মঙ্গলবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দেবীদ্বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মাহবুব

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২৮, ২০২০
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মোঃ মাহবুব উর রহমান সরকার সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন।
সোমবার দুপুরে টেলিভিশন জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন, কুমিল্লার কার্যালয়ে এ মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়।

আসন্ন উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করে তিনি বলেন, দেবিদ্বারের জনগণের পাশে থেকে এলাকার উন্নয়ন করতে তিনি বদ্ধপরিকর। সুযোগ পেলে প্রয়াত চেয়ারম্যান জয়নুল আবেদিনের অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করতে তিনি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। নির্বাচনে নিজেকে যোগ্য প্রার্থী বলেও দাবি করেন তিনি।

উল্লেখ্য গত ০৩ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে দেবীদ্বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জয়নুল আবেদীন করোনায় আক্তান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করলে চেয়ারম্যান পদটি শূন্য হয়।

মো: মাহবুবুর রহমান সরকার ১লা জানুয়ারি ১৯৭০ সালে দেবিদ্বার উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ধামতী ইউনিয়নের অন্তর্গত পদুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা আলহাজ্ব সিরাজুল হক সরকার ও মাতা ফিরোজা হক। কুমিল্লা চান্দিনা পাইলট হাইস্কুল থেকে ১৯৮৫ সালে এস এস সি পাশ করেন, তিনি চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে ভর্তি হন। তিনি স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলন ও ১৯৮৬ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চান্দিনায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী অধ্যাপক আলী আশরাফ এবং দেবিদ্বার আসনে ১৫ দলীয় জোটের মনোনীত প্রার্থী অধ্যাপক মোজাফ্ফর আহমেদ এর বিভিন্ন নির্বাচনী প্রচারণা কার্যক্রমের পাশাপাশি মাধাইয়া স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার নির্বাচনী জনসভায় উপস্থিত ছিলেন।

১৯৮৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর অধীনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে অর্থনীতি বিষয়ে স্নাতক (সম্মান) শ্রেণীতে ভর্তি হন। ১৯৯৫ সালে অর্থনীতিতে অনার্সসহ মাস্টার্স ডিগ্রী সম্পন্ন করেন।

বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের আমলে তিনি হামলা, নির্যাতন ও রাজনৈতিক হয়রানির শিকার হন। ২০০৪ সালে ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আহত ও অন্যান্য নিহতদের প্রতিবাদে নিজ জেলা ও ঢাকায় বিভিন্ন প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় দেবিদ্বার উপজেলায় গোমতী নদীভাঙ্গা দুর্দশাগ্রস্থ মানুষের জন্য বর্তমান (উঃ) জেলা আওয়মীলীগ সেক্রেটারী জনাব রওশন আলী মাস্টার কর্তৃক ত্রাণ বিতরনের কার্যক্রমে উপস্থিত অন্যান্য নেতৃবৃন্দের মধ্যে আওয়মীলীগ উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য সাবেক এমপি ও উপমন্ত্রী জনাব এ এফ এম ফখরুল ইসলাম মুন্সী, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলহাজ্ব জয়নুল আবেদিন ও মাহবুবুর রহমানসহ বিএনপি এমপি ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী কর্তৃক হামলার শিকার হয়ে মারাত্মকভাবে আহত হন।

২০০৫ সালে ৭ই জানুয়ারি মাহবুবুর রহমানের পদুয়া গ্রামের বাসভবন প্রঙ্গণে দেবিদ্বার উপজেলার আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব জয়নুল আবেদিন সাহেবের নেতৃত্বে দেবিদ্বার উপজেলার আওয়মীলীগ যুবলীগ ও অঙ্গসংগঠনের প্রায় ৩/৪ হাজার নেতাকর্মী ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করে দেবিদ্বার উপজেলার আওয়ামী যুবলীগের সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি ঘোষনা করা হয়।

মাহবুবুর রহমানের রাজনৈতিক দূরদর্শিতা, সাংগঠনিক দক্ষতা ও এলাকার সর্বস্তরের জনগণের আন্তরিক সহযোগিতার কারণেই উক্ত সম্মেলনটি তার বাসভবন প্রাঙ্গণে করা সম্ভব হয়েছিলো।

 

২০০৫ সালে মাহবুবুর রহমান সরকার উচ্চ শিক্ষার জন্য যুক্তরাজ্যের ম্যানচেষ্টার গমন করেন এবং ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিষয়ে স্নাতোকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। সেখানে তিনি উচ্চ শিক্ষা গ্রহনের পাশাপাশি যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ ওল্ডহ্যাম শাখার কার্যকরী কমিটির সদস্য হিসেবে অন্তর্ভূক্ত হন ও রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত হন।

তিনি ২০০৯ সালে বাংলাদেশে ফিরে এসে , বিভিন্ন রিয়েল এস্টেট কোম্পানীর উচ্চপদে কর্মরত ছিলেন। পরবর্তীতে নিজ মালিকানাধীন রিয়েল এস্টেট ও নির্মাণ সামগ্রী ব্যবসার কার্যক্রম শুরু করেন।

২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে তিনি দেবিদ্বার আসনের আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী রাজী মোঃ ফখরুল সাহেবের নির্বাচনী প্রচারণা ও কার্যক্রম নিজ এলাকায় অংশগ্রহন ও পরিচালনা করেন। পারিবরিক জীবনে তার পিতা আলহাজ্ব সিরাজুল হক সরকার পি জি হাসপাতালের ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের চীফ ফিজিও থেরাপিষ্ট হিসেবে ১৯৯৭ সালে অবসর গ্রহণ করে ১৯৯৮ সাল থেকে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে যুক্তরাজ্যের ম্যানচেষ্টার সিটির ওল্ডহ্যাম বসবাস করেন। ৬ ভাই ১ বোনের মধ্যে মাহবুব উর রহমান পরিবারের ২য় সন্তান।

দুর্দিনের কান্ডারী মোঃ মাহবুব উর রহমান সরকার ১৯৮৫ সাল থেকে সক্রিয়ভাবে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ রাজনীতির সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত। তিনি দেবিদ্বারের জনগণের জীবনমান উন্নয়ন, শিক্ষার প্রসার, নারী শিক্ষা উন্নয়ন, ক্রীড়া উন্নয়ন, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা , আধুনিকায়ন, আইন শৃঙ্খলার সুশৃঙ্খল ব্যবহার, মাদক নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল ইত্যাদি ক্ষেত্রে দূরদর্শী পরিকল্পনা করে দেবিদ্বারকে একটি আধুনিক মডেল উপজেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে বদ্ধপরিকর।

আর পড়তে পারেন