মঙ্গলবার, ১৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

প্রশিক্ষন নিয়ে অর্থনৈতিক স্বাবলম্বী হওয়ার আহ্বান -উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৩, ২০১৭
news-image

 

মো. দ্বীন ইসলাম, মতলব উত্তর :
চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির (৭ম পর্ব) এর মৌলিক প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ।

৩ ডিসেম্বর দুপুরে উপজেলা পরিষদ মায়া বীরবিক্রম অডিটোরিয়ামে উপজেলা প্রশাসন ও যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের আয়োজনে এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে ২ বছর মেয়াদী নির্বাচিত যুবদের তিন মাস ব্যাপী মৌলিক প্রশিক্ষনের উদ্বোধন করা হয়। উক্ত কর্মসূচিতে নির্বাচিত হয়েছে ৫৭০ জন যুব পুরুষ এবং মহিলা প্রশিক্ষনে অংশ গ্রহন করতে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি মনজুর আহমদ তার বক্তব্যে বলেন- মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বার্থকতা এখানেই যে, তিনি এই কর্মসূচির মাধ্যমে একসাথে এতজন বেকার যুবদের বেকার ভাতার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। এ জন্য আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে শ্রদ্ধা জানাই। তিনি সবাইকে সঠিক ভাবে প্রশিক্ষন নিয়ে যার যার কাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেছেন এবং সত্যকে সত্য বলার সৎ সাহস রাখতে বলেছেন, এতে নিজেরা এবং দেশটা এগিয়ে যাবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- উপজেলা কৃষি অফিসার মো. সালাউদ্দিন, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা তারিক মাহমুদ হোসেন, ক্রেডিট সুপার ভাইজার মেজবাহ উদ্দিন, ওসমান গণি, শহিদুল ইসলাম।
উক্ত মৌলিক প্রশিক্ষণে উপজেলার ৫শ’ ৭০ জন এই প্রশিক্ষন গ্রহন করবেন। এতে প্রশিক্ষনার্থী প্রতিদিন ১শ’ টাকা করে ৩ মাস যাতায়াত বাবত ভাতা পাবেন। প্রশিক্ষণ শেষে যোগ্যতা অনুযায়ী অস্থায়ী ভিত্তিতে চাকরী ও ২ বৎসর প্রতি মাসে ৬ হাজার টাকা পাবেন প্রশিক্ষার্থীগণ উক্ত ৬ হাজার টাকার মধ্যে ৪ হাজার টাকা উত্তোলন করতে পারবেন এবং ২ হাজার টাকা সঞ্চয় হিসেবে জমা থাকবে।

বর্তমান সরকারের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উচ্চ মাধ্যমিক ও তদূর্ধ্ব পর্যায়ের শিক্ষায় শিক্ষিত আগ্রহী বেকার যুবক/যুব মহিলাদের জাতি গঠনমূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্তকরণের মাধ্যমে অস্থায়ী কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে ন্যাশনাল সার্ভিস সরকারের অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত একটি কর্মসূচি। ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির অনুমোদিত নীতিমালা অনুযায়ী শিক্ষিত বেকার যুবক/যুব মহিলাদের দশটি সুনির্দিষ্ট মডিউলে তিন মাস মেয়াদি মৌলিক প্রশিক্ষণ প্রদানের পর জাতি গঠনমূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্তকরণের মাধ্যমে অস্থায়ী কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হয়।

অস্থায়ী কর্মসংস্থান উপজেলা প্রশাসন, আইন শৃংখলা রক্ষা, স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা হাসপাতাল, ক্লিনিক, ব্যাংক ও বিভিন্ন সেবামূলক সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে সৃষ্টি করা হয়েছে। কর্মসূচির প্রশিক্ষণ ও অস্থায়ী সংযুক্তির অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে একজন যুবক/যুব মহিলা কর্ম-সমাপনান্তে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নির্মাণে সক্ষম হবেন।

আর পড়তে পারেন