বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ কি কঠোর হতে পারবে?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ৩, ২০১৯
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট :

সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের দু-একজন গত পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী নাদের বখতের বিরুদ্ধে কাজ করেছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোট প্রার্থী পীর ফজলুর রহমান মিসবাহর বিরুদ্ধে শুধু অবস্থানই নেননি, বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে অর্থ ও কর্মী নিয়োগ করেন তারা। সর্বশেষ উপজেলা নির্বাচনে সদর উপজেলায় নৌকার প্রার্থী খায়রুল কবির চপল এবং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় দলীয় প্রার্থী রফিকুল ইসলাম তালুকদারের বিরুদ্ধে কাজ করেন তারা। ওই নেতারা গত দশ বছরে আওয়ামী লীগের রাজনীতি নিজের অবৈধ বিত্ত ও ক্ষমতার দাপট দেখাতে পারলেও সংগঠনকে শক্তিশালী করতে চরম ব্যর্থ হয়েছেন। নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন সেকেন্দার রহমান।

এ উপজেলায় দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন স্থানীয় এমপি শহিদুল ইসলাম বকুলের ভাই অহিদুল ইসলাম গেকুল। কিন্তু মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হন। ভাইকে বিজয়ী করতে প্রভাব খাটান প্রথমবারের মতো এমপি বকুল। দলের প্রার্থী সেকেন্দার রহমান অভিযোগ করেন, ‘সংসদ নির্বাচনে নৌকা নিয়ে বিজয়ী এমপি শহিদুল ইসলাম বকুল উপজেলা নির্বাচনে নৌকার বিপক্ষে কাজ করেন এবং প্রভাব খাটিয়ে ভাইকে বিজয়ী করেন।

দলের হাইকমান্ড সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, স্থানীয় নির্বাচনে যারা নৌকা ডুবিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমি চাই, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। তিনি অভিযোগ করেন, ‘স্থানীয় এমপি ছাত্রাবস্থায় (১৯৯২-৯৩ সালে) ছাত্রদলের এজিএস ছিলেন। তার বাবা উপজেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন পেয়ে এমপি হয়েই নৌকার বিরুদ্ধে কাজ শুরু করেছেন বকুল। চলছেনও বিতর্কিত ব্যক্তিদের নিয়ে।’

গাজীপুরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে মিছিলে অংশ নিয়ে আলোচনার জন্ম দেন বর্তমান মন্ত্রিসভার জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। এখানে দলের প্রার্থী পরাজিত হন। মন্ত্রীর সমর্থিত প্রার্থী বিজয়ী হন। খুলনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য নারায়ণ চন্দ্র চন্দের বিরুদ্ধেও ডুমুরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোস্তফা সরোয়ারের অভিযোগ, এমপি নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করছেন। নৌকার কোনো এজেন্ট কেন্দ্রে দিতে দেবেন না তিনি।

মোস্তফার প্রশ্ন, যারা নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হয়ে নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করেন তাদের বিরুদ্ধে কি সত্যি সত্যি ব্যবস্থা নেওয়া হবে? দলীয় সূত্রমতে, এবারের উপজেলা নির্বাচনে স্থানীয় এমপি-মন্ত্রী ও অনেক কেন্দ্রীয় নেতার বিরোধিতায় রেকর্ডসংখ্যক উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বিজয়ী হতে পারেননি। এতে বিএনপিবিহীন নির্বাচনে ‘নৌকার’ ইমেজই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে মনে করেন দলের হাইকমান্ড। সে কারণে নৌকা বিরোধী এমপি-মন্ত্রী ও নেতাদের তালিকা করতে নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত শুক্রবার আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের বৈঠকে উপজেলায় নৌকার বিরোধিতাকারী এমপি-মন্ত্রী ও নেতাদের তালিকা তৈরি করা এবং ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানান দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় তিনি দ্রুততম সময়ের মধ্যে তালিকা প্রস্তুতের নির্দেশ দেন। এ জন্য দলের চার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও আট সাংগঠনিক সম্পাদককে বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারাও তালিকা প্রস্তুতের কাজ শুরু করেছেন। আগামী শুক্রবার দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘যারা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলের প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করেছেন তাদের তালিকা তৈরির কাজ চলছে। আগামী ৫ এপ্রিল শুক্রবার দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক। সেখানে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৮০ শতাংশ ভোট পড়লেও মাত্র তিন মাস পর উপজেলায় কম ভোট পড়ায় নৌকার ইমেজ ক্ষুন্ন হয়েছে।

অন্যদিকে তিন মাস আগে যারা নৌকা নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তাদের অনেকেই নৌকার বিপক্ষে কাজ করতে দলীয় নেতা-কর্মী, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের নির্দেশনা দিয়েছেন। নৌকা ডুবিয়েছেন। যেসব এমপি স্থানীয় নির্বাচনে নৌকা ডুবিয়েছেন তারা কী করে সংসদ নির্বাচনে নৌকা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন? দল যদি ব্যবস্থা না নেয় তাহলে আওয়ামী লীগের নিবেদিত কর্মীরা ভবিষ্যতে নৌকায় ভোটদান থেকে বিরত থাকবেন।

এ প্রসঙ্গে রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘গত তিন মাস আগেও যারা নৌকা নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তারা নৌকার বিপক্ষে কাজ করছেন, এটা খুবই দুঃখজনক। এতে দলের শৃঙ্খলা নষ্ট হচ্ছে। এখন কঠোর ব্যবস্থা না নিলে পরবর্তীতে প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচনে দলের জন্য বুমেরাং হবে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, দল কঠোর হতে পারবে তো? পারলেই মঙ্গল হবে। আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানায়, এবারের উপজেলা নির্বাচনে কেন্দ্র থেকে তৃণমূলে নিজেদের মধ্যে কোন্দল বেড়েছে। বিভক্ত হয়ে পড়েছে নেতা-কর্মীরা। কাদা ছোড়াছুড়িতে সাংগঠনিক ভিতও দুর্বল হয়েছে।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে একাধিক উপজেলায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে। এতে আওয়ামী লীগের তৃণমূলে দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। জানা গেছে, বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করায় প্রথমে বিদ্রোহীদের আমলে নেয়নি আওয়ামী লীগ। দলের হাইকমান্ড চেয়েছে, নির্বাচনটি গ্রহণযোগ্য হোক। সে কারণে প্রথমে অ্যাকশনে যায়নি। কিন্তু অনেক এমপি-মন্ত্রী নৌকার বিরোধিতা করায় বিএনপিবিহীন নির্বাচনে নৌকা পরাজিত হয়েছে। অথচ প্রায় সব উপজেলাতেই গত সংসদ নির্বাচনে নৌকা একচেটিয়া ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে। সে কারণে নৌকা বিরোধিতাকারী এমপি-মন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় নেতাদের চিহ্নিত করতে নির্দেশ দিয়েছেন দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুধু নৌকার বিরোধিতাই নয়, অনেকে আবার নৌকার প্রার্থী ও প্রশাসনকেও নানা ধরনের হুমকি-ধমকি দিয়ে নৌকার পরাজয় নিশ্চিত করেন।

বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি আওয়ামী লীগ ও সরকারের শীর্ষ কর্তারা। সে কারণে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে নৌকা ডুবানো এমপি-মন্ত্রী ও নেতাদের। ময়মনসিংহের নান্দাইলে নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নেন স্থানীয় এমপি আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন। তিনি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হাসান মাহমুদ জুয়েলকে প্রকাশ্যে সমর্থন করে সভা-সমাবেশ করেন। টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্থানীয় এমপি হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী বিদ্রোহী প্রার্থী আনছার আলীকে ইন্ধন দিয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ছিলেন কাজী জহির উদ্দিন সিদ্দিক টিটু। তার বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হন আওয়ামী লীগ নেতা মনিরুজ্জামান। মনিরুজ্জামানকে স্থানীয় সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল সমর্থন দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

আর পড়তে পারেন