শুক্রবার, ১৫ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নেতৃত্ব সংকটে চান্দিনা উপজেলা বিএনপি; পদ নিয়ে বাড়ছে দলীয় কোন্দল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২১, ২০১৮
news-image

সাদেক হোসেন:
চান্দিনা উপজেলা বিএনপিকে একসময় আগলে রেখেছেন প্রয়াত কুমিল্লা উত্তর জেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মো. খোরশেদ আলম। চলতি বছরের জানুয়ারিতে উপজেলার লাখো বিএনপি নেতাকর্মীদের অশ্রু বিসর্জনের মধ্য দিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান এই বর্ষীয়ান নেতা। তারপর থেকে অভিভাবক শূণ্য হয়ে পড়ে পুরো উপজেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ। খোরশেদ আলমের মৃত্যুর তিন মাস অতিবাহিত হলেও তার স্থলাভিষিক্ত হয়ে দলের নেতৃত্বের ভার কাঁধে নেওয়ার জন্য এগিয়ে আসেনি কেউ। দলের সিনিয়র বেশ কয়েকজন নেতৃত্ব গ্রহণে এগিয়ে আসতে চাইলেও দলের অর্ন্তঃকোন্দলের কারণে একসময় থমকে যান তারাও। সে থেকে পুরো উপজেলা বিএনপি ইউনিটের নেতৃবৃন্দ দুটি ভাগে ভাগ হয়ে যায়। দলের কিছু নেতাকর্মী চান উপজেলার নেতৃত্বে আসুক খোরশেদ আলম এর ছেলে আতিকুল আলম শাওন। আবার সিনিয়র এবং দক্ষতার কথা বিবেচনা করে এদের মতামতে একাত্মতা প্রকাশ করেননি সিনিয়র অনেক নেতাকর্মী। তাদের মতে, উপজেলা বিএনপি সভাপতির পদটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাজনীতিতে দক্ষ এমন কাউকে এ পদে বসানো উচিত বলে দাবি করেন তারা। দলের মধ্যকার এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে নানারকম মন্তব্যের জেরে বাড়তে থাকে দলীয় কোন্দল। এদিকে উপজেলা বিএনপির নেতৃত্বে আসা নিয়ে সম্প্রতি উপজেলা যুবদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের রেষারেষিতে বিএনপির সহযোগি অঙ্গসংগঠন উপজেলা যুবদলে ভাঙন দেখা দিয়েছে।

বিএনপির নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, নেতার মৃত্যুর ১৫-২০ দিন পর চান্দিনা উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মনোনীত করার লক্ষ্যে খোরশেদ আলম এর বাসভবনে এক রুদ্ধদার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারক হিসেবে ৩০ জন নেতাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। তার মধ্যে ২৯ জন নেতা উপস্থিত হয়ে তাদের রাজনৈতিক জীবনের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে ব্যক্তিগত অভিমত প্রকাশ করেন।

পাশাপাশি নেতার মৃত্যুর পর প্রতিটি শোক সভার এজেন্ডায় ওঠে আসে সভাপতির পদ নিয়ে আলোচনা। পরবর্তী সভাপতি কে হবেন এ বিষয়ে খুব আগ্রহ নিয়ে আলোচনা করেন নেতাকর্মীরা। তাদের বক্তব্যে সিংহভাগ নেতা কর্মীরাই কেউ প্রত্যক্ষভাবে আবার কেউবা পরোক্ষভাবে বর্ষীয়ান নেতার স্থলাভিষিক্ত হিসেবে আতিকুল আলম শাওনের নাম উল্লেখ করে বক্তব্য রাখেন। আবার তাদের মধ্যে কয়েকজন শাওনের বিরোধী বক্তব্য দেন। এসময় দলের বয়ঃজ্যেষ্ঠ, ত্যাগী ও সিনিয়র নেতাদের অনেকে তাদের বক্তব্যে নিজেদের মূল্যায়ন এবং যুবদল ও ছাত্রদলসহ বিএনপির অন্যান্য সহযোগি অঙ্গসংগঠনের পুনঃবিন্যাসের পক্ষে বক্তব্য রাখেন। এর মাধ্যমে সিনিয়র বেশ কয়েকজন নেতৃবৃন্দ তাদের নিজেদের নেতৃত্বে আসার ইঙ্গিত দেন। ওই বৈঠকের পর উপজেলা বিএনপিতে আভ্যন্তরীণ কোন্দলের সূত্রপাত হয় বলেও জানান উপজেলা বিএনপির কয়েকজন নীতিনির্ধারক।
তারা বলেন, দলের ভিতরের কোন্দল মূলত সভাপতির পদ নিয়ে। নেতা মারা যাওয়ার পর তার জায়গায় এসে দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেছেন অনেকেই। তাদের মধ্যে উপজেলা যুবদল সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন উপজেলা বিএনপির নেতৃত্ব নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। অপরদিকে তার বিরোধিতা করছেন যুবদল সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আবুল খায়ের।
এ বিষয়ে উপজেলা যুবদল সভাপতি ইঞ্জি: কাজী সাখাওয়াত হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি জানান, রেদোয়ান আহমেদ বিএনপি ছেড়ে চলে যাওয়ায় খোরশেদ আলম, মফিজ ভূইয়া, এবিএম সিরাজ ও আমি উপজেলা বিএনপি’র হাল ধরি। সেই সময় সব কিছু বিবেচনা করে খোরশেদ আলমকে দলের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। এখন খোরশেদ আলম নেই। তার স্থানটি পূরণে কোন অনভিজ্ঞ ব্যক্তি আসুক সেটা আমি চাই না। আমি প্রায় ২৭ বছর যাবৎ পরপর সাত বার উপজেলা যুবদলের দায়িত্ব পালন করে আসছি। ২০০৮ সালে খোরশেদ আলম যখন দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছিলেন সেই সময় তার সাথে আমিও মনোনয়নপত্র নিয়েছিলাম। সেই সুবাদে উপজেলা বিএনপি সভাপতি পদে আমি নিজেই আসতে চাই।

এদিকে উপজেলা যুবদল সাধারণ সম্পাদক মাও. আবুল খায়ের জানান, খোরশেদ আলম চান্দিনা উপজেলা বিএনপির পুণঃজন্মদাতা। ২০০৬ সালের রেদোয়ান আহমেদ বিএনপি ছেড়ে চলে যাওয়ায় উপজেলা বিএনপির নেতা-কর্মীদের একমাত্র আশ্রয়স্থল ছিলেন খোরশেদ আলম। এছাড়া খোরশেদ আলম এর মৃত্যুর পর দলীয় কার্যালয়ে শোকসভা শেষে উপস্থিত নেতা-কর্মীদের প্রতিক্রিয়ায় ২-১ জন ব্যতীত উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের সকল নেতৃবৃন্দ শাওনকে উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি পদে অধিষ্ঠিত করার প্রস্তাব করেন। আমারও ব্যক্তিগত অভিমত শাওনকে উপজেলা বিএনপির সভাপতি করা হউক।

বিশ্বস্তসূত্রে জানা যায়, উপজেলা যুবদলের এ দুই নেতার পাল্টাপাল্টি মন্তব্যে উপজেলা যুবদলসহ মূলদল বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন সভা কিংবা বৈঠকে তারা পরস্পর বিরোধী মন্তব্য প্রদান করেন। এতে করে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে ধীরে ধীরে সেটা কোন্দলে পরিণত হয়।

সম্প্রতি ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে চান্দিনা উপজেলা যুবদল। উপজেলা বিএনপি সভাপতি খোরশেদ আলম এর মৃত্যুর তিন মাসের মধ্যেই দলটির অঙ্গ-সংগঠন উপজেলা যুবদলে বড় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক এর নেতৃত্বে সিংহ ভাগ নেতা-কর্মী উপজেলা যুবদল সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার কাজী সাখাওয়াতকে বয়কট করার একদিন পর সভাপতির নেতৃত্বে সভা ডেকে সাধারণ সম্পাদক মাও. আবুল খায়ের ও নবাবপুর ইউনিয়ন যুবদল সভাপতি আক্তারুজ্জামান খানকে সংগঠন থেকে বহিস্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে উপজেলা বিএনপি, অঙ্গ-সংগঠন ও সহযোগি সংগঠনের নেতা-কর্মীদের মঝে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা বিএনপি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি খলিলুর রহমান ভূইঁয়া বলেন, মূলত উপজেলা বিএনপি সভাপতি খোরশেদ আলম এর মৃত্যুর পর ওই শূন্য পদে তার ছেলে আতিকুল আলম শাওনকে স্থলাভিষিক্ত করতে যুবদলের সিংহ ভাগ নেতা পক্ষে থাকলেও ওই মতের বিপক্ষে সাখাওয়াত। তাই এ জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। তবে আমরা দ্রুত ওই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছি।

আর পড়তে পারেন