সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর সামনেই নিজেদের মধ্যে তর্কে জড়ালেন শাহজাহান-নাছিম-গোলাপ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১০, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

বৃহস্পতিবার সকালে দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায়  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সামনেই মাদারীপুরের তিন কেন্দ্রীয় নেতা প্রেসিডিয়াম সদস্য শাজাহান খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও প্রচার সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ তর্কে জড়ান। সভায় দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশনা দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। বৈঠকে উপস্থিত একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা  এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তৃণমূলে দলীয় নেতা-কর্মীদের ওপর এমপিদের কর্তৃত্বপরায়ণ মনোভাবে ক্ষুব্ধ দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা বলেন, তৃণমূলের দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা-কর্মীদের দূরে ঠেলে দেন। আবার সব কর্তৃত্ব নিতে কেউ কেউ উপজেলার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হয়ে যান। সবকিছু এমপিদের নিতে হবে কেন? দলের ওপর এমপিদের এমন খবরদারি চলবে না। দল চলবে নিজস্ব গতিতে। এমপি দলকে সহযোগিতা করবেন। কোনো বাড়াবাড়ি বরদাশত করা হবে না। কে কোথায় কী করছেন, আমার কাছে সব তথ্য আছে। সে বিবেচনায় আগামীতে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হবে।

বৈঠকসূত্র জানান, কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সাংগঠনিক সম্পাদকদের রিপোর্টে কমপক্ষে ২০-২৫টি জেলায় এমপিদের সঙ্গে নেতা-কর্মীদের দূরত্ব, কোন্দল-উপদল গঠন করার প্রসঙ্গ উঠে আসে। সম্প্রতি তৃণমূল থেকে আসা বেশ কিছু অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দলীয় সভানেত্রী বিষয়টি নিয়ে নেতাদের স্পষ্ট বার্তা দেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী এমপিদের আলাদা বলয় তৈরি না করার নির্দেশ দেন। সম্প্রতি বিভিন্ন জেলায় বিশৃঙ্খল অবস্থা তৈরি হয়েছে। দলীয় সভানেত্রীর কাছে এসব তথ্য আছে বলে তিনি জানান। অনেক এমপির বিরুদ্ধে এলাকার নেতারা প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত অভিযোগও করেছেন। বিভিন্ন সংস্থার প্রতিবেদনেও বিষয়টি উঠে এসেছে।

বৈঠকে নাটোর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুস এমপি ও সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল এমপির দ্বন্দ্ব নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়। দীর্ঘদিন দুই নেতা দুই মেরুতে অবস্থান করছেন। এর আগে সভাপতি আবদুল কুদ্দুস অভিযোগ করেছিলেন সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল তাকে নাটোর শহরে ঢুকতে দেন না। এ ছাড়া শিমুলের সঙ্গে জেলার অন্য এমপিদেরও সম্পর্ক ভালো নয় বলে বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামালের রিপোর্টে উঠে আসে। পাবনা জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপির একক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার বিষয়টিও আলোচনা হয়। একই ভাবে মাদারীপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিমুখী কোন্দলের বিষয়টিও গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা হয়। ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, মাদারীপুর কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতার জেলা। এখানেই কোন্দল বেশি। নবগঠিত উপজেলা ডাসারে জেলা আওয়ামী লীগ একটি আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে। এ কমিটিতে স্থানীয় এমপি ও দলের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপের লোক না থাকায় তিনি নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেন। দলীয় কোন্দল নিরসনে দলীয় প্রধানের হস্তক্ষেপ কামনা করেন মির্জা আজম। এ সময় দলের প্রচার সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ কোনো কমিটি দেননি বলে দলীয় প্রধানকে জানান। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শাজাহান খান অভিযোগ করেন, ‘আমি মাদারীপুর সদরের এমপি, দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য। সদরে দলের বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। আমাকে দাওয়াত করা হয় না।’ এ সময় আগামী কয়েক দিনের মধ্যে মাদারীপুরে দলের একজন নেতার স্মরণসভায় নাছিমকে প্রধান অতিথি করার কার্ড দলীয় সভানেত্রীকে দেখান শাজাহান খান। একই সঙ্গে জেলা ছাত্রলীগ, যুবলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, কৃষক লীগসহ বিভিন্ন সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনে তাকে ভাগ দেওয়া হয় না বলেও অভিযোগ করেন দলের এই প্রেসিডিয়াম সদস্য।

জবাবে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘উনি (শাজাহান খান) দলীয় কর্মসূচি পালন করতে চান না। ডাকলে পাওয়া যায় না। কোনো নেতা মারা গেলে স্মরণ করতে চান না। ছাত্রলীগের সভাপতি বানাতে চান নিজের ছেলেকে। মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বানাতে চান স্ত্রীকে। অন্য সহযোগী সংগঠনের নেতৃত্বে আত্মীয়স্বজনকে চান। উনি আওয়ামী লীগকে পারিবারিক লীগ বানাতে চান।’ এ সময় জবাব দিতে কথা বলা শুরু করেন শাজাহান খান। তবে উভয়কে থামিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী। নাছিমের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উনি (শাজাহান খান) জাসদে ছিলেন। তোমরাই তো দলে নিয়ে এসেছ। আমি চেয়েছিলাম উনি জাসদে থেকেই আমার সঙ্গে কাজ করুক। এরপর দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য শাজাহান খানকে উদ্দেশ করে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আপনি মুরব্বি। সবাইকে নিয়ে দলটা করবেন। রাজপথে আপনার অনেক অবদান রয়েছে। আমাদের দুঃসময়ে ছিলেন। নৌকা নিয়ে পাঁচবার এমপি হয়েছেন। আপনি কেন ভাগ চাইবেন? সব আপনারই হবে। আপনার করে নিতে হবে। আপনি যদি নাছিম, গোলাপসহ সবাইকে ডাকেন, কেউ আপনাকে ফেলে চলে যেতে পারবে? কেউই উপেক্ষা করতে পারবে না। এ সময় প্রধানমন্ত্রী ঠাট্টাচ্ছলে বলেন, আগে আপনাকে (শাজাহান খান) আওয়ামী লীগ হতে হবে। পদে থাকলেই হবে না, আওয়ামী লীগকে ধারণ করতে হবে।