রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পুরো মাস জুড়েই লকডাউনের পরিকল্পনা: বন্ধ থাকতে পারে দোকানপাট-যানবাহন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৫, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

পুরো মাসজুড়ে লকডাউনের পরিকল্পনা করছে সরকার। আগামী ১৬ মে শেষ হচ্ছে বর্তমান লকডাউনের মেয়াদ। ইতিমধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে, নতুন করে লকডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধি করা হবে। প্রাথমিকভাবে ৭ দিন লকডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধির কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু সরকারের নীতিনির্ধারক মহল পুরো মাস জুড়েই কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের চিন্তাভাবনা করছে বলে জানা গেছে। আগামীকাল এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করার সম্ভাবনা রয়েছে। আজ ঈদের পরদিন সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একাধিক কর্মকর্তা সামনের দিনগুলোতে কিভাবে জনগণের চলাফেরা সীমিত করা যায় সেটি নিয়ে কাজ করছেন বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গেও সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা কথা বলেছেন বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, সরকার প্রথম যে চ্যালেঞ্জটি মোকাবেলা করতে চাচ্ছে তা হলো, যে সমস্ত মানুষ ঈদে ঢাকার বাইরে গেছেন তাদের ঢাকায় ফেরা বন্ধ করা এবং এটি যদি বন্ধ না করা যায়, তাহলে পরে বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। আর এ কারণে গণপরিবহন বন্ধসহ যেনো ৬৫ লাখ মানুষ আবার ঢাকায় ফিরতে না পারে সে জন্য কি ব্যবস্থা নেয়া যায় সেটির বিষয় ভাবনা চিন্তা করা হচ্ছে।

দ্বিতীয়ত, ভারতীয় ভেরিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশে যেন করোনার তৃতীয় ঢেউ না আসে, সেজন্য যে বিধিনিষেধ গুলো আছে সেই বিধিনিষেধ গুলো আরো কঠোরভাবে আরোপ করার বিষয়টি ভাবা হচ্ছে। এখানে কিছু অনুকূল পরিস্থিতি আছে বলে সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করছে। তারা মনে করছে যে, ঈদের সময় দোকান খুলে রাখার একটা চাপ ছিলো। বিশেষ করে ঈদ কেনাকাটা দোকান ব্যবসায়ীদের আয়ের একটি বড় উৎস। যেহেতু ঈদ চলে গেছে কাজেই এক সপ্তাহ বা দুই সপ্তাহ যদি দোকানপাট বন্ধ রাখা যায় তাহলে এটির কোনো প্রতিবাদ হবে না।

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন যে, এখন যদি দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়া যায়, তাহলে সংক্রমণ কমে যাবে। ঈদের কারণে নানা বাস্তবতা ও অভ্যন্তরীণ গণপরিবহন চালু করা হয়েছিলো। বিশেষ করে মানুষজন শপিংমলে যেতে পারে এবং বিভিন্ন আয় উপার্জনের কাজ করতে পারে সেজন্য। এখন কিছুদিনের জন্য গণপরিবহন বন্ধ করাটা খুব একটা কষ্টকর হবে না বলে সরকার বিবেচনা করছে। এরকমভাবে আরো কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করে আগামী দুই সপ্তাহ সরকার এক ধরনের কঠোর অবস্থা গ্রহণের পরিকল্পনা নিচ্ছে বলে জানা গেছে।

তৃতীয়ত, অফিস-আদালতগুলো সীমিত করা। সরকার মনে করছে যে, অফিস-আদালত খোলা রাখার কারণে মানুষের যাতায়াত বেড়েছিলো। সেজন্য এখন যদি অফিস আদালতগুলো একেবারে দুই সপ্তাহের জন্য পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া যায়, সেক্ষেত্রে পরিস্থিতির উন্নতি হবে

চতুর্থত, পুলিশকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দেওয়ার চিন্তাভাবনা করছে সরকার। একজন মানুষ বিনা কারণে বের হচ্ছে, নানা অজুহাতে বের হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণের এখতিয়ার আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নেই। সেই জন্যই এখন মনে করা হচ্ছে যে, আগামী এক সপ্তাহ বা দুই সপ্তাহ যদি পুলিশকে ম্যাজিস্ট্রেসি পাওয়ার দেওয়া যায়, তারা যদি বিনা কারণে ঘোরাফেরা করা মানুষগুলোকে শাস্তির আওতায় আনতে পারে তাহলে হয়তো সরকারি যে বিধিনিষেধ তা বাস্তবায়ন সহজ হবে।

পঞ্চমত, স্বাস্থ্যবিধিতে কড়াকড়ি আরোপ: বিভিন্ন প্রয়োজনে যারা বের হবেন, তারা যেনো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেন। বিশেষ করে মাস্ক পড়া এবং হ্ত ধোয়া ইত্যাদি ব্যবস্থাপনাগুলো কঠোরভাবে অনুসৃত হয় সেটির ব্যাপারে মনোযোগী হতে চায় সরকার।

তবে দুই সপ্তাহের লকডাউনে কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে বলে সরকার মনে করছে। বিশেষ করে যে মানুষগুলো ঢাকার বাইরে গেছে তারা আবার ঢাকায় ফিরবে এবং এটি ঠেকানো একটা বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ হবে। ঈদের আগে দেখা গেছে যে, গণপরিবহন বন্ধ রেখেও মানুষের ঘরে ফেরা ঠেকানো যায়নি। এখন তাদের ঢাকায় ফেরা ঠেকানো যাবে কিনা এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তবে কিছু কিছু বিশেষজ্ঞ মনে করছেন যে, বাংলাদেশের বাস্তবতায় কঠোর বিধিনিষেধের চেয়ে স্বাস্থ্যবিধিকে গুরুত্ব দেওয়া, বিশেষ করে মাস্ক ব্যবহারের ওপর গুরুত্ব দেওয়াটাই অত্যন্ত জরুরী। আর সে কারণেই আগামী পরশু থেকে যে লকডাউনের বিধিনিষেধ হবে, সেই বিধিনিষেধ যদি শেষ পর্যন্ত কার্যকর না হয় তাহলে স্বাস্থ্যবিধি মানার ওপরে গুরুত্ব দিয়েই সরকারের কাজ করা উচিত বলে কেউ কেউ মনে করছেন।

 

আর পড়তে পারেন