সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

প্লেন চালিয়ে ফ্রান্সের কান চলচ্চিত্র উৎসবে গেলেন কুমিল্লার মেয়ে প্রিয়তি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৯, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট:

আয়ারল্যান্ডপ্রবাসী বাংলাদেশি মডেল ও অভিনেত্রী মাকসুদা আকতার প্রিয়তি কিছুদিন আগে ডাবলিন থেকে প্লেন চালিয়ে গিয়েছিলেন ফ্রান্সের কানে। তখন সেখানে চলছিল ৭৪তম কান চলচ্চিত্র উৎসব।  প্রিয়তি কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার মেয়ে।

এ সময়ে সমুদ্রপারের এই শহরে নানা রকম আয়োজন থাকে। তারই একটা হলো ব্রিটিশ সাময়িকী ইন্টেগ্রিটির ‘দ্য ২০২১ কানস ডিজাইনার শোকেস অ্যান্ড অ্যাওয়ার্ডস’। এ আয়োজনে ‘টপ মডেল’ পুরস্কার পেয়েছেন প্রিয়তি। তাই তাঁর কানযাত্রা। পুরস্কার নিয়ে প্রিয়তি আবার প্লেন চালিয়ে ফিরেও গেছেন ডাবলিনে।

মিস আয়ারল্যান্ড খেতাব জেতার পর ২০১৪ সালের ১৬ আগস্ট প্রিয়তির একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয় প্রথম আলোর ছুটির দিনে ক্রোড়পত্রে। যেখানে তিনি বলেছিলেন, আমার দুটো স্বপ্ন। এক. একজন সফল বৈমানিক এবং দুই. টপ মডেল হওয়া।

প্রিয়তি প্রথম স্বপ্ন ছুঁয়েছেন বেশ কয়েক বছর আগেই। আইরিশ এক ব্যবসায়ীর ব্যক্তিগত বিমানের অন্যতম পাইলট হিসেবে কর্মরত আছেন। সে সূত্রেই প্লেন চালিয়ে কানে যাওয়া। এবার দ্বিতীয় স্বপ্নও ছুঁয়ে ফেললেন। কানে যুক্তরাজ্যের ইন্টেগ্রিটি ম্যাগাজিনের এক আয়োজনে টপ মডেল পুরস্কার জিতলেন প্রিয়তি।

১০ ও ১১ বছর বয়সী দুই সন্তানের মা হয়েও এত সব কীভাবে সামলাচ্ছেন? ঢাকা থেকে হোয়াটসঅ্যাপে এমন প্রশ্ন করার পর ডাবলিনে থাকা প্রিয়তি একচোট হেসে নিলেন। বললেন, ‘আসলে যেকোনো কাজ মনোযোগ দিয়ে করতে পারলেই সাফল্য আসে। আমি আমার কাজের জায়গায় সৎ এবং পরিশ্রমী। যখন যে ভূমিকায় থাকি, সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করি।’

এবার কানে গিয়েও নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন প্রিয়তি। বিখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার গ্রেস মুনের একটি শোতে হাঁটার আমন্ত্রণেই এবার ইন্টেগ্রিটি ম্যাগাজিনের আয়োজনে যোগ দেওয়া। ফ্যাশন শোতে হাঁটা ছাড়াও সেখানে বেশ কয়েকটি সৌন্দর্যপণ্যের ফটোশুটে অংশ নেন। প্রিয়তি বলেন, ‘গ্রেস মুনের আমন্ত্রণ পাই উৎসব শুরুর তিন সপ্তাহ আগে। সাধারণত এত বড় আয়োজনে যাওয়ার আগে কয়েক মাসের প্রস্তুতি দরকার হয়। সেটা শরীর ও মনকে ফিট রাখতেই। আমার হাতে সময় কম ছিল, তারপরও বিখ্যাত ব্র্যান্ডের পোশাকগুলো ঠিকঠাক ফিট করাতে শরীরকে বশে আনতে হয়েছে।’

প্রায় নিয়মিত শরীরচর্চা করেন প্রিয়তি। তিনি বললেন, ‘তারপরও শরীরের ওজন একই জায়গায় ধরে রাখা কঠিন কাজ। হরমোনাল পরিবর্তনের কারণেও শারীরিক কাঠামোতে পরিবর্তন আসে। তাই খাবারের পাশাপাশি শরীরচর্চার বিকল্প নেই।’

প্রতিদিন সকালে উঠেই এক গ্লাস পানি পান করেন প্রিয়তি। এরপর ৪০ থেকে ৬০ মিনিট পর্যন্ত নানা ধরনের শরীরচর্চা করেন। বাসায় মাঝেমধ্যে যোগব্যায়াম করেন। ব্যায়ামের এক পর্যায়ে ২০-৩০ মিনিট দৌড়ান। শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে মানসিক স্বাস্থ্যও গুরুত্বপূর্ণ। তাই মনকে ফুরফুরে রাখতে পছন্দের কাজগুলো বেছে বেছে করেন।

প্রিয়তি খেতে ভালোবাসেন কেক ও আইসক্রিম। তাই বলে প্রতিদিন এসব খাবার খান না। সকালে পানি পান করে ব্যায়ামের পর ফ্রেশ হয়ে নাশতা করতে বসেন। দুটি ডিম, একটি আপেল আর এক মগ কফি—একুটুই বরাদ্দ সকালের জন্য। দুপুরে খুব বেশি ভারী খাবার রাখেন না টেবিলে। সালাদের সঙ্গে মাছ বা মাংসের একটা পদ থাকে। কোনো কোনো দিন বিকেলে কফির সঙ্গে একটা ফল খান। তবে রাতের খাবার তুলনামুলক কিছুটা ভারী হয় বলে জানালেন। তবে সেখানেও খুব একটা কার্ব থাকে না। ভাত বা রুটি এড়িয়ে চলেন সচেতনভাবে। তার বদলে গরু, মুরগি ও মাছের নানা পদ দিয়ে রাতের খাবার সারেন। প্রিয়তি বলেন, ‘রাতের খাবার সাধারণত ছয়টা–সাতটার মধ্যেই খেয়ে ফেলি।’

বিদেশ–বিভুঁইয়ে দুই সন্তানকে একাই বড় করছেন প্রিয়তি। বিমান চালনা ও মডেলিংয়ের মতো ব্যস্ত পেশা সামলেও দিন শেষে সন্তানদের কাছে ফিরে তিনি হয়ে ওঠেন পুরোদস্তুর মা। ছেলে আবরাজ ও মেয়ে মৌমিরা মাকে খুব ভালো বোঝে। প্রিয়তিও সময় করে সন্তানদের নিয়ে বাইরে যান। কোভিডের কারণে লকডাউনে থাকা সময়ের বেশির ভাগ কেটেছে সন্তানদের সঙ্গেই। প্রিয়তি বলেন, ‘এখানে আমাকে একা হাতে সবকিছু সামলাতে হয়। আমার দুই সন্তানই যথেষ্ট পরিণত। ওদেরকে সামলাতে তাই কোনো বাড়তি ঝামেলা হয় না। এমনকি ওরা দিনের মধ্যে যে এক-আধঘণ্টা প্রযুক্তি ব্যবহারের সুযোগ পায়, সেটাও ওদের অর্জন করে নিতে হয়।’

সেটা আবার কীভাবে? কৌতূহলের জবাবে বললেন, ‘ধরুন, ওরা ৩০ মিনিট মোবাইল ফোন চালাবে; তার আগে ওদের ঘরের এক বা একাধিক কাজ করে সেই সময়টুকু অর্জন করে নিতে হয়।’

অসুস্থ থাকলেও বাজার করা বা রান্নাবান্না—সবটাই নিজে করেন প্রিয়তি। আর সেটা সন্তানেরাও বোঝে। তাই মায়ের কাজে তারা সাহায্যই বেশি করে। পড়াশোনা ছাড়াও সন্তানদের পিয়ানো, কারাতে, জিমন্যাস্টিকস শেখাসহ আরও কিছু ক্লাস থাকে। সেসবে সন্তানদের উৎসাহ দেন প্রিয়তি।

এ ছাড়া অবসরে নিয়মিত লেখার চেষ্টাও করেন তিনি। এরই মধ্যে তিনটি বই প্রকাশ করেছেন। মনের খোরাক জোগাতে বাংলায় লেখার অভ্যাসটা ধরে রাখার প্রত্যয় তাঁর আছে। অবসরে নানা রকম বই পড়তে আর ছবি তুলতে ভালোবাসেন।

যেকোনো সাফল্য ধরে রাখাই বড় চ্যালেঞ্জ, প্রিয়তি সেটা মনে রেখেই এগিয়ে চলেছেন। তাই শেষ প্রশ্ন—যে দুটি স্বপ্ন দেখেছিলেন, সেগুলো কি সত্যি হলো? আপনার গন্তব্য কোন দিকে? প্রিয়তি হাসলেন, ‘দুটি লক্ষ্য পূরণ হওয়ার পর আমি নতুন স্বপ্ন ঠিক করেছি। সফল অভিনেত্রী হতে চাই। যে সাফল্য আমাকে অস্কারের মঞ্চে দাঁড় করাবে। হল ভর্তি করতালির মধ্য দিয়ে আমি মঞ্চে উঠব আর আমার সঙ্গে মঞ্চে উঠবে গোটা বাংলাদেশ।’

সূত্র: প্র.আ.

আর পড়তে পারেন