সোমবার, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

‘পুজোর পরে সংক্রমণের সুনামি আটকান’, মমতাকে আর্জি চিকিৎসকদের

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ১১, ২০২০
news-image

 

কলকাতা ডেস্কঃ
যেভাবে মানুষ কেনাকাটা করছেন, যেভাবে রাস্তায় চলাফেরা করছেন, তাতে পুজোর সময় কী হতে চলেছে, সহজেই অনুমেয়। অন্যান্য বছরের মতোই এবছরও সেই ভীড় চোখে পড়ছে, কোথাও করোনার জন্য ভয় নজরে পড়ছে না। ফলে পুজোর পরে ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়তে পারে করোনা, আশঙ্কা চিকিৎসকদের।

এই ব্যাপারে কড়া হাতে ভীড় নিয়ন্ত্রণ করার জন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি দিয়েছে চিকিৎসকদের সংগঠন। ওনামের পর যেভাবে কেরল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, সেই একই হাল হতে পারে বাংলারও। মহারাষ্ট্রেও গণেশ চতুর্থীর পর প্রবল হারে ছড়িয়ে ছিল সংক্রমণ। তাই পুজোর পরে যাতে একই পরিস্থিতি না হয়, তার আবেদন জানানো হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে।

সাতই অক্টোবর এই চিঠি পাঠানো হয়েছে। আবেদন জানানো হয় যেন প্রশাসন পুজোর বাজারের তথাকথিত ভিড় নিয়ন্ত্রণে কড়া পদক্ষেপ নেয়। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে মহালয়া ও বিশ্বকর্মা পুজোর। জানানো হয়েছে এই দিনের পরেই রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আচমকা বেড়ে যায়। একদিনেই এই পরিস্থিতি হলে, পুজোর পাঁচদিন ও তার আগে মাসখানেক ধরে পুজোর বাজার করার পর কী পরিস্থিতি হবে, তা যেন ভেবে দেখেন মুখ্যমন্ত্রী।

 

সংক্রমণের সুনামি আসতে চলেছে বলে উল্লেখ করে চিকিৎসকরা বলেন, কোনও ভাবেই করোনাকে আর ভয় পাচ্ছেন না মানুষ। নয়তো এভাবে ভিড় করে পুজোর বাজার করতে পারতেন না। এই মুহুর্তে দুটি নিয়ম অবশ্যই মেনে চলা উচিত। পুজো প্যান্ডালে ভিড় করা থেকে বিরত থাকতে হবে, দ্বিতীয়ত বাড়ির বাইরে বেরোবেন না।

শুধু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নয়, প্রতিটি রাজনৈতিক দলকেও আহ্বান জানানো হয়েচে, যাতে মানুষকে সতর্ক করা হয়। এদিকে, পুজোর মুখে রাজ্যে করোনার সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি লক্ষ্য করা গিয়েছে। প্রতিদিন বাড়ছে সংক্রমণ। উৎসবের মরশুমে দৈনিক সংক্রমণ বেড়ে চলায় ঘোর উদ্বেগে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলায় নতুন করে ৩৫৯১ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

শনিবারে রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, একদিনে ৬২ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ সব মিলিয়ে বাংলায় মোট মৃতের সংখ্যা ৫ হাজার ৫৬৩ জন৷

গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৩,৫৯১ জন৷ সংক্রমণে রাজ্যে এটাই একদিনে সর্বোচ্চ রেকর্ড৷ শুক্রবার ছিল ৩,৫৭৩ জন৷ সংক্রমণ প্রতিদিনই নিজের রেকর্ড নিজে ভাঙ্গছে৷ ফলে এই পর্যন্ত রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২ লক্ষ ৯১ হাজার ১৯৪ জন৷