রবিবার, ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

 দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের উপ নির্বাচন:  চেয়ারম্যান পদে আলোচনায়   হুমায়ুন কবির

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২০, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

তফসিল ঘোষণা হয়েছে কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনের। এরই মধ্যে বেশ কয়েকজন  আ’লীগ দলীয় মনোনয়নের প্রত্যাশায় মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক মো: হুমায়ুন কবির ।

তৃণমূল রাজনীতিবিদদের মতে, মো: হুমায়ুন কবির  আওয়ামী লীগের একজন নিবেদিতপ্রাণ কর্মী ও ত্যাগী নেতা। তিনি মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ পরিবারের সন্তান। রাজপথ কখনো ছাড়েন নি। আওয়ামী লীগের দু:সময়ে সারাদেশের বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের নিয়ে রাজপথ কাঁপিয়েছেন আওয়ামী লীগের পক্ষে।  বিএনপি-জামায়াতের দু:শাসনের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন।  চারদলীয় জোটের রক্ত-চক্ষু উপেক্ষা করে আওয়ামী লীগের পক্ষে সভা, সমাবেশ, মিছিল, মানববন্ধন, অনশনসহ নানা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছেন। চারদলীয় জোটের সময় বোমা-গ্রেনেড হামলা, দ্রব্যমূল্যের ঊধ্বগতির বিরুদ্ধে সারাদেশে দূর্বার আন্দোলনে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের নেতৃত্ব দেন হুমায়ুন কবির। সম্মিলিত নাগরিক আন্দোলনের অন্যতম নেতা হিসেবে কয়েকটি মহাসমাবেশ ও লাগাতার আন্দোলন সফল করতে কঠোর পরিশ্রম করেছেন।

তৃণমূল নেতাকর্মীরা আরো জানায়, ওয়ান ইলেভেন এর সময়  সময় মিছিল-মিটিংসহ রাজনীতি যখন নির্বাসিত ছিলো, ঠিক সে সময় হুমায়ুন কবির মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তির দাবী তুলে প্রথম জরুরী অবস্থা ভঙ্গ করেছিলেন। গোলটেবিল বৈঠক করেছিলেন। তখন কোথাও কাউকে পাওয়া যায়নি।  জননেত্রী শেখ হাসিনাকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার (ফখরুদ্দিন-মঈন) আমলে যখন বিনা কারণে গ্রেফতার দেখিয়ে কারাঅন্তরীণ করা হয়, ঠিক সে সময় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে নেত্রীর মুক্তির দাবী করে তিনি ও তার সংগঠনের পক্ষ থেকে বিবৃতি দিয়েছিলেন, যা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। নেত্রীর মুক্তির দাবীতে সাব-জেলের সামনে অবস্থান করেছেন।

১/১১’র সময় হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিল্লুর রহমানের বাসভবনে গিয়ে নেত্রীর মুক্তির আন্দোলন ত্বরান্বিত করতে  জিল্লুর রহমান ও আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে মতবিনিময় এবং স্মারকলিপি পেশ করেন।

জননেত্রী শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে তিনি ৭ দিনের আল্টিমেটাম দেন।
শুধু তা-ই নয়, তিনি ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর তারিখে অনুষ্ঠিত ‘নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন’-এর আগে নিজ খরচে সারাদেশে নির্বাচনী জরিপ করে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট ক্ষমতায় আসবে বলে আগাম ফলাফল প্রকাশ করে, যা সত্যি হয়।

নির্বাচনের আগে “ভোট দেবেন না, ভোট দেবেন না, রাজাকারদের ভোট দেবেন না” স্লোগানে সারাদেশে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানদের নিয়ে ব্যাপক কর্মসূচি পালন করে, যা সারাদেশে ব্যাপক আলোড়ন হয়।  তিনি ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগ, পরবর্তীতে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন।

মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা জানায়, আওয়ামী লীগের পক্ষে দু:সময়ে হালধরা এক নেতার নাম হুমায়ুন কবির। কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের কর্মীবান্ধব জ্যেষ্ঠ সাংগঠনিক সম্পাদক ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের প্রাণের সংগঠন ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’-এর কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নেতা মো: হুমায়ুন কবির দীর্ঘ বছর রাজনীতি করে কিছুই পাননি। পেয়েছেন শুধু মানুষের ভালোবাসা।

মো: হুমায়ুন কবির একজন পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিক নেতা । দেবিদ্বার তথা কুমিল্লা উত্তর জেলার সবচেয়ে কারা নির্যাতিত নেতা, দুর্দিনে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিতকারী, আওয়ামী লীগের জন্য বহু ত্যাগ স্বীকারকারী নেতা, জেল-জুলুম-নির্যাতনের পরও হার না মানা নেতা উত্তর জেলার বর্তমান সাধারণ সম্পাদক  আলহাজ্ব মো: রোশন আলী মাস্টারের চাচাতো ভাই হুমায়ুন কবির। তার প্রতি মানুষের অকুণ্ঠ সমর্থন রয়েছে।

হুমায়ুন কবির জনপ্রতিনিধি না হয়েও মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন। করোনাকালীন কর্মহীন মানুষের মাঝে জননেত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে নিত্যপণ্যসহ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। তিনি যদি উপজেলা চেয়ারম্যান হন তাহলে অন্যদের চেয়ে মানব কল্যাণে বেশী কাজ করে আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখতে সক্ষম হবেন।

এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক মো: হুমায়ুন কবির জানান, মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা আমার প্রতি সমর্থন দিচ্ছে। দলের প্রতি আমার অতীত কর্মকান্ড যদি বিবেচনা করা হয় তাহলে আমি আশাবাদি । আমার বিশ্বাস স্বাধীনতার মহান স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কণ্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়নের বিষয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিবেন। আর তিনি সব সময়ই দেশ ও জনগণের কথা বিবেচনা করে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। তাই দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদি।

আর পড়তে পারেন