সোমবার, ১২ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ধন্যবাদ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২৩, ২০১৮
news-image

আবরার আল দাইয়ানঃ
এমন একটি শব্দ যা কখনো কখনো সবকিছুকে হার মানায়। আমরা ধন্যবাদ কাকে কাকে দিচ্ছি? এই ছোট একটা শব্দ কিছু কিছু মানুষের মনে এনে দিতে পারে অনাবিল আনন্দ এবং তাদের কাজে শতগুণ উৎসাহ বাড়িয়ে দিতে পারে।। কিন্তু আমরা কি তাদেরকে কখনো ধন্যবাদ দিয়েছি যারা আমাদেরকে ২৪ ঘন্টাই সার্ভিস দিচ্ছে?

মনে করেন একদিন আপনার বাসায় আগুন লাগলো কিন্তু ফায়ার সার্ভিস নেই। তার শেষ পরিণতি হবে ভয়াবহ। আবার মনে করুন আপনি রাস্তা দিয়ে রাতে হাটছেন কিন্তু রাতে রাস্তায় কোনো নাইট গার্ড নেই,সেজন্য আপনার সাথে ঘটতে পারে যেকোনো কিছু কিন্তু আপনাকে বাচানোর জন্য কেউ থাকবে না।ঠিক এইসব অনাকাংখিত ঘটনা থেকে প্রতিনিয়ত এইভাবে যারা আমাদের সমাজকে রক্ষা ও সেবা দিয়ে যাচ্ছে তাদের দিনরাত এক করে শুধু মাত্র আমাদের আমাদের নিরাপত্তার জন্য,আমাদের সুবিধার জন্য তারা তাদের জীবনের সব আনন্দ বিসর্জন দিয়ে সর্বদা আমাদের সেবায় নিয়োজিত।

হে বলছি সেই সকল মহৎ মানুষদের কথা যারা রাতের অন্ধকারে শহরকে ঝাড়– দিয়ে পরিষ্কার করে, যারা রাতের আধারে আমাদের শহরকে পাহারা দেয়। বাসার দারোয়ান হতে শুরু করে পুলিশ, রিক্সার চালক, ইমার্জেন্সি ফার্মেসি, ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা, সিভিলসার্জন,শিক্ষা কর্মকর্তাবৃন্দ, জেলার, নার্স, যানবাহন শ্রমিক, ট্রাফিক পুলিশ , ফায়ারফাইটারসহ আরো অনেকেই। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য জেলা সিভিল সার্জন জনাব মুজিব রহমান,জেলা পুলিশের এডিশনাল এসপি(ডিএসবি) জনাব আজিম-উল-আহসান,এডিশনাল এসপি(উত্তর) জনাব মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন,কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার,কুমিল্লা ফায়ার সার্ভিস,কুমিল্লা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড সচিব(প্রশাসন) জনাব আব্দুস সালাম মানিক ও উপসচিব শাহব উদ্দিনকে তাদের অসামান্য অবদানের জন্য ধন্যবাদ জানানো হয়।

প্রতিদিন প্রতিনিয়ত রাত দিনের পার্থক্য ঘুচিয়ে জীবনের মায়া ত্যাগ করে সর্বদা আমাদেরকে উপহার দিচ্ছে একটি নিরাপদ শান্তির সমাজ।যাদের আমরা আমাদের বিপদে-আপদে সবার আগে পাশে পাই। যাদের ভূমিকা এই সমাজকে করে তুলেছে আরো সুন্দর।

কিন্তু আমরা কি সেই সকল মানুষদের প্রতি কোনো দিন কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছি? হয়ত আমার মতো আপনার উত্তরটা হবে না। কিন্তু তাদের জন্যই আমরা প্রতিটি দিন নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারি,নিরাপদে রাস্তায় চলাচল করতে পারি জীবনের প্রতিটি বিপদে সেই সকল মানুষ গুলিকে সবার আগে পাশে পাই। আমাকে আপনাকে দূর্গন্ধযুক্ত রাস্তায় চলাফেরা করতে হয় না তাদের জন্যই। আর সমাজের সেই সব অনিবার্য মানুষদের কেই ‘ধন্যবাদ ‘ জানানোর সুযোগ করে দিয়েছে ভলান্টিয়ার ফর বাংলাদেশ।

তাদের আয়োজনে সারা দেশে গত ২০ই নভেম্বর ‘ধন্যবাদ ‘জানানো হয় সেই সব সমাজের অবিচ্ছেদ মানুষদেরকে। তার থেকে বাদ যায়নি কুমিল্লাও।

সারাদেশের মতো কুমিল্লায় ভলান্টিয়ার ফর বাংলাদেশের প্রায় অর্ধশতাধিক ভলান্টিয়ার হলুদ টি-শার্ট পরিহিত একই রঙে একসাথে মিলে চার দলে বিভক্ত হয়ে ছড়িয়ে পড়ে সারা কুমিল্লায় সকাল ৮টা থেকে শুরু করে বেলা ১টা পর্যন্ত চলে “গ্রেট কাইন্ডনেস চ্যালেঞ্জ” এ ইভেন্ট।

সকাল থেকে শুরু করে সেচ্ছাসেবী তরুণের দল কুমিল্লার সেই সব মানুষদেরকে ধন্যবাদ জানায়। তার মধ্যে ছিল সাংবাদিক, ডাক্তার, পুলিশ, নার্স, যানবাহন শ্রমিক, ট্রাফিক পুলিশ , ফায়ারফাইটার, জেলা প্রশাসক, সিভিলসার্জনসহ আরো অনেকেই! এ ইভেন্টে উপস্থিত ছিলেন ভলান্টিয়ার ফর বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগের ট্রেজারার নোমান আব্দুল্লাহ, ভিবিডি কুমিল্লার প্রেসিডেন্ট সাইফ বাবু,সাধারণ সম্পাদক হা-মীম আহমেদ, ভাইস-প্রেসিডেন্ট তাহমিনা মিলি,পাবলিক রিলেশন অফিসার আবরার আল-দাইয়ান,এবং ভিবিডি কুমিল্লার ট্রেজারার আজমাইন আর রাফি।

ধন্যবাদ জানানোর পর তাদের সেই হাসি মুখটাই দেখতে চেয়েছিলাম আমরা আর তাই হয়েছে। আমদের চাওয়া ছিল তাদের অনুভব করানো যে যেমন কাজই করে না কেন সে নিজ নিজ জায়গা অসাধারণ আর আমরা তা পেড়েছি আমাদের সফলতা এইখানেই। আমরা সবাই যদি সর্বদা এই সকল ত্যাগী মানুষগুলিকে ধন্যবাদ জানাই তাদের কাজে তাতেই হয়ত তাদের এই অসামান্য কাজে অনেক বেশী অনুপ্রেরণা যোগাবে।

আর পড়তে পারেন