মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দেবিদ্বারে বীমা গ্রাহকের কয়েক কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় ৩ কর্মকর্তা জেল হাজতে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৮, ২০১৭
news-image

 

মোঃ সাইফুল ইসলাম :
দেবীদ্বারে বীমা গ্রাহকদের কয়েক কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ‘গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স’র ৩ কর্মকর্তা জেল হাজতে।
‘গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিঃ’র নামে দেবীদ্বারে ভূয়া শাখা খুলে জেলা ও উপজেলার
তিন কর্মকর্তা শত শত গ্রাহকের কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা গ্রহনপূর্বক কোম্পানীর হিসাবে জমা না দিয়ে ভূয়া রসিদে নিজেরাই আত্মসাত করেন। ওই অভিযোগে বীমা গ্রাহক নাজমা আক্তার কর্তৃক দায়ের করা (জি,আর মামলা নং ১২৯/ তারিখ- ২৭/০৪/২০১৭ইং) মামলায় অভিযুক্ত ‘গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিঃ’র প্রজেক্ট ডাইরেক্টর অহিদুল ইসলাম ভূঞা, কুমিল্লা জেলা কর্মকর্তা মোঃ আবুল বাশার ও দেবীদ্বার উপজেলা সাবেক কর্মকর্তা মোঃ জসীম উদ্দিন বুধবার দুপুরে কুমিল্লা ৪নং জুডিশিয়াল আদালতে হাজিরা দিয়ে জামিনের আবেদন করেন। সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট বিপ্লব দেবনাথ জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাদের জেল হাজতে প্রেঢ়নের নির্দেশ দেন। এসময় আসামী পক্ষের আইনজিবী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এডভোকেট আব্দুল আউয়াল ভূঞা এবং বাদী পক্ষের আইনজীবী ছিলেন বারের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট আবুল কালাম আজাদ তমাল।
মামলার বিবরনীতে উল্লেখ করা হয়, ২০০৩ সালে দেবীদ্বার নিউমার্কেট সামাদ ম্যানশনের চতুর্থ তলায় অবস্থিত গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিঃ দেবীদ্বার শাখায় প্রজেক্ট ডাইরেক্টর অহিদুল ইসলাম ভূঞা, কুমিল্লা জেলা কার্যালয়ের কর্মকর্তা মোঃ আবুল বাশার ও দেবীদ্বার উপজেলা কার্যালয়ের মোঃ জসীম উদ্দিন সহ তিন কর্মকর্তার নেতৃত্বে ৮১ জন মাঠ কর্মী’র সহযোগীতায় প্রায় ৩হাজার ইসলামিক ডি. পি. এস ও একক বীমা সহ বিভিন্ন মেয়াদে করা বীমা গ্রাহকদের কোম্পানীর পাশ বই ও দলিল প্রদানপূর্বক কয়েক কোটি টাকা আত্মসাৎ করে এবং গত বছরের শুরুতেই অফিস বন্ধ করে পালিয়ে যায়।
ওই সময় অনেক বীমা গ্রাহকের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় গ্রাহকরা প্রতিনিয়ত অফিসে ভীড় জমাতে থাকে। এক পর্যায়ে গ্রাহকদের টাকা পরিশোধের আশ্বাস দিয়ে গত বছরের প্রথম দিকে অফিস ফেলে পালিয়ে গেলেও ওই অফিস অদ্যবধি আর খোলা হয়নি। ফলে যাদের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়নি তারাও সময়মতো বীমার কিস্তী পরিশোধ করতে এসে অফিস খুঁজে না পেয়ে জেলা কার্যালয়ে যায়, ওখানে তাদের কোন তথ্য না থাকায় ঢাকা প্রধান কার্যালয়ে যায়, প্রধান কার্যালয়ে তাদের নামে পলিসির কোন টাকা জমা না থাকায় ওরা কান্নায় মুসরে পড়ে। পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় সাবেক উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান এ, কে, এম সফিকুল আলম কামাল ও বিশিষ্ট সালিসদার হাজী মোঃ বশির উল্লাহ মোল্লার নেতৃতে এক সালিস ডাকা হয়। সালিসে অভিযুক্তরা গ্রাহকের টাকা পরিশোধের আশ্বাস দিলেও সময়মতো টাকা পরিশোধ না করায় এবং ওই দুই কর্মকর্তা মোঃ আবুল বাশার ও মোঃ জসীম উদ্দিন লাপাত্তা হওয়ায় গ্রাহদের মাঝে টাকা না পাওয়ার চরম আতঙ্ক ও হতাশা দেখা দেয়।
মামলায় আরো উল্লেখ করা হয়, কিছু গ্রাহকের নামে প্রথম কিস্তির টাকা প্রধান কার্যালয়ে জমাদান পূর্বক তাদের মূল দলিল ও পাশ বই প্রদান করে বিশ্বস্ততা অর্জন করেন। পরবর্তীতে গ্রাহকদের কাছ থেকে নেয়া নিজেদের ছাপানো রসিদ ও দলিলের মাধ্যমে গৃহীত টাকা নিজেরাই আত্মসাৎ করে। যার প্রমান গ্রাহদের দেয়া পাশ বই, রসিদ ও দলিল পত্রাদী। গ্রাহকরা জানান, আমরা হতদরিদ্র, আমাদের মধ্যে এমন অনেক গ্রাহক আছেন যারা তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন আনতে, ছেলে মেয়েদের ভবিষ্যতের আশায় এবং জমাকৃত টাকার দ্বিগুণের আশায় ভিক্ষাবৃত্তি ও জাকাতের টাকাও জমা দিয়েছেন। আজ দিগুণ থাক দূরের কথা আসল টাকারও অস্তিত্ব নেই। কোম্পানীর নামে অফিস, কাগজপত্র, দলিল ও রসিদ ব্যবহার করে গ্রাহকদের সাথে প্রতারনা করেছে। এখানে তারা বিশ্বস্ততা অর্জন করে গ্রাহকদের সাথে প্রতারনা করেছে। রসিদগুলোও একটি অপরটির সাথে মিল নেই, যা নিজেরাই তৈরী করে ওই রসিদে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ করেছে।
বীমা গ্রাহক ইব্রাহীম খলিল নিজামী জানান, আমি আমার নামে ও আমার মায়ের নামে ২টি (ডিপিএস) বীমা করি। পরবর্তীতে জসীম উদ্দিনকে আটক করার পর সে কুমিল্লা শহরের রানীর বাজার একটি মোদী দোকানে নিয়ে যায়। ওই দোকানদারের তথ্য মতে দোকানের চৌকির নিচ থেকে ওই পোকায় খাওয়া দু’টি বস্তা বের করে এনে আমার একটি পাশ বই খুঁজে পেলেও মা’য়ের নামের পাশ বইটি পায়নি। পরে আমাকে নগদ ৪০ হাজার ৫শত টাকা দিয়ে বাকী টাকা পরবর্তীতে দেয়ার কথা বললে ছেড়ে দেই। প্রকৃত অর্থে গ্রাহকদের কোন টাকা প্রধান কার্যালয়ে জমা হয়নি। ওই টাকা নিজেরাই আত্মসাৎ করেছে। ইতিমধ্যে গ্রাহকের জমাকৃত সমুদয় টাকা পরিশোধের আশ্বাস দিলেও তা পরিশোধ না করায় আমরা সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে টাকা ফেরত পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। সাথে অপরাধীদের গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি। এঘটনার প্রতিকার না হলে এতে সরকারও ও রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংক বীমার প্রতি সাধারন মানুষের আস্তা হারিয়ে ফেলবে।
বীমা গ্রাহক নাজমা আক্তার জানান, ক্ষুদ্রবীমা (ডিপিএস)’র নামে ৭২ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিঃ জেলা ও দেবীদ্বার শাখার কর্মকর্তা দেবীদ্বার পৌর এলাকার বড়আলমপুর গ্রামের মৃত আঃ হামিদ খলিফা’র দুই পুত্র মোঃ আবুল বাশার ও মোঃ জসীম উদ্দিন’কে অভিযুক্ত করে দেবীদ্বার থানায় একটি অভিযোগ পত্র দাখিল করেছি।
গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিঃ’র মাঠ কর্মী মোঃ মমিনুজ্জামান বলেন, গ্রাহকদের মেয়াদ শেষ হওয়ায় স্থানীয় অফিস ও অফিসের কর্মকর্তাদের না পেয়ে ঢাকা প্রধান কার্যালয়ে যাই। ওখানে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, দেবীদ্বার শাখা নামে গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিঃ’র নামে কোন কার্যালয় নেই। তাই দেবীদ্বার শাখার ইনচার্জ মোঃ জসীম উদ্দিনকে জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায় কুমিল্লা কার্যালয়ে কর্মরত তার বড় ভাই আবুল বাশারকে সমস্ত টাকা বুঝিয়ে দেয়। তার বড় ভাই জেলা কার্যালয়ের আবুল বাশারকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জানায় আমি গ্রাহকদের সমস্ত টাকা বুঝিয়ে দেব। তবে গ্রাহকের টাকা কোথায় জমা দিয়েছে সে ব্যপারে কোন সদত্তোর দিতে পারে নাই।

আর পড়তে পারেন