সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নানা সংকটে ভুগছে কুমেকের ফরেনসিক বিভাগ: ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরাও

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৩, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

যাত্রা শুরুর দুই যুগ পেরোনোর পরও মাত্র তিনজন চিকিৎসক নিয়ে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগ। জনবল, যন্ত্রপাতি ও অবকাঠামোগত সমস্যার কারণে লাশের ময়নাতদন্তে নানা প্রতিবন্ধকতার শিকার হতে হচ্ছে স্পর্শকাতর এ বিভাগটিকে। লাশ সংরক্ষণের মরচুয়ারি কুলার এবং এসি বিকল থাকায় ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে সংশ্নিষ্টদের।

ময়নাতদন্তের পাশাপাশি এমবিবিএস কোর্সের তৃতীয় বর্ষের ক্লাস, পরীক্ষা, খাতা মূল্যায়ন ও আদালতে মামলার সাক্ষ্য দেওয়াসহ বিভিন্ন বিষয় সামলাতে হচ্ছে অল্প জনবল দিয়ে। ফলে প্রচণ্ড চাপের মধ্যে রয়েছেন কর্মরত চিকিৎসক থেকে সবাই। মর্গ সমস্যার কারণে কলেজের শিক্ষার্থীরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন ফরেনসিক বিভাগের ব্যাপারে।

১৯৯১-৯২ শিক্ষাবর্ষে ৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করে স্থানীয় কুচাইতলীতে। বর্তমানে এখানে প্রতি বছর ১৬০টি আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। মেডিকেল কলেজের উত্তর পাশের পুরোনো একটি ভবনের নিচতলায় স্যাঁতসেঁতে কক্ষে ১৯৯৫ সালে শুরু হয় ময়নাতদন্তের কাজ। প্রতি বছর এখানে গড়ে সাত শতাধিক মরদেহের ময়নাতদন্ত করা হয়। ২০২০ সালে এখানে ময়নাতদন্ত হয়েছে ৭৪৪ জনের। চলতি বছরের ২২ আগস্ট পর্যন্ত হয়েছে ৫৪৬ জনের। এ ছাড়া ধর্ষণের শিকার ভিকটিমদের ডাক্তারি পরীক্ষার পাশাপাশি বয়স নির্ধারণসহ বিভিন্ন প্রয়োজনে ডিএনএ নমুনা নেওয়া হয়েছে ১৯১ জনের।

এ বিভাগে রয়েছেন একজন সহকারী অধ্যাপক এবং দুইজন প্রভাষক। কর্মচারী রয়েছেন একজন মর্গ সহকারী (ডোম), একজন অফিস সহকারী ও দুইজন অফিস সহায়ক। শূন্য রয়েছে একজন করে অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও প্রভাষকের পদ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে এই ময়নাতদন্ত কক্ষের এসি বিকল। চারটি মরদেহ রাখার মরচুয়ারি ফ্রিজটিও প্রায় দুই বছর ধরে নষ্ট। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংশ্নিষ্টরা জানান, হত্যা, অজ্ঞাত লাশ ও ধর্ষণের ঘটনায় ফরেনসিক সায়েন্স তদন্তকে সমাধানযোগ্য করে তোলে। এ কলেজের ফরেনসিক বিভাগে দুই যুগেও আধুনিকতার ছোঁয়া লাগেনি। ফলে ময়নাতদন্তের বিষয়ে শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক অনুশীলন কার্যক্রমও সংকুচিত হয়ে পড়েছে। ময়নাতদন্ত কক্ষের এসি বিকল থাকায় দুর্গন্ধের কারণে গলিত, অর্ধগলিত লাশ নিয়ে কাজ করতে ও ব্যবহারিক শিক্ষা নিতে আগ্রহী হচ্ছেন না শিক্ষার্থীরা। এসব কারণে এ বিভাগে চিকিৎসক সংকটও কাটছে না।

বিভাগের ডোম (মর্গ সহকারী) মাহে আলম বলেন, পুলিশের সুরতহাল ও ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকদের পরামর্শ মতে লাশ কাটি। কিন্তু লাশ কাটার উপকরণ, হাতের গ্লাভস, সুই-সুতা, পানি ইত্যাদির সংকট রয়েছে।

ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সহকারী অধ্যাপক ডা. শারমিন সুলতানা বলেন, বিভাগে আমাদের তিনজনকে শিক্ষা কার্যক্রমের পাশাপাশি ময়নাতদন্ত এবং মাঝেমধ্যে মামলায় সাক্ষ্য দিতে আদালতেও যেতে হয়। এ ছাড়া ভিকটিমদের ডাক্তারি পরীক্ষা, বয়স নির্ধারণসহ ডিএনএ নমুনা নিতে হয়। তিনি বলেন, মর্গের মরচুয়ারি কুলার বিকল থাকায় লাশ গরমে ফুলে ওঠায় অনেক সময় ময়নাতদন্ত করে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ নিশ্চিত করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। ময়নাতদন্তের পর ট্রান্সপোর্ট সমস্যার কারণে অনেকে লাশ রাখতে চাইলে সেটাও করা যাচ্ছে না। এসব সমস্যার সমাধানে কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করা হয়েছে।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মোস্তফা আজাদ কামাল বলেন, নতুন অর্থবছরেই অবকাঠামোগত সমস্যাগুলো সমাধান করে এটিকে আধুনিক মর্গে পরিণত করার লক্ষ্যে গণপূর্ত বিভাগের সঙ্গে কথা বলা হবে। তিনি বলেন, কখন জনবল চাহিদা পূর্ণ হবে সে সম্পর্কে এখনই নিশ্চিত কিছু বলা যাচ্ছে না।

রিপোর্ট: কামাল উদ্দিন।