সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দেড় বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ: কুমিল্লায় অর্ধলক্ষাধিক শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার আশঙ্কা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১২, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লায় অর্ধলক্ষাধিক শিক্ষার্থী বিদ্যালয় থেকে ঝরে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। করোনার মহামারিতে দেড় বছরেরও বেশি সময় বন্ধ থাকার পর আজ থেকে খুলেছে বিদ্যালয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরও শিক্ষার্থীরা অনলাইন কিংবা মোবাইল ফোনসহ অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেওয়ার মাধ্যমে শিক্ষক ও বিদ্যালয়ের সঙ্গে নানাভাবে যোগাযোগ রক্ষা করে আসছিল। কিন্তু জেলার প্রায় ৫০ হাজার শিক্ষার্থী শিক্ষক এবং বিদ্যালয় থেকে একেবারেই বিচ্ছিন্ন রয়েছে বলে সংশ্লিস্ট সূত্রে জানা গেছে। এসব শিক্ষার্থীরা আদৌ বিদ্যালয়ে ফিরবে কিনা এ নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসে দেশের বহু পরিবার দারিদ্রসীমার নিচে চলে গেছে। আর ওইসব পরিবারের শিক্ষার্থীরা পারিবারিক অস্বচ্ছলতার কারণে শিক্ষা ছেড়ে কাজে যোগদান করেছে।

সম্প্রতি বেসরকারি একটি সংস্থার জরিপে প্রায় ৪০ হাজার শিক্ষার্থীর অনুপস্থিতির চিত্র উঠে এসেছে। গ্রামীণ পর্যায়ে জরিপ এবং বন্ধ হয়ে যাওয়া পাঁচশতাধিক কিন্ডারগার্টেনে খোঁজ নিলে এর সংখ্যা আরো অনেক বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। তাছাড়া বেশ কিছু মেয়েশিশুকে লকডাউনের মধ্যেই তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাল্যবিয়ে দিয়েছে পরিবার।

এদিকে করোনার কারণে জেলার পাঁচশ’ কিন্ডারগার্টেন স্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে গেছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ২০ হাজার শিক্ষার্থী এখন লেখাপড়া ছেড়ে দিয়েছে।

সূত্র বলছে, শিক্ষা সচেতন কুমিল্লা নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৬ হাজার শিক্ষার্থীর কোনো হদিস মিলছে না। এসব শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। আদৌ এসব শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে ফিরবে কি না এ নিয়ে আশঙ্কা রয়েছে।

এদিকে মহামারি করোনায় বন্ধ হয়ে যাওয়া বিদ্যালয়ের ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের সংখ্যা নির্ধারণে কাজ করছে বেসরকারি উন্নয়নমুলক সংস্থা ব্র্যাকের সহায়তায় উপ-আনুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো। প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচির (পিইডিপি-৪) আওতায় আউট অব স্কুল চিলড্রেন নামে একটি প্রকল্পের মাধ্যমে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো এই কার্যক্রম শুরু করেছে। তাদের লক্ষ্য ঝরে পড়ার হার চিহ্নিত করে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে ফেরানো।

কুমিল্লা ব্র্যাক শিক্ষা কর্মসূচির আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক আশুতোষ চক্রবর্তী বলেন, করোনায় যেসব শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে এ্যাসাইনমেন্ট জমা দেয় নাই তাদেরকেই ঝরে পড়া শিক্ষার্থী হিসেবে ধরা হচ্ছে। ৮ থেকে ১৪ বছর বয়সি ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের জরিপ শুরু করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। যেসব এলাকায় বিদ্যালয় বহির্ভূত শিক্ষার্থী রয়েছে তার একটি ম্যাপিং করে শিক্ষার্থী যাচাই-বাছাই করে ঝরে পড়া শিক্ষার্থী চিহ্নিত করা হবে। একটি জরিপে দেখা গেছে দীর্ঘ সময় বিদ্যালয় বন্ধ থাকার কারণে গ্রামাঞ্চলের শিক্ষার্থীরা বেশি ঝরে পড়ার আশংকা রয়েছে।

তিনি বলেন, চলতি বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত চালানো একটি জরিপে কুমিল্লা জেলায় ৪০ হাজার শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার তালিকা করা হয়। তাদের মধ্যে কুমিল্লা নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৬ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। জেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের বলা হয়েছে, ১২ সেপ্টেম্বর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পর ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের তালিকা করতে। এই তালিকা সম্পন্ন হলে জেলার ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের স্কুলে ফেরানোর বিষয়ে কাজ শুরু করবে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো।

কুমিল্লা জেলা উপ আনুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর সহকারী পরিচালক শেখ মো. নাজমুল হক বলেন, করোনার কারণে বিপর্যস্ত পরিবারের শিক্ষার্থীরা শিক্ষা ছেড়ে বিভিন্ন কাজে যুক্ত হয়েছে। এতে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে। ঝরে পড়া এসব শিক্ষার্থীদের আবারও স্কুলে ফেরাতে কাজ শুরু করেছে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সহযোগী হিসেবে ব্র্যাক কুমিল্লার দায়িত্ব নিয়েছে। তারা ইতোমধ্যে ঝরে পড়া শিশুদের চিহ্নিত করতে জরিপের সঙ্গে অবহিতকরণ সভা করছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. আবদুল মান্নান বলেন, করোনার কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে শিক্ষার্থীরা। বিশেষ করে প্রাথমিক পর্যায়ের ছাত্র-ছাত্রীরা। আজ থেকে স্কুল খোলার সঙ্গে সঙ্গে মনিটরিংয়ের মাধ্যমে সব ছাত্র-ছাত্রীকে আবার শিক্ষাঙ্গনে ফিরিয়ে আনতে স্কুল শিক্ষক ও অভিভাবকদের কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, বিদ্যালয় খোলার দুই-আড়াইমাসের মধ্যেও যদি কোনো শিক্ষার্থী স্কুলে না আসে তাহলে সেটিকে আমরা ঝরে পড়া হিসেবে ধরে নেব। তবে আমাদের মূল লক্ষ্য শতভাগ শিক্ষার্থীকে স্কুলে ফেরানো।
সূত্র:যুগান্তর

আর পড়তে পারেন