বৃহস্পতিবার, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পরিবারের উপর ঋণের বোঝা চাপিয়ে না ফেরার দেশে কুমিল্লার রহুল আমিন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৩, ২০১৯
news-image

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতুঃ

অসহায় পরিবারের মুখে হাসি ফেরানোর আশা নিয়ে আজ থেকে ১২ বছর পূর্বে সৌদি
আরবে পাড়ি দিয়েছিলেন কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার বাসিন্দা রুহুল আমিন (৩৫) ।
এরই মাঝে বিয়েও করেছেন। চেষ্টা করছিলেন পরিবারের সবার মুখে হাসি ফেরাতে।
কিন্তু হঠাৎ একটি দুঘর্টনা সব পথ বন্ধ করে দিল। প্রায় এক মাস মৃত্যুর
সাথে লড়াই করে না ফেরার দেশে চলে গেলেন রুহুল আমিন। পরিবারের উপর চাপিয়ে
গেলেন বিরাট ঋণের বোঝা । অনিশ্চয়তার দোলাচলে রেখে গেলেন নিজের স্ত্রী ও
দুই সন্তানকে।

নিহত রুহুল আমিন কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার গালিমপুর ইউনিয়নের
জোড়পুকুরিয়া গ্রামের (মৌলভী বাড়ি) হাজী মমতাজ উদ্দিনের ছেলে। হাজি
মমতাজ উদ্দিনের ৫ ছেলে ও ১ মেয়ের মধ্য রুহুল আমিন তৃতীয়। নিহত রুহুল
আমিন দুই সন্তানের জনক।

সোমবার (২২ জুলাই) রাতে সৌদি আরবে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহতের চাচাতো ভাই আবুল কাশেম জানান, রুহুল আমিন ১২ বছর পূর্বে জীবিকার
সন্ধানে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন। তবে পরিবারের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য
প্রবাসে পাড়ি দিলে পরিবারের জন্য তেমন কিছু করতে পারেন নি। রুহুল আমিন
গত ১১ জুন সৌদি আরবের আল বাহার আল আকিতে সড়ক দূর্ঘটনায় মারাত্বকভাবে
আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। গতকাল রাতে সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
আমরা মালিক পক্ষের সাথে যোগাযোগ করেছি। তারা আমাদের বলেছে- লাশ বাংলাদেশে
পাঠানো হলে সাথে ৩ লক্ষ টাকা পাবেন। আর লাশ না চাইলে ৭ লক্ষ টাকা পাঠাবো।

আবুল কাশেম আরো জানান, নিহত রুহুল আমিনের পারিবারিক আর্থিক অবস্থা খুবই
খারাপ। সে সড়ক দুঘর্টনায় আহত হওয়ার পর দেশ থেকেই আমরা ২৭ লক্ষ টাকা
পাঠিয়েছি। বাড়ি-ঘর বন্ধক রেখে, জমি বিক্রি করে টাকা জোগাড় করে তাঁর
চিকিৎসার জন্য টাকা পাঠিয়েছি। কিন্তু সে তো আর ফিরলো না।

স্থানীয় সূত্র বলছে, যেহেতু লাশ না আনলে ৭ লক্ষ টাকা পাবে সেক্ষেত্রে
পরিবার হয়তো লাশের বদলে ৭ লক্ষ টাকাই পেতে চাইবে।

আর্থিক অনটনে জর্জরিত নিহতের পরিবার বেশ দোটানায় পড়েছে। নিহত রুহুল
আমিনের মরদেহ শেষ বারের মত দেখবে নাকি ৭ লক্ষ টাকা নিবে সে বিষয়ে ভাবছে
এখন নিহতের পরিবার।

আর পড়তে পারেন