বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নাঙ্গলকোটে নিখোঁজের দেড় মাস পর ডোবা থেকে কিশোরের গলিত লাশ উদ্ধার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১৫, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

নিখোঁজের দেড় মাস পর কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে রাকিব (১৫) নামের এক কিশোরের গলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রবিবার (১৫ নভেম্বর) উপজেলার জোড্ডা পশ্চিম ইউপির নোয়াপাড়া গ্রামের পশ্চিম পাড়ায় ফসলি মাঠে আহসান উল্ল্যাহ নামের এক প্রবাসির পরিত্যক্ত ডোবা থেকে ওই কিশোরের গলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সে এই গ্রামের ভ্যান চালক সায়েদুল হকের ছেলে।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, রাকিব দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মানুষের গাছ থেকে নারিকেল ও সুপারি পাড়ত। মাঝেমধ্যে ভ্যান চালক শরীফ ও চা দোকানদার সালাউদ্দিনের কাজ করত। এর পাশাপাশি তাদের বাড়ির পাশে প্রবাসি সায়েদুল হকের বাড়িতে কাজ করতেন রাকিব। গত দেড় মাস পূর্বে রাকিব চট্টগ্রাম যাওয়ার কথা বলে প্রবাসি সায়েদুল হকের স্ত্রী মুরশিদা বেগমের কাছ থেকে ৫০ টাকা নিয়ে বাহির হয়ে যায়। পরে নিহতের পিতা সায়েদুল হক রাকিবকে খোঁজার জন্য মুরশিদার কাছে গেলে সে বলেন রাকিব তার কাছ থেকে ৫০ টাকা নিয়ে চট্টগ্রাম চলে গেছে। এরপর থেকে আর কোন খবর নেই। রাকিব তার পরিবারের কাউকে কিছু না বলে প্রায় সময় চট্টগ্রাম যেতেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আজ সকালে ওই গ্রামের শাহজাহানের ছেলে নিজাম উদ্দিন গবাদিপশুর জন্য ঘাস কাটার উদ্দেশ্যে প্রবাসি আহসান উল্ল্যার পরিত্যক্ত ডোবায় গেলে একটি জিন্স প্যান্ট ভাসতে দেখে সে। পরে সে ওই প্যান্টি তার দিকে টান দিলে প্রচন্ড দুর্গন্ধ বের হয়। তা দেখে চিৎকার করতে করতে পালিয়ে যায় মিজান এবং প্রচন্ড ভয়ও পায় সে। পরে আশেপাশের লোকজন জড় হয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে ডোবা থেকে গলিত মরদেহ উদ্ধার করলে পরণে থাকা ওই জিন্স প্যান্ট দেখে নিহতের মা বকুল বেগম শনাক্ত করেন, এটি তার ছেলে রাকিবের মরদেহ। পরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

নিহতের মা বকুল বেগম বলেন, তার ছেলে রাকিব তাদের পাশের বাড়ির প্রবাসি সায়েদুল হকের বাড়িতে কাজ করতেন ওখানে থাকতেন।গত দেড় মাস পূর্বে রাকিবকে না পেয়ে ওই বাড়িতে গেলে প্রবাসির স্ত্রী মুরশিদা বেগম বলেন রাকিব আমার কাছ থেকে ৫০ টাকা নিয়ে চট্টগ্রাম চলে গেছে। এরপর থেকে আর কোন খবর পায়নি তারা। এখানে এসে জিন্স প্যান্ট দেখে শনাক্ত করেন এটি তার ছেলে রাকিব। কেউ তার ছেলেকে হত্যা করে এখানে লাশ গুম করেছে। তিনি এই হত্যার কান্ডের বিচারের দাবি জানান।

এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের গলিত মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতের পরিবার কেউ অভিযোগ দেয়নি। আর এ ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য কাজ করছেন পুলিশ। ময়না তদন্তের জন্য নিহতের গলিত লাশ কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। রিপোর্ট আসলে মৃত্যুর আসল কারণ জানা যাবে।

আর পড়তে পারেন