সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পুরুষ ধর্ষণ; পরিবর্তন আসুক ধর্ষণের সংজ্ঞায়, তৈরী হোক লিঙ্গ বৈষম্যহীন আইন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৪, ২০২১
news-image

 

আনিকা নাজনীন:
ধর্ষণ শব্দটি শুনলেই আমাদের চোখের সামনে ফুটে উঠে পুরুষ দ্বারা নারীর যৌন নিগ্রহ, যৌন নির্যাতনের এক অমানবিক চিত্র । ফলে নারীদের উপর যৌন নির্যাতন বা ধর্ষণ ঠেকাতে কঠোর আইন রয়েছে সব দেশেই। কিন্তু ধর্ষণের শিকার শুধু নারীরাই হন, এমন নয়। বহু পুরুষও যৌন নির্যাতনের শিকার হন নানা ক্ষেত্রে। কিন্তু তা নিয়ে আমাদের দেশে নেই কোন পর্যাপ্ত আইন । যেখানে বাংলাদেশ সংবিধানের ২৭ নং অনুচ্ছেদ এ বলা হয়েছে আইনের চোখে সবাই সমান সেখানে পুরুষদের ভিন্নভাবে মূল্যায়ন করা, আইনের কাছে সমান আশ্রয় পাওয়ার সমান সুযোগ না থাকা কতটা যৌক্তিক?পুরুষের উপর ঘটে যাওয়া এসব নির্যাতনের বিচারের জন্য প্রয়োজন পর্যাপ্ত আইন যা আমাদের দেশে নেই।

ধারা ৩৭৫: ধর্ষণ (Rape) এই আইনে ধর্ষনের সংজ্ঞায় দেওয়া হয়েছে ও ধর্ষণ চিহ্নিত করার উপায় বলে দেওয়া হয়েছে । যেখানে বলাই আছে কোন পুরুষ নারীর সাথে যৌন সহবাস করে তার ইচ্ছা সম্মতি ছাড়া. ভয় প্রদর্শনের মাধ্যামে, ধর্ষণকারী ব্যাক্তিটি ধর্ষিত নারীর স্বামী হওয়ার মিথ্যা পরিচয় দেয় বা ১৪ বছরের কম কোন নারীর তাহলেই তা ধর্ষণ বলে গণ্য হবে। পেনেট্রেসন বা প্রোবিষ্ট করা নিয়েও কোন সুর্নিদিষ্ট সঙ্গা নেই।কিন্তু বর্তমানে এমন অনেক বিষয় উঠে আসছে যেখানে পুরুষ ও ধর্ষণ বা যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে কিন্তু তাদের জন্য এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কোন পর্যাপ্ত ধারা নেই।অধিকাংশ মানুষই এ বিষয়ে কথা বলতে চায়না আর মামলা করলেও অধিকাংশ মামলা করা হয়।ধারা ৩৭৭ যা সমকামিতা নিয়ে।

ধারা ৩৭৭ এ বলা হয়েছে কোন ব্যক্তি একই লিঙ্গ বা কোন জন্তুর সাথে ইচ্ছাকৃত যৌন সহবাস করে সে ব্যাক্তি সর্বোচ্চ ১০ বছরের জেল এবং জরিমানা দন্ডেও দন্ডনীয় হবে। এই ধারার শাস্তির পরিমানও কম। যা পুরুষ ধর্ষণের শাস্তির জন্য পর্যাপ্ত নয়।যেখানে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড।

নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ধারা ৯ বলা আছে যে কোন ছেলে শিশু যার বয়স ১৬ বছরের কম সে যদি ধর্ষণের শিকার হয় তার মামলাও এই আইনের আর্ন্তভূক্ত হবে।এবং ২০১৩ সালে উচ্চ আদালত আব্দুস সামাদ বনাম রাষ্ট্র ( ৯ বিএলসি, ২০১৪ পৃ -১৭১) মামলায় ও এই ধারাকে সমর্থন করে। এই মামলার রায়ে বলা হয় যদি ছেলে শিশুর যৌন সঙ্গমে সম্মতি ও থেকো থাকে তবুও এটি ধর্ষণ বলে গণ্য হবে কারণ ১৬ বছরের কম কোন শিশুর সম্মতি গ্রহণ যোগ্য নয়।এই অপরাধের শাস্তি দন্ডবিধি আইনে না বিচার কার্য সম্পন্ন হয়ে, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে বিচার কার্য সম্পন্ন হবে। কিন্তু বিড়ম্বনার সৃষ্টি তখন হয় যখন কোন পুরুষের বয়স ১৬ বছরের বেশি হয়।

২০১৯ সালের ১৯ আগস্ট জমির উল্লাহ (৪৫) নামক এক ব্যাক্তি আত্মহত্যা করে এর কারণ ছিলো তিনি গণ ধর্ষণের শিকার হন এবং ধরর্ষণ কারীরা ভিডিও করে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় এবং ২লক্ষ টাকা দাবি করে। তার পরিবারও ও স্থানীয়রা বিষয়টি জানতো। কারণ বাংলাদেশের আইনে এ বিষয়ে পর্যাপ্ত ধারা নেই।এমন অনেক ঘটনা প্রতিনিয়ত আমাদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় আমাদের কাঠামগত দুর্বল বিচার ব্যাবস্থার কথা।

পরিষেশে বলা যায় সরকার, আইন মন্ত্রনালয় ও বিচার বিভাগ দ্রুততার সাথে এই বিষয়ে আনবে আইনি পরিবর্তন। যাতে এ দেশের কোন নাগরীকের বিচার পাওয়ার মতো মৌলিক অধিকার ক্ষুন্ন না হয়। নারী পুরুষ নির্বিশেষে সবার জন্য আইনের বিচার পাওয়ার সমান সুযোগ করতে হবে এবং তৃতীয় লিঙ্গের কোন ব্যাক্তি যদি যৌন নিগ্রহের শিকার বা ধর্ষণের শিকার হয় তারাও যেন সুষ্ঠু বিচার পায় এমন আইন তৈরি করতে হবে।

লেখকঃ আনিকা নাজনীন,

শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, ইষ্ট ওয়েষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা ৷

আর পড়তে পারেন