মঙ্গলবার, ৯ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নাঙ্গলকোট ইউপি নির্বাচনে আচরণ বিধি ভঙ্গ করে চেয়ারম্যান প্রার্থীর তোরণ নির্মাণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২৩, ২০১৭
news-image

 

মো: কামাল হোসেন জনি:
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে ৮ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে নির্বাচনী এলাকা।

৮ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী ৩০ জন, সাধারণ সদস্য পদে প্রার্থী ২৮৫ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ৬১ জনের মধ্যে গত ৭ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্ধ দেওয়া হয়। এরপর থেকে নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে আচরণ বিধি লঙ্গন করে আ.লীগ দলীয় প্রার্থী তোরণ নির্মাণ করছেন।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, ইউনিয়ন পরিষদ (নির্বাচন আচারণ) বিধিমালা, ২০১০ অত:পর উক্ত বিধিমালায় বলা হয়েছে, বাড়ীর দেওয়াল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, দোকান পাট, গাছ-পালা, বিদুৎ লাইনের খুটি, জীবন্ত প্রাণী ব্যাবহার, মিছিল বা শো-ডাউন, দেওয়ালে লিখন, একের অধিক মাইক্রোফোন, মসজিদের সামনে, সভা সমাবেশ ও দুইটি মাইক ব্যাবহার নিষেধ। এসব আচরণ বিধি লঙ্গন। যদি কেউ তা লঙ্গন করে তাহলে ৬ মাসের কারাদন্ড অথবা ১০ হাজার টাকা অর্থ দন্ডে উভয় দন্ডে দন্ডিত হইবে।

গত কয়েক দিন ধরে সরজেমিনে ঘুরে দেখা যায়, প্রায় সবখানে চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সদস্য প্রার্থীদের পোষ্টার সেটানো দেখা গেছে। হাট-বাজার ও গ্রামে গ্রামে টানানো হয় প্রার্থীদের পোষ্টার। তবে নিয়ম না মেনে কিছু কিছু স্থানে নির্বাচনী আচারণ বিধি লঙ্গন করে। স্কুল, দোকান পাট, গাছ-পালা, বাড়ীর দেওয়াল, দুটি মাইক, রাত ১০টা পর্যন্ত মাইক বাজানো, জীবন্ত প্রাণী ব্যবাহার, রঙ্গিন মার্কা, মসজিদের সামনে মাইক বাজানো এবং পোষ্টার সাটানোর করাণে রক্ষা পাচ্ছে না বিদুৎতের খুঁটিও।

তারা এমন ভাবে আচরণ বিধিলঙ্গন করছে যেন নির্বাচন অফিস থেকে কোন কিছু বলা হয়নি। আচার বিধি নিয়ে কথা বলতে গেলে, চেয়ারম্যান, সদস্য প্রার্থীরা বলেন, আসলে আমরা ব্যাস্ত থাকার কারণে আচরণ বিধির বই পড়তে পারি নাই।

দৌলখাঁড় ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল কালাম ভূঁইয়া মাঠে জনসভার আয়োজন করে এবং আচরণ বিধিকে তোয়াক্কা না করে দুটি তোরণ (গেইট) নির্মাণ করে সমাবেশের জন্য। মাঠে চেযার, টেবিল প্রধান অতিথির আসন প্রস্তুত করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চেয়ারম্যান প্রার্থী দৌলখাঁড় ইউপির আ.লীগের (নৌকা) মনোনীত প্রার্থী আবুল কালাম ভূঁইয়া বলেন, দলীয় প্রতিক (নৌকা) পেয়েছি। আপনারা যা পারেন তা লিখেন। গত কিছিু দিন আগে ডিসি, এসপি আমার গেইট দেখেছে, আপনাদের লেখায় আমার নির্বাচন বাতিল হবে না।

অপরদিকে আদ্রা দক্ষিনের বিএনপির মনোনীত (ধানের শীষ) প্রতিকের প্রার্থী মাঈন উদ্দিন জানান, সবাই লাগিয়েছে, তাই আমিও লাগিয়েছি।

সূত্রে আরো জানা যায়, সবাই প্রতিযোগিতায় নেমেছে কে কত বেশি পোষ্টার নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে সব খানে পোষ্টার লাগিয়েছে।

এ বিষয়ে শনিবার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো: আব্দুস সালাম জানান, ৮ ইউপিতে ৪ জন ম্যাজেস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তারা মাঠে আছে। আচরণ বিধি লঙ্গন দেখা মাত্রই ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করা হবে।

আর পড়তে পারেন