মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা ৪৬ বছরেও মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি পায়নি খলিলুর রহমান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ৬, ২০১৮
news-image

জাকির হোসেন হাজারী:

স্বাধীনতার ৪৬বছরেও স্বীকৃতি পাননি কুমিল্লার তিতাস উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা মো. খলিলুর রহমান। ২০১২ সাল থেকে বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করে এবং স্বপক্ষে সহযোদ্ধাদের সাক্ষি ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র থাকা সত্বেও রহস্যজনক কারনেই তার নাম গেজেটে অর্ন্তভক্ত করা হয়নি। খলিলুর রহমান উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের মানিককান্দি গ্রামের মৃত কেরামত আলী বেপারীর ছেলে।

জানা যায়, ১৯৭১ সালে ছাত্র থাকাবস্থায় বঙ্গবন্ধুর ডাকে যখন সারা দেশের মুক্তিকামী মানুষ যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হয়। তখন ৬৪ জনের একটি টিমে ১৯৭১ সালের ১৪ জুন ভারতের ত্রিপুরা জেলার বক্স নগর থানার বক্সনগর ক্যাম্পের ২নম্বর সেক্টরের মেলাঘর সাব-সেক্টরে প্রশিক্ষণের জন্য যোগদান করেন মো. খলিলুর রহমান।

এরপর ভারতের ত্রিপুরার বাঘমারা ট্রেনিং সেন্টারে ১মাস যুদ্ধপ্রশিক্ষণ ও ২১ দিন অস্ত্রের প্রশিক্ষণ শেষে যুদ্ধকালীণ অধিনায়ক মেজর হায়দারের অধিনে প্লাটুন কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোবারক হোসেন সরকার ও রফিকুল ইসলাম সরকারের নেতৃত্বে সক্রিয়ভাবে মুক্তিযোদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন। যুদ্ধ শেষে ১৯৭২ সালের ২৫জানুয়ারী সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অস্ত্র জমা প্রদান করেন। খলিলুর রহমানের ব্যবহৃত অস্ত্র নাম্বার ছিলো থ্রি নট থ্রি রাইফেল নং ৩৩৫৯৩। যুদ্ধের স্বপক্ষে তৎকালিণ বক্স নগর-পদ্মনগর ক্যাম্প ইনচার্জ ও কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ এর প্রত্যয়ন পত্রও রয়েছে। সবশেষ ২৩ ডিসেম্বর ২০১২ইং তারিখে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় গেজেটে অন্তর্ভূক্তির জন্য আবেদন করা হলে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের আবেদনের ডিজি নং ১০৯২২ অনুযায়ী পরবর্তী সভায় (অর্থাৎ ১৯তম অধিবেশনে) উপস্থাপনের জন্য মন্ত্রনালয় নির্দেশনা দিলেও রহস্যজনক কারনে আজো মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি মিলেনী রণাঙ্গনের বীর মো. খলিলুর রহমানের।

মো. খলিলুর রহমান বলেন, দেশের জন্য যুদ্ধ করেছি, তখন কষ্ট লাগেনী। আজ স্বাধীনতা ৪৬বছর পর বিভিন্ন দপ্তরে বাচ্চাদের মত পরিক্ষা দিতে হচ্ছে আসলে আমি মুক্তিযোদ্ধা কি না? যখন এই প্রশ্নগুলো শুনি বুকটা ফেটে যায়! এই বলেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এরপর চোখ মুছতে মুছতে বলেন, বর্তমান সরকার স্বাধীনতার স্বপক্ষের সরকার। দেশমাতা মা জননী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমার একটাই চাওয়া থাকবে শেষ নিঃশ^াসের আগে শুধু মুক্তিযোদ্ধার স্বিকৃতিটুকু যেনো পাই! আর কথা বলতে পারলেন না! বাচ্চা মানুষের মত শুধু কাঁদলেন।
৭১ এর যুদ্ধকালীণ প্লাটুন কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোবারক হোসেন মাস্টার বলেন, খলিলুর রহমান আমার সাথেই যুদ্ধ করেছে এবং যুদ্ধ শেষে একসাথে অস্ত্রও জমা দিয়েছে। কিন্তু কি কারণে ওনাকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গেজেটে অর্ন্তভূক্ত করা হয়নি তা আমি বলতে পারবো না। তবে উনি দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন মন্ত্রনালয়ে গিয়ে হয়রানী হচ্ছে বলেও আক্ষেপ করে এই মুক্তিযোদ্ধা।

যুদ্ধকালিণ প্লাটুনকমান্ডার-২ বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, র্দীঘ ৯ মাস এক সাথে খেয়ে না খেয়ে আমরা একই সাথে যুদ্ধ করলাম। তিনি সকল কাগজপত্র দেখানোর পরও কেনো তাকে গেজেটে অন্তভূক্ত করা হয়নি তা কেবল রহস্যই। তিনি সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে বলেন। সরকার চাইলে একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার শেষ স্বপ্নটুকু পূরণ হতে পারে; আমার বিশ^াস দেশমাতা বিষয়টি আমলে নিবেন।

তিতাস উপজেলা আ’লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সাইদুর বলেন, ওনি নিঃসন্দেহে একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা। আমরা তাকে চিনি ও জানি। তিনি সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের দুষ্টি কামনা করে একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাকে তার ন্যায্য অধিকার দেয়ার দাবি জানান।

আর পড়তে পারেন