সোমবার, ১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নাঙ্গলকোটে ভুল চিকিৎসায় শিশু রেশমার পায়ে পচন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৮
news-image

 

সেলিম সজীবঃ
নাঙ্গলকোটে ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় রেশমা আক্তার (৮) নামের এক শিশুর পায়ে পচন ধরেছে। সে উপজেলার মক্রবপুর ইউপি’র টুয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের মেয়ে। গত ৪ মাস ধরে লাকসাম উপজেলা সদরের ইউনিটি ট্রমা এন্ড জেনারেল প্রাইভেট হাসপাতালের ডাক্তার এবং নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত ডাক্তার শাহেদ আনোয়ারের ভুল চিকিৎসায় ডান পায়ে পচন ধরেছে বলে অভিযোগ করেন শিশুটির পরিবার। বর্তমানে শিশুটি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছে। জানা যায়, গত ১৫ই এপ্রিল নাঙ্গলকোট উপজেলার মক্রবপুর ইউনিয়নের টুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে রাস্তা পারাপারের সময় সিএনজি অটোরিকশার ধাক্কা লেগে পায়ের গোড়ালিতে আঘাত পায় শিশু রেশমা।

ওইদিন তাকে চিকিৎসার জন্য লাকসাম ইউনিটি ট্রমা এন্ড জেনারেল হাসপাতাল ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসা দেন ডাক্তার শাহেদ আনোয়ার ভূঁইয়া। তিনি রেশমাকে ১ মাস চিকিৎসা দেয়ার পর অপারেশনের মাধ্যমে পায়ের উরু থেকে চামড়া কেটে ক্ষতস্থানে প্রতিস্থাপন করেন।

পরে আড়াই মাস অতিবাহিত হলে ক্ষতস্থানে চামড়া জোড়া না লেগে আস্তে আস্তে পুরো পায়ে পচন ধরে। বর্তমানে শিশুটির আক্রান্ত পা কেটে ফেলার আশঙ্কা করেন রেশমার পরিবার। এ বিষয়ে রেশমার মা নার্গিস আক্তার অভিযোগ করে বলেন, ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় আমার মেয়ের ডান পায়ে পচন ধরেছে। অভিযুক্ত চিকিৎসক ডা. শাহেদ আনোয়ার ভূঁইয়া বলেন, রেশমাকে আমি অপারেশন করেছি। আমার চিকিৎসাধীন ছিল। এরপর কোথায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে আমি জানি না।
কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান বলেন, শিশুটি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। শিশুটির অবস্থা বর্তমানে উন্নতির দিকে রয়েছে। শিশুটির পরিবার লিখিত অভিযোগ করলে তদন্ত কমিটি গঠন করে অভিযুক্ত ডাক্তার দোষী প্রমাণিত হলে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।