মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই শতভাগ সফলতায় ছোট তুলাগাঁও মহিলা কলেজ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২০, ২০১৭
news-image

 

আরিফ আজগর ঃ

প্রতিষ্ঠার লগ্ন থেকে শতভাগ সফলতা বয়ে যাচ্ছে বরুড়ার আড্ডা ইউনিয়নের ছোট তুলাগাঁও গ্রামে অবস্থিত ছোট তুলাগাঁও মহিলা কলেজ। এলাকার শিল্পপতি ইঞ্জিনিয়ার মোঃ আতিকুর রহমান একটি মহৎ উদ্দেশ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেন কলেজটি।

২০১৪ সালে যাত্রা শুরু করে এখন পর্যন্ত দুটি পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে দুবার ই পাশের হার শতভাগ নিশ্চিত করে এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করেছে কলেজটি। ২০১৬ সালের এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে শুরু হয় কোনো পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ এবং সেবছর মোট ৭৪জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দেয় যার মধ্যে বিজ্ঞান শাখায় ২০ জন, ব্যবসা শিক্ষা শাখায় ২৮ এবং মানবিক শাখায় ২৬জন ছাত্রী অংশগ্রহণ করে সবাই ই পাশ করে। ঐ বছর A+ ১৫ জন, A গ্রেড ৫৮জন এবং A- ০১জন পায়। ২০১৭ সালের এইচ.এস.সি পরীক্ষায় ৭৮জন ছাত্রী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে যার মধ্যে বিজ্ঞান শাখার ২৪জন, ব্যবসা শিক্ষা শাখার ৩৩জন, এবং মানবিকের ২১জন। এবছর ও পাশের হার শতভাগ নিশ্চিত করে সাফল্যের ধারা অব্যাহত রেখেছে কলেজটি। এই বছর A+ ০৯ জন, A গ্রেড ৫৫জন এবং A- ১৩জন এবং B গ্রেড পায় ০১জন ছাত্রী।

বর্তমানে একাদশ শ্রেণীতে ২৩৯জন এবং দ্বাদশে ১২৬ মোট ৩৬৫ জন ছাত্রী অধ্যয়নরত আছে। শুধু পরীক্ষায় সাফল্য ই নয়, সফল বিভিন্ন প্রতিযোগীতায়ও। ২০১৫ সালে নবাব ফয়জুননেছা চৌধুরাণীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রচনা প্রতিযোগীতায় উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হয় এবং ২০১৭ সালে একই প্রতিযোগীতায় উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হয়ে জেলা পর্যায়ে ১ম হয়। ১ম হওয়া সেই ছাত্রীর নাম শামীমা আক্তার। ২০১৭ সালে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষে রচনা প্রতিযোগীতায় ১ম এববং হামদ প্রতিযোগীতায় উপজেলা, জেলা এবং বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হয়ে জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণ করে। সসবচে আশ্চর্যজনক বিষয় হলো হামদ পরিবেশনকারী সেই ছাত্রী একজন হিন্দু (নন্দিতা)। ২০১৭ সালে উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান এবং শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী নির্বাচিত হয় (সায়মা আক্তার, বিজ্ঞান শাখা) ২০১৬ সালের জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ উদযাপনে ৫টি বিষয়ে শ্রেষ্ঠ হয়। সৃজনশীল মেধা অন্বেষণে ভাষাও সাহিত্য বিভাগে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হয়। অংশগ্রহণকারী ঐ ছাত্রীর নাম সালমা আক্তার ( বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত)।২০১৭ সালে শিক্ষা দিবসবস উপলক্ষে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক সম্মাননায় ভূষিত হন প্রতিষ্ঠানের বর্তমান ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তাফা।

প্রতিষ্ঠানটির এমন সফলতার কারণ জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা জানান- আমাদের এই সফলতার কারণ হলো আমাদের গভর্নিং বোডি,অভিভাবক এবং শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত সহযোগীতা, নারী শিক্ষাকে গুরুরুত্ব দিয়ে আমাদের প্রতিষ্ঠাতা ইঞ্জিনিয়ার মোঃ আতিকুর রহমান যেই স্বপ্নে প্রতিষ্ঠানটি গড়েছেন আমরা সেই লক্ষে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করছি। দৈনিক ক্লাসের পড়া ক্লাসে আদায় সহ প্রোগ্রামিং এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের যেকোনো সমস্যা আমরা সমাধান করে থাকি। পড়ালেখার খরচ বাবদ কোনো টাকাকা পয়সা না নেওয়ার বদৌলতে তাদের শিক্ষাসামগ্রী এবং পোষাক দিয়ে থাকি যার জন্য শিক্ষার্থীরা উৎসাহে ক্লাসে যোগদান করে। আমাদের শিক্ষকরা প্রতিটি ছাত্রীকে নিজের সন্তানের মতো পাঠদান করেন। স্থানীয় এলাকাবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত সহযোগীতা রয়েছে বলে আমাদের ছাত্রীরা নিরাপদে কলেজে আসা যাওয়া করতে পারে। কমন রুম, ল্যাব,কম্পিউটার রুমের মনোরমতা আছে আমাদের, শুধু একটি আইসিটি ভবন শূন্যতায় আমরা ভুগছি, আইসিটি ভবনটি পেলে এবং এলাকবাসীর সহযোগীতা বহাল থাকলে আমাদের সফলতা সবসময় অর্জিত হতে থাকবে।

আর পড়তে পারেন