মঙ্গলবার, ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নির্বাচনী রাজনীতির নাটাই দেশে নয়, বিদেশে!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৬, ২০১৭
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

দেশে নির্বাচনপূর্ব রাজনীতি আন্তর্জাতিক মেরুকরণের ওপর নির্ভরশীল কি না—এ আলোচনা এখন রাজনৈতিক দলগুলোর গণ্ডি পেরিয়ে সচেতন জনগোষ্ঠীর মধ্যেও ছড়িয়েছে। বলা হচ্ছে, নির্বাচন একতরফা নাকি অংশগ্রহণমূলক হবে তা নির্ভর করছে ভারত, চীন ও যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা বিশ্বের ভূমিকা বা অবস্থানের ওপর।
পর্যবেক্ষকদের মতে, ওই দেশগুলো চাইলে বাংলাদেশে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। শুধু তাই নয়, অভ্যন্তরীণ ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি জোটের বাইরে থাকা রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে কে কোন অবস্থান নেবে তার নেপথ্যেও থাকতে পারে প্রভাবশালী রাষ্ট্রগুলোর ভূমিকা। পাশাপাশি দেশে কোনো ধরনের অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি হলে তার সঙ্গেও ওই দেশগুলোরই সংশ্লিষ্টতা থাকবে বলে সুধীসমাজে আলোচনা শুরু হয়েছে।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ মনে করেন, ভারতসহ প্রভাবশালী দেশগুলোর ভূমিকার ওপর বাংলাদেশের আগামী রাজনীতি তথা নির্বাচনের ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে। এমনকি দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর মেরুকরণও তাদের সবুজ সংকেতে ঘটতে পারে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই উপাচার্য বলেন, বস্তুত ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে ভারতের একটা ভূমিকা ছিল। তবে ২০১৮ সালে ভারতের অবস্থান কী হবে সে সম্পর্কে কেউ নিশ্চিত নয়। ফলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার লন্ডন সফর নিয়ে সরকারি দল এত হৈচৈ করছে।

সাবেক রাষ্ট্রদূত মোহম্মদ জমির মনে করেন, বর্তমান বিশ্ববাস্তবতায় সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবিরোধী অবস্থানসহ সুশাসন, গণতন্ত্র এবং সর্বপরি নির্বাচন প্রশ্নে বড় দেশগুলোর ভূমিকা অনস্বীকার্য।
তা ছাড়া বাণিজ্যিক সুবিধাসহ নানা ক্ষেত্রে উন্নত দেশগুলোর সঙ্গে যেসব চুক্তি হয় সেগুলোও আমাদের মতো দেশকে বিবেচনায় রাখতে হয়। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনের ব্যাপারে আন্তর্জাতিক মহল তো চাপ সৃষ্টি করতেই পারে। তবে সেটি শুধু সরকারের ওপরে নাও আসতে পারে। কারণ চীন, ভারত ও রাশিয়ার সঙ্গে বর্তমান সরকারের সম্পর্ক ভালো। মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশের সঙ্গেও এ সরকারের সুসম্পর্ক রয়েছে। এ অবস্থায় অন্য দলগুলোকেও নির্বাচনে আসার জন্য তারা চাপ দিতে পারে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদের মতে, বাংলাদেশে আগামী দিনের রাজনীতি কিংবা নির্বাচনে কী ঘটবে সেটি মূলত এ দেশের জনগণের ওপর নির্ভরশীল হলেও ভারত ও পশ্চিমা বিশ্বের অবস্থানও এ ক্ষেত্রে কম প্রণিধানযোগ্য নয়। কারণ গত নির্বাচনে ভারতের ভূমিকাকে অনেকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে। ফলে বিএনপির প্রত্যাশা জাগতে পারে যে এখন ভারতে কংগ্রেস ক্ষমতায় নেই; রাষ্ট্রপতি পদে প্রণব মুখার্জিও নেই। আবার আওয়ামী লীগ সরকারও দেশটির সঙ্গে সম্পর্ক রক্ষা করেই এগোতে চাইবে। তাঁর মতে, এ ক্ষেত্রে ভারতের দিক থেকে দুই ধরনের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। প্রথমত, তারা বর্তমান সরকারের ধারাবাহিকতা দেখতে চাইতে পারে। দ্বিতীয়ত, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের পক্ষেও তারা অবস্থান নিতে পারে।
আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ড. তারেক শামসুর রেহমান মনে করেন, বাংলাদেশের রাজনীতি বা আগামী নির্বাচন প্রশ্নে সব দেশ ‘কনসার্ন’ নয়। তাঁর মতে, এ দেশে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ রয়েছে। তবে ভারত এ ক্ষেত্রে মূল ফ্যাক্টর। ফলে এ দেশটি কী চায় বা তাদের দৃষ্টিভঙ্গিই বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আর যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকাও কিছুটা ভারতকেন্দ্রিক। তাঁর মতে, আন্তর্জাতিক মহলের চূড়ান্ত অবস্থান হয়তো আগামী নির্বাচনের আগে স্পষ্ট হতে পারে। তবে নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন কারণে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় থাকুক এটিই ভারত চাইবে; যোগ করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের এই অধ্যাপক। তাঁর মতে, বিএনপি এখনো ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করতে পারেনি।

গত ১৫ জুলাই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যাওয়ার পর থেকে আন্তর্জাতিক মহলের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি আলোচনায় নতুন মাত্রা পেয়েছে। কারো মতে, ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপির পাশাপাশি সে দেশের ‘ক্ষমতার বিকল্প কেন্দ্র’ বলে পরিচিত সংস্থার সঙ্গে বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে খালেদার। আবার কারো মতে, বিভিন্ন প্রশ্নে খালেদা জিয়ার সঙ্গে তারেক রহমানের কিছুটা মতদ্বৈধতা ছিল; যা এ সফরের মধ্য দিয়ে দূর হয়ে যাবে। যদিও সরকার ওই সফরকে ‘ষড়যন্ত্র’ হিসেবে দেখছে।

তবে ভারতীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের সম্ভাবনার কথা শুনে বিএনপির অনেকে আশাবাদী হয়ে উঠেছেন। যদিও এ বিষয়ে কারো কাছে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই। আবার লন্ডনে থাকা নেতারাও এ বিষয়ে মুখ খুলছেন না। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী  বলেন, ‘চেয়ারপারসন লন্ডনে এসেছেন চিকিৎসার জন্য। কিন্তু সরকার এত নার্ভাস কেন বুঝলাম না। আসলে এখানে কোনো বৈঠক হয় কি না এ নিয়েই কি তারা নার্ভাস?’ এ প্রশ্ন তোলেন তিনি।

সরকারি দলের নেতারা এ সফরকে ‘ষড়যন্ত্র’ বলে অভিহিত করছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, লন্ডনে খালেদা-তারেক কী করছেন সে বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। আর ‘লন্ডনে বসে খালেদা জিয়া আগামী নির্বাচন ভণ্ডুল করে অশুভ শক্তিকে ক্ষমতায় আনার ষড়যন্ত্র করছেন’ বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মো. নাসিম।

‘বিএনপি নেতারা সময় বুঝে ভারতপ্রীতিও করেন আবার ভারতভীতিও করেন বলে গত ১৩ জুলাই এক সংবাদ সম্মেলনে মন্তব্য করেছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, যেহেতু নির্বাচনের হাওয়া বইছে, সে জন্য ইদানীং তাদের মধ্যে ভারতপ্রীতি দেখা যাচ্ছে। ভেতরের কথা বলতে চাই না। আমাদের আস্থা জনগণ। ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য কোনো বিদেশি শক্তির প্রতি আমরা চাতক পাখির মতো চেয়ে থাকি না’—বলেন ওবায়দুল কাদের।
এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরুল্লাহর মত হচ্ছে, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের কারণে প্রতিবেশী ভারতসহ শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর অবস্থান বর্তমান সরকারের দিকেই থাকবে।  তিনি বলেন, বাস্তবতা হচ্ছে—বাংলাদেশের রাজনীতি এখন আর জটিল নয়, অনেক সহজ হয়ে গেছে। কারণ এখনকার ইস্যু হচ্ছে সন্ত্রাসবাদ। সেই প্রশ্নে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা বিশ্বে স্পষ্ট বার্তা দিয়েছেন, সন্ত্রাসবাদে বাংলাদেশের মাটি ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না।

এক প্রশ্নের জবাবে কাজী জাফরুল্লাহ বলেন, নির্বাচনের আগে আঁচ-অনুমান অনেক থাকবে। রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই। তবে আজকের এই মুহূর্তের অবস্থান হলো শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর অবস্থান আওয়ামী লীগের পক্ষে। তবে এটি ঠিক যে, যেকোনো ঘটনায় পরিস্থিতি ঘুরে যায়। তখন আবার আমরা পরিস্থিতি নিয়ে চিন্তা করব।
বস্তুত, বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসার নেপথ্যে বিদেশি শক্তির সমর্থনের বিষয়টি আলোচনায় বেশি গুরুত্ব পায় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর। ভারতের সমর্থন থাকায় সরকার ওই নির্বাচন করতে পেরেছিল বলে আলোচনা আছে। আর এর পরিপ্রেক্ষিতেই বিএনপি দলের বিদেশনীতিতে পরিবর্তন এনে ভারতমুখী হয়। তারা বিজেপিকে নিয়ে আশাবাদী হয়ে ওঠে। লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসকে পরাজিত করে দলটি ক্ষমতায়ও বসে। কিন্তু বিএনপির সঙ্গে দেশটির সম্পর্কের কোনো দৃশ্যমান উন্নতি এখনো হয়নি। একইভাবে গত বছরের নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হিলারি ক্লিনটন হেরে যাওয়ায় আশাহত হয় বিএনপি।

তবে ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট ছাড়াও দক্ষিণ এশিয়া তথা বঙ্গোপসাগরে প্রভাব বিস্তারের লড়াইয়ে ভারত-চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের নানা হিসাব-নিকাশকে সামনে রেখে দলটি ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
গত বছরের অক্টোবরে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সফরে বাংলাদেশের সঙ্গে দুই হাজার ৪০০ কোটি ডলারের সমঝোতা স্মারক সই হয়। পরে দেশটির অর্থায়নে নৌবাহিনীর জন্য দুটি সাবমেরিন কেনার ঘটনায় ভারত রুষ্ট হয় বলে দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। সাম্প্রতিককালে ভুটানের দোকলাম করিডরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ভারত ও চীন মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে। এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সরকারকে দুটি দেশের সঙ্গে ভারসাম্যপূর্ণ সম্পর্ক রক্ষা করে চলতে হচ্ছে। বিএনপি আশাবাদী, এশিয়ায় ভূ-রাজনৈতিক উত্তেজনা বৃদ্ধিতে চাপের মুখে থাকা সরকার শেষ পর্যন্ত সবাইকে খুশি করে চলার নীতিতে সফল নাও হতে পারে। আর এমন সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখে আগামী নির্বাচনের আগে ভারতকে তারা নিরপেক্ষ ভূমিকায় পাবে বলে আশা করছে। আর এমনটি হলে ‘সহায়ক সরকারের’ দাবি মানতে সরকারকে তারা চাপের মুখে ফেলতে পারবে বলে মনে করে।

গত ১৫ জুন ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের এক ইফতার পার্টিতে দেওয়া বক্তৃতায় খালেদা জিয়া বলেন, ২০১৪ সালে নির্বাচন হয়নি। কেউ ওই নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেয়নি। একমাত্র আমাদের প্রতিবেশী দিয়েছে। কিন্তু এবার তাদের সুরও বদল হয়েছে। তারা বুঝতে পেরেছে তারা ভুল করেছে, ঠিক করেনি। সে জন্য এবার বিএনপি ও ২০ দল যদি না যায় এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। আওয়ামী লীগ একলা নির্বাচন করতে পারবে না।

জানতে চাইলে যুক্তরাষ্ট্র থেকে টেলিফোনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বিশ্বায়নের এই যুগে গণতন্ত্র, জঙ্গিবাদ, সুশাসনসহ বিভিন্ন প্রশ্নে বৃহৎ রাষ্ট্রগুলো আর নীরব থাকছে না। বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। ফলে এ দেশে গণতন্ত্রকে সুসংহত করা; সর্বোপরি আগামীতে গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচন আন্তর্জাতিক মহলের দাবি। তিনি বলেন, বাংলাদেশে নির্বাচন ঘনিয়ে এলে আন্তর্জাতিক মহল কার্যকর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখবে বলে বিএনপি প্রত্যাশা করে।

গত ৫ জানুয়ারির মতো পরিস্থিতি আগামী নির্বাচনে থাকবে না বলে মনে করছে দুই জোটের বাইরে থাকা দলগুলো। ফলে তারাও রাজনীতিতে তত্পর হয়ে উঠেছে। গত ১৩ জুলাই জেএসডির সভাপতি আ স ম রবের উত্তরার বাসায় এবং গত বুধবার বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বাসায় বৈঠক করেছে তৃতীয় ধারার ওই দলগুলো। দলগুলোর নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর ভূমিকা দেখেই তারা এগোবেন। তবে এরই মধ্যে কিছু ‘সবুজ সংকেত’ পাওয়া গেছে বলে ওই নেতাদের কেউ কেউ জানিয়েছেন।

জানতে চাইলে বিকল্প ধারার সভাপতি সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী  বলেন, এ দেশের রাজনীতিতে আন্তর্জাতিক মহলের ভূমিকা থাকা উচিত নয়। তবে হ্যাঁ, অপেক্ষাকৃত দুর্বল দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ বিষয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্রগুলো প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করে। পাশাপাশি কোনো কোনো দলের প্রতি কোনো কোনো দেশের বিশেষ সহানুভূতি বা রাজনৈতিক যোগাযোগ থাকতে পারে। আবার ওই দেশটিরই এ দেশে আরেক দলের সঙ্গে সম্পর্ক হালকা, আবার কারো সঙ্গে বিরূপ। সে ক্ষেত্রে কিছু প্রভাব থাকাও অস্বাভাবিক নয়। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তৃতীয় ধারার দলগুলো নিজেদের মধ্যে ঐক্য গড়ার চেষ্টা করছে। এর সঙ্গে অন্য দেশের সংশ্লিষ্টতা খোঁজা ঠিক হবে না।

আর পড়তে পারেন