আমাদের দেশের সরকার মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি অনেক গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় নিয়ে সারাদেশে ৫-১১ এপ্রিল পর্যন্ত দ্বিতীয় বারেরমত লক ডাউন ঘোষণা করেন। যেহেতু বাড়ি যাওয়া হয়নি তাই ৫ এপ্রিল সকাল সাতটায় সদরঘাটের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হই। আমি আমার প্রয়োজনে যেখানে যাইনা কেন আশে-পাশের প্রকৃতি ও পরিবেশের প্রচুর ছবি তুলি। তাছাড়া ছবি তোলা আমার শখও বটে। আর আমার এই শখের জায়গাটা নিয়ে আমার বন্ধুদের কারো কারো অনেক আপত্তি আছে। অনেক ঘনিষ্ঠজন এজন্য তিরষ্কার করতেও ছাড়েন না।

সেযাকগে, আমরা ফিরে আসি ফরিদা বেগমের প্রসংগে। ৫ এপ্রিল সকাল ৭টায় মতিঝিল শিল্প ব্যাংক ভবনের সামনে থেকে রিকশায় চড়ে যখন আমি সদরঘাট পৌঁছলাম তখন সময় সকাল সাড়ে সাতটা বাজে। আমি সদরঘাটে প্রবেশের অগে বেশ কিছু ছবি তুলে ঘাটের লঞ্চ ভিড়ানোর জায়গায় চলে গেলাম। বলে রাখা ভালো আগেরদিন লক ডাউন ঘোষণা করায় বাংলাদেশের সাথে দূরপাল্লার সকল বাস-লঞ্চ বন্ধ থাকার কথা রয়েছে। কিন্তু নদীপথে যারা আগের দিন দিনের বেলায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে জরুরী প্রয়োজনে যাত্রা শুরু করেছেন ঐসব লোকজন এইদিন সকালে তাদের নিয়ে সদর ঘাটে লঞ্চ বিড়ছে আর যাত্রীরা লঞ্চ থেকে নেমে গেইট দিয়ে বের হয়ে যাচ্ছেন একের পর এক। কিন্তু কেউ সদরঘাটের ভিতরে প্রবেশ করছেন না।বেলা সাড়ে সাতটা থেকে সাড়ে নয়টা পর্যন্ত সদর ঘাটের সব কয়টা লঞ্চঘাট আমি ঘুরে ঘুরে দেখছি আর ছবি তুলছি। এসময় ঘাট কর্তৃপক্ষ বারবার ঘোষণা দিচ্ছেন কোন লঞ্চ ঘাটে দাঁড় করে রাখা যাবে না। তাই যাত্রী নিয়ে আসা লঞ্চগুলো যাত্রী নামিয়ে দিয়ে এক এক করে ঘাট ত্যাগ করছে। এক সময় পুরা সদরঘাটে ভিড়ানো লঞ্চ সরিয়ে নেয়ায় ফাঁকা হয়ে পড়ে সদরঘাট। আমিও ফাঁকা ঘাটের কিছু ছবি তুলে বাদামতলী প্রান্ত দিয়ে বের হওয়ার পথে দেখি কয়েকটি ৯-১১ বছর বয়সী শিশু খালী পানির বোতল ধোঁয়ামোছা করে ১০-১২ টির এক একটি আটি বাঁধছে। জানতে চাইলাম এগুলি দিয়ে কি করবে? শিশুদের একজন বললো পানি পুরামু তারপর লঞ্চে বিক্রি করমু! জানতে চাইলাম এগুলোর পানি কোথায় থেকে আন? উত্তরে জানালো পাশে কল আছে ঐ কল থেকে পানি ভরে বিক্রি করি আমরা! আবারও জানতে চাইলাম এই পানি মানুষ কিনে? উত্তর দিলো হ স্যার কিনে! আমরা দৈনিক এক’শর বেশি পানির বোতল বিক্রি করি! এসময় পাশে বসে থাকা এক মহিলা জবাব দিলো স্যার আমার কাছে এরহমের ৭-৮জন শিশু থাকে। এদের সবার পেটের আহার যোগাই এই পানি বিক্রি করে!এবার আমার কাছে বিষয়টি অনেক চমকপ্রদ ও বিস্ময়ের বলে মনে হলো। জানতে চাইলাম আপনি কে? কি আপনার পরিচয়? সে জানালো আমার নাম ফরিদা বেগম, ঢাকা শহরে আমার কোন ঘর বাড়ি নেই। এখানেই থাকি আমি। এই শিশুরাই আমার সন্তান। ওরা আমার সাথে থাকে!জানতে চাইলাম এদের কোথায় থেকে আনলেন? জবাবে বললো আমি তাদের কাউকে আনিনি ওরাই এসেছে!

জানতে চাইলাম ওরা কিভাবে আসলো? ফরিদা উত্তর দিলো দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসব শিশুরা কেউ রাগ করে এসেছে, আবার কেউ বাবা-মার সাথে ঢাকায় আসার পথে হারিয়ে গিয়ে এক সময় আমার এখানে এসে জুটেছে স্যার! বললো খুব বজ্জাত এই শিশুগুলো! কয়দিন থাকি একদিন না বইলাই চলে যায়! কোথায় যায় এমন প্রশ্নের উত্তরে ফরিদা জানালো কেউ বাড়ি আবার কেউবা অন্য কোথাও চইলা যায়। বললাম ওদেরতো এখন লেখা-পড়া করার বয়স? উত্তরে জানালো হ, স্যার ওদেরকে পড়া-লেখা করাইতো। কিন্তু কিভাবে পড়ো-লেখা করে ওরা? উত্তরে সে জানালো কয়েকটা ডাঙ্গর বড় লোকের পোলা ঘাটের সামনে উপরে একটা স্কুল করসে ঐহানে ওরা প্রতিদিন ২ ঘন্টা হড়ে। এরপর ওরা লঞ্চে লঞ্চে এই খালি বোতলে পানি ভইরা বিক্রি করে। বোতলের পানি বিক্রির টাকা দিয়া চলে ওদের খাওন-দাওয়েন খরচ।

ফরিদার সাথে এখন ছিন্নমূল ৮টি শিশু বসবাস করে। এরাই এখন তার সদরঘাটের পল্টুনের পরিবারের সদস্য। ফরিদার ছেলে-মেয়েরা থাকেন তার মায়ের কাছে। এসময় কথা বলতে বলতে খেয়াল করলাম ফরিদার সামনে ২৫ কেজি চাউল, তিন কেজি আলু, দুই কেজি পেয়াজ, দুই কেজি ছোলা, এক কেজি লবন, দুই কেজি চিনি ও এক কেজি খেজুর সহ ইফতার সামগ্রীর গোছাচ্ছেন। জানতে চাইলাম এইগুলি কে দিয়েছে? জবাবে বললেন, স্থানীয় একটি বে-সরকারি সংস্থা আগামি রমজান মাস উপলক্ষে এই সামগ্রীগুলি দিয়েছে আমার পরিবারের জন্য। এগুলি এখন বাড়িতে তার ছেলে-মেয়েদের জন্য পাঠাবেন তিনি। জানতে চাইলাম তিনি সরকারের সামাজিক নিরাপত্তার বেষ্টনীর আওতায় কোন ‍সুযোগ-সুবিধা পেয়েছেন কি-না? ফরিদা জানালেন তার বাবার গ্রামে দুই শতক জায়গা সহ একটি ঘর বরাদ্দ পেয়েছেন তিনি। কিন্তু যে ঠিকাদার ঐ ঘর নিমার্ণের জন্য কাজ পেয়েছে তিনি না-কি টাকা মেরে দিয়ে চলে যাওয়ায় এখনও ঘর পাননি বলে জানান।ফরিদার সাথে কথার এক পর্যায়ে জানতে চাইলাম দেশে গিয়ে কিছু একটা করলেইতো পারেন? সে জবাব দিলো বাড়িতে কোন জমি-জমা নাই। তাছাড়া গ্রামে গিয়ে কি করবেন তিনি কোন কাজতো তার জানা নাই। ঢাকার সদরঘাট এলাকায় হাত পেতে যা পান তাদিয়ে তার খরচের পর যা থাকে তা বাড়িতে ছেলে-মেয়েদের জন্য পাঠান। গ্রামে গিয়ে কোন কাজ না শিখায় না খেয়ে মরতে হবে তার।

বললাম, তারপরও তো পরিবারের সাথে থাকা যাবে? ফরিদা একগাল হেসে বললো কেউ কোন ব্যবস্থা করে দিলে আমি বাড়ি চলে যাবো। তার এই কথা শুনে মনে মনে ভাবলাম ফরিদারমত কত মানুষ সারা দেশে বিভিন্ন লঞ্চঘাটে, বাস টার্মিনালে হাট-বাজারে ঘুরে বেড়ায় এদের সবার দায়িত্ব একা সরকারের পক্ষে নেয়া কি আদৌ সম্ভব? এজন্য সামর্থ্যবানদের এগিয়ে আসা উচিত। যে কেউ চাইলে ফরিদার দেয়া মোবাইল নম্বরে কথা বলতে পারেন। ফরিদার মোবাইল নম্বরঃ ০১৭৭৮৩৫৭৪২০।

আর পড়তে পারেন