সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নাঙ্গলকোটে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ: দুই মাসে ৫০০ আক্রান্ত, মৃত্যু ২৭

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১, ২০২১
news-image

 

মোঃ বশির আহমেদ, নাঙ্গলকোটঃ

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। নাঙ্গলকোট পৌরসদরসহ ১৬টি ইউনিয়নের গ্রামে-গ্রামে সর্দি, জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে করোনা পরীক্ষার জন্য বিভিন্ন বয়সী মানুষজন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভীড় করছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা বুথে প্রতিদিন প্রায় শতাধিক ব্যক্তি নমুনা পরীক্ষা দিচ্ছেন। শনিবার ১শ ১৩জন করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দিয়েছেন। নমুনা পরীক্ষায় প্রতিদিন ২০ থেকে ৫০জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হচ্ছে।

শুধুমাত্র গত দুই মাসে ৫শ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। করোনা পরীক্ষার নমুনা দেওয়ার ৩/৪ দিনের মধ্যেও রিপোর্ট না পাওয়ায় করোনা উপসর্গ নিয়ে নমুনা পরীক্ষা দেওয়া রোগীদের মধ্যে অস্বস্তি বিরাজ করছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, এ পর্যন্ত ১হাজার ২শ ১৭ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। ৬শ ৮৩ জন সুস্থ হয়েছেন। হোম আইসোলেশনে ৩শ জন এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আই সি ইউ এবং করোনা ওয়ার্ডে ১২ জন করোনা আক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন আছেন। এপর্যন্ত মারা গেছেন ২৭ জন।

এছাড়া সরকারি হিসেবের বাহিরে প্রতিদিন বিভিন্ন গ্রামে করোনা পজিটিভ ও উপসর্গ নিয়ে একাধিক ব্যক্তির মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। শুক্রবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন উপজেলার পেড়িয়া ইউনিয়নের পূর্ব চাঁন্দপুর গ্রামের এনায়েত উল্লাহ মজুমদার মরা যান। একইদিন রাতে রায়কোট উত্তর ইউনিয়নের মন্তলী মধ্যমপাড়ার মজিবুর রহমান (৬০) মারা যান।
করোনা আক্রান্ত মূমুর্ষ রোগীদের তাদের স্বজনরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, লাকসাম এবং কুমিল্লার বিভিন্ন হাসপাতালে বেড না পেয়ে ফিরে আসছেন। আবার অনেকে দেন-দরবার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ বেড পাচ্ছেন। অনেকের ভাগ্যে হাসপাতালের করোনা ইউনিটের সাধারণ বেডও জুটছে না। আবার অনেক রোগী টাকার অভাবে বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে না পেরে বাড়িতে ফিরে নিশ্চিত মৃত্যুকে বরণ করে নিচ্ছেন।

২৯ জুলাই তিনজন বিশিষ্ট ব্যক্তির করোনায় মারা যাওয়ার খবর পাওয়া যায়। তারা হলেন, নাঙ্গলকোট উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার পৌরসভার হরিপুর গ্রামের ইসহাক মিয়া (৮০), কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারী বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডাঃ জাহাঙ্গীর হোসেন ভূঁইয়ার শতবর্ষী পিতা উপজেলার পেড়িয়া ইউনিয়নের বড়স্বাঙ্গিশ^র গ্রামের হাবিবুর রহমান ভূঁইয়া (১০২) ও ফেনীর শর্শদি দারুল উলুম মাদ্রাসার সাবেক মোহাদ্দেস ও উপজেলার রায়কোট উত্তর ইউনিয়নের ছুপুয়া গ্রামের মাওলানা মীর হোসেন মারা যান। এছাড়া উপজেলার পেড়িয়া ইউনিয়নের কৈয়া গ্রামের আমান উল্ল্যা মজুমদার মারা যান। ৩০ জুলাই উপজেলার আদ্রা উত্তর ইউনিয়নের আটিয়াবাড়ি গ্রামের আবদুল লতিফের ছেলে জসিম (২৪), উপজেলার বাঙ্গড্ডা ইউনিয়নের শ্যামপুর গ্রামের আবদুস সোবহান ( ৬০) মারা যান। এভাবে প্রতিদিন কোন না গ্রামে করোনা উপসর্গ অথবা করোনা পজিটিভ হয়ে অনেকে মারা যাচ্ছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লামইয়া সাইফুল ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট তানজিম সোহানিয়া থানা পুলিশের সহযোগিতায় কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন ও স্বাস্থ্য বিধি মানতে নাঙ্গলকোট পৌর বাজারসহ বিভিন্ন বাজারে নিয়মিত অভিযান অব্যাহত রেখেছেন। লকডাউন অমান্যকারীদের জরিমানাও করছেন।

এদিকে নাঙ্গলকোটের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য বিনামূল্যে অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ, লাশ দাফন, মাস্ক বিতরণ, সচেতনামূলক মাইকিং, টিকার রেজিষ্ট্রেশন ও দুস্থদের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান কর্মসূচী অব্যাহত রেখেছেন। এর মধ্যে নাঙ্গলকোটের বিভিন্ন বিশ^বিদ্যালয়ে ও মেডিক্যাল কলেজে অধ্যয়নরত ছাত্র/ছাত্রীদের সংগঠন ‘‘সংশÍক’’ এর আহবায়ক ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জহিরুল ইসলাম, তাকওয়া ফাউন্ডেশন নাঙ্গলকোট শাখার সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন রাহাত, কোভিড -১৯ বটতলী প্রবাসী কল্যাণ ফোরাম ও মানবিক চলন, লোটাস কামাল অক্সিজেন ব্যাংকসহ বিভিন্ন সংগঠন কাজ করে যাচ্ছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডঃ দেব দাস দেব বলেন, সারা বাংলাদেশের মত নাঙ্গলকোটেও করোনা পরিস্থিতি খারাপ আকার ধারণ করেছে। প্রতিদিন ২০ থেকে ৫০ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হচ্ছে। এ পর্যন্ত ১হাজার ২শ ১৭ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। সুস্থ হয়েছেন ৬শ ৮৩জন। হোম আইসোলেশনে ৩শ জন চিকিৎসাধীন আছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আই সি ইউ এবং করোনা ওয়ার্ডে ১২ জন চিকিৎসাধীন আছেন। এপর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন ২৭ জন। বিশেষ করে গত ২৭ মে থেকে ৩০ জুলাই ৫শ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে।

এছাড়াও সবার মাস্ক পরিধান, দ্রুত রেজিষ্ট্রেশন করে টিকে নিতে এবং প্রয়োজন ছাড়া বাহিরে বের না হওয়ার জন্য এলাকাবাসীর প্রতি আহবান জানান তিনি।

 

আর পড়তে পারেন