শনিবার, ১৭ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নোয়াখালির বেগমগঞ্জে জলাবদ্ধতায় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৩০, ২০১৭
news-image

অাবদুল মোতালেব,নোয়াখালিঃ

কয়েক  দিনের টানা বর্ষনে নোখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন চরম জলাবদ্ধতার সৃষ্টি কারনে শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। উপজেলার চৌমুহনী শহরসহ সর্বত্র রাস্তাঘাট, স্কুল মাঠ, মৎস্যঘের বন্যার পানিতে ভেসে যায়। এতে এলাকার কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

জানা যায়, গত কয়েকদিনের টানা বর্ষনে উপজেলার দুর্গাপুর, রফিকপুর, রসুলপুর, রাজগঞ্জ, হাজিপুর, শরিফপুরসহ বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট মৎস্যঘের ও স্কুল মাঠ পানির নিচে তলিয়ে যায়। জলাবদ্ধতার যান চলাচল বদ্ধ থাকার কারনে মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে। টানা বর্ষনের ফলে শ্রমজীবি মানুষ কোন কাজ না পেয়ে অর্ধাহারে অনাহারে দিনাতিপাত করছে। উপজেলার শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠে পানি উঠে যাওয়ায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সাময়িক সময়ের জন্য স্কুল বন্ধ ঘোষনা করে বলে জানাযায়।
অন্যদিকে পানি বেড়ে যাওয়ায় ভেসে গেছে প্রায় দুই শতাধিক মৎস্য খামার। ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে আমন ধানের বীজতলা ও রবি শস্য, শাকসবজি ফসলী জমি। প্রায় দুইশ কিলোমিটার রাস্তাঘাট ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

শরীফপুর ইউনিয়নের মৎস্যচাষী শাহাদাত হোসেন জানান, ১টি বেসরকারী এনজিও থেকে পাঁচ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে কয়েকটি পুকুরে মাছ চাষ করি। গত কয়েকদিনের লাগাতার ভারী বর্ষনে জলাবদ্ধতার কারনে পুকুরগুলি ভেসে যায়। এতে পুকুরের সম্পুর্ণ মাছ ভেসে চলে যায়। এ ক্ষতিপূরণ কিভাবে মিটাবো। এনজিও থেকে নেয়া পাঁচ লাখ টাকার ঋণ কিভাবে পরিশোধ করবো। এখন আমার পরিবার নিয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপনেও অনিশ্চয়তা পড়তে হচ্ছে।

বেগমগঞ্জে জলাবদ্ধতার প্রধান কারন হচ্ছে চৌমুহনী শহরের বিভিন্ন খাল ভরাট করে অবৈধ দোকান পাট, বহুতল ভবন নির্মাণ করা। যার ফলে সামান্য বৃষ্টিতে এই অঞ্চলে পানি জমে কৃত্রিম বন্যার সৃষ্টি হয়। অবৈধ দখলদারের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় এলাকার সাধারন জনগণের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে বেগমগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদা খানমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমাকে কয়েকটি ইউনিয়ন থেকে ফোনে জলাবদ্ধতার কথা জানিয়েছে। বৃষ্টি বন্ধ হলে এব্যাপারে চিন্তা করা হবে। খাল দখলমুক্ত করার ব্যাপারেও তিনি আশ্বাস্ত করেন।

আর পড়তে পারেন