রবিবার, ১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নাঙ্গলকোটে ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতু তৈরি হলেও নেই সড়ক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১৬, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার বক্সগঞ্জ ইউনিয়নের অষ্টগ্রাম, তফবন, চাঁন্দপুর, মোহরবাগ গ্রামের খালের ওপর ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। অথচ খালের দুই পাড়ের সঙ্গে যুক্ত করা এই সেতুতে নেই কোনো সংযোগ সড়ক।

ফলে উদ্বোধনের পর গত দুই বছরে সড়কবিহীন সেতুটি কালের সাক্ষী হিসেবে দাঁড়িয়ে রয়েছে। সেতু নির্মাণ করার আগে সাধারণ মানুষ বা যানবাহন চলাচলের জন্য সেতুর উভয় পাশে রাস্তা থাকার কথা থাকলেও সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় দু’পাশে নেই কোনো সরকারি কিংবা বেসরকারি মালিকানার কোনো রাস্তা। হাজার হাজার একর কৃষি জমির মাঝখানে নির্মাণ করা হয়েছে এই সেতুটি। সড়ক ছাড়া সেতু নির্মাণ করায় সরকারের প্রায় সাড়ে ৩২ লাখ টাকা পানিতে গেছে এমনটা মনে করছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বক্সগঞ্জ ইউনিয়নের দক্ষিণ-পূর্বদিকে অবস্থিত চাঁন্দপুর গ্রামের সঙ্গে ফেনীর দাগনভূঁইয়া উপজেলার সিন্দুরপার ইউপি’র মোহরবাগ গ্রামের সংযোগ রয়েছে। সেতুর দুই পাশে রয়েছে বোরো ধানের জমি। ব্যক্তিগত লাভবান হওয়ার জন্য সেতু নির্মাণ করা হয়েছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানায়, গত ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের সেতু ও কালভাট নির্মাণ প্রকল্পের অধীনে এই সেতুর জন্য বরাদ্দ দেয়া হয় ৩২ লাখ ৩৯ হাজার ৬৩৮ টাকা। সেতুটির দৈর্ঘ্য ৪০ ফুট। ফলক অনুযায়ী ২০১৯ সালের ৭ মার্চ সেতুটির উদ্বোধন দেখানো হয়েছে।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, সড়ক নির্মাণ করার আগে কীভাবে সেতু নির্মাণ করা হয়েছে? তাছাড়াও এখানে সরকারি বা ব্যক্তিগত কোনো সড়ক নেই। সরকারের প্রায় সাড়ে ৩২ লাখ টাকার সেতু এখন জলে যেতে বসেছে। দ্রুত রাস্তার দাবিও জানান এলাকাবাসী।

ওই এলাকার তাজুল ইসলাম, বিকাশ চঁন্দ আচার্য, মো. আক্তার হোসেন ও চানু মিয়া জানান, এখানে সেতু নির্মাণে প্রায় ২০ হাজার লোকের উপকার হওয়ার কথা, সেখানে রাস্তা না থাকায় সেতুটির কোনো সুফল পাচ্ছে না কেউ। সেতুর পাশে অনেকের কৃষিজমি রয়েছে। সরকারি বা ব্যক্তিগত কোনো সড়ক নেই। এছাড়া ব্যক্তিগত জমির ওপর কেউ সড়ক নির্মাণ করতে দেবে কিনা এটা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে।

বক্সগজ্ঞ ইউনিয়ন পরিষদের যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম শিপন ঠিকাদার হিসেবে সেতু নির্মাণের কাজ করেন।

এ বিষয়ে ঠিকাদার সেলিম শিপন বলেন, এলাকাবাসীর উপকারের স্বার্থে সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। সড়কের আগে কীভাবে সেতু নির্মাণ করা হয়েছে, এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নাঙ্গলকোট উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পি.আই.ইউ) শামীমা আক্তার বলেন, আমার যোগদানের পূর্বে সেতুটির জন্য অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সেতুর দু’পাশে সড়ক নির্মাণ করে দেয়া হবে।

আর পড়তে পারেন