রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দেবিদ্বারে উভয় সংকটে নৌকা, খোশ মেজাজে বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রাথী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২১
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
আগামীকাল রবিবার কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচন। চলতি বছরে একমাত্র বরুড়া পৌর নির্বাচন ছাড়া কোন নির্বাচনেই বিএনপি সক্রিয় ছিল না। নামেমাত্র নির্বাচন অংশগ্রহণই ছিল যেন বিএনপির উদ্দেশ্য। ফলে দাউদকান্দি, হোমনা, চৌদ্দগ্রাম, লাকসামের নির্বাচন গুলোতে আ’লীগ হেসে খেলেই জয়লাভ করেছে। তবে দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদ নির্বাচন এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ইঙ্গিত দিচ্ছে।

নৌকা প্রতিকের প্রার্থী নিজ ঘরেই বার বার প্রতিবন্ধকতার শিকার হচ্ছেন। নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর প্রচারণা থেকে সব কিছুর উপর নির্ভর করতে হচ্ছে দেবিদ্বারের বাইরের এলাকার আ’লীগের নেতাকর্মীর উপর। ঢাকা এবং সদরের নেতাকর্মীরাই মূলত নৌকার সমর্থনের বড় অংশ। বিগত সময়গুলোতে নৌকা প্রতিক পেলেই প্রার্থীরা নির্ভার হয়ে যেতে দেখা গেছে। কিন্তু দেবিদ্বার বিপরীত পথে হাটছে। দেবিদ্বারে মূলত আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আর বিএনপিই প্রভাব বিস্তার করছে। কেন হচ্ছে এমন তা নিয়ে একটু বিশ্লেষণ করা যাক।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভিন্ন স্থানীয় সূত্র জানান, এ উপ-নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের মনোনীত প্রার্থী ঢাকা গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ । অনেকেই বলছেন আবুল কালাম আজাদ মূলত কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের পচ্ছন্দেই নৌকা মনোনীত প্রার্থী হয়েছেন । স্থানীয় সাংসদ রাজী ফখরুল মুন্সি তা মেনে নিতে পারেননি বলে জানা গেছে । দেবিদ্বারে আ’লীগের মধ্যে দু’গ্রুপ রয়েছে বলে জানা যায়। একটি স্থানীয় এমপির, আরেকটি কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের একটি অংশ। আজাদ দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আবদুল হক খোকন নির্বাচন করার ঘোষণা দেন। বিএনপিতে দলীয় মনোনয়ন পান এমপি রাজী ফখরুলের চাচা এএফ এম তারেক মুন্সী । বিভিন্ন নির্বাচনে স্ব্তন্ত্র প্রার্থীকে নির্বাচনের আগেই দলীয় সর্বোচ্চ ফোরাম থেকে ম্যানেজ করে নিস্ত্রিয় করে দেয়া হয়। অনেক ক্ষেত্রে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র নিজেই প্রত্যাহার করে নেন। কিন্তু দেবিদ্বারে তা হয় নি। স্বতন্ত্র প্রার্থী বেশ সক্রিয়। স্বতন্ত্র প্রার্থীর সাথে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ বেশ সক্রিয় নির্বাচনের মাঠে। অপর দিকে নৌকা প্রতিকের পক্ষে বহিরাগতরাই সম্বল। কুমিল্লা সদর ও মহানগরের যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ , আ’লীগের নেতাকর্মীরাই নৌকার পক্ষে কাজ করছেন। ঢাকার কেন্দ্রীয় নেতারাও নির্বাচনী প্রচারণায় কাজ করছেন। অনেক সমঝোতার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু বিভিন্ন সূত্রমতে, সমঝোতার চেষ্টা করা হলেও স্থানীয় নেতাকর্মীদের একটি বৃহৎ অংশের সমর্থন পাচ্ছে না নৌকার প্রার্থী । এমপি রাজী ফখরুল নৌকার পক্ষে আছেন একথা শোনা গেলেও এমপির লোকজন স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষেই কাজ করছেন।

নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করতে গিয়ে সদরের নেতাকর্মীরা মারধরের শিকার হয়েছেন। প্রার্থী নিজেও অবরুদ্ধ হয়েছেন। বহিরাগত আর জামায়াত শিবির এবং বিএনপির অপবাদ দিয়ে নৌকার প্রার্থীর সমর্থনে যাওয়া বহিরাগতদের মারধর করা হয়েছে বেশ কয়েকবার।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে প্রচারণা শেষে যাওয়ার সময় আ’লীগ দলীয় প্রার্থী আবুল কালাম আজাদের গাড়ি বহরে হামলার ঘটনা ঘটে। হামলার পর কুমিল্লার উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রোশন আলী মাষ্টার, নৌকার প্রতিকের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদসহ বেশ কিছু নেতাকর্মী মা মনি হাসপাতাল সংলগ্ন গোলাম ফারুকী মিলনায়তনে কয়েক ঘন্টা ধরে অবরুদ্ধ অবস্থায় ছিলেন। এ সময় গাড়ি ভাংচুর ও নেতাকর্মীদের উপর হামলা হয়।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাত ৭ টায় দেবিদ্বার আর.পি. উচ্চবিদ্যালয়ের সামনে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আ’লীগের ২ গ্রুপের মধ্যকার সংঘর্ষে ২ জন গুলিবিদ্ধসহ ৫ জন আহত হয়েছেন । গুলিবিদ্ধরা হলেন দেবিদ্বার পুরাতন বাজার কাজী বাড়ির ছালাম কাজীর পুত্র ফয়েজ মালি (২৫), আব্দুল খালেক এর পুত্র শাহাবুদ্দিন (২০)। আহতরা হলেন কুমিল্লা সদর উপজেলার দুলিয়া পাড়ার মোঃ ইসমাইল হোসেন এর ছেলে মোঃ মোজাম্মেল (২৫), আনোয়ার হোসেন এর ছেলে মোঃ পিয়াস এবং মোঃ হোসেন এর ছেলে সাইফুল ইসলাম (১৮)। আহতরা সবাই কুমিল্লা সদরের আ’লীগের নেতাকর্মী। তারা নৌকা প্রতিকের পক্ষে প্রচারণায় গিয়েছিলেন।

এ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী তারেক মুন্সি হলেন এমপি রাজী ফখরুলের চাচা। বিএনপি এখন বেশ ফুরফুরে মেজাজে আছে। নৌকা আর স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে বার বার সংঘর্ষ হচ্ছে ,ফলে লাভবান হচ্ছে বিএনপি। নির্বাচনের দিন যদি নৌকা ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষ অব্যাহত থাকে ‍বিএনপিই চমক দেখাতে পারে। এছাড়া বিএনপির নেতাকর্মীর নামে কোন মামলাও হয়নি নির্বাচনী প্রচারণার সময়। ফলে সাংগাঠনিকভাবে দুর্বল বিএনপির নেতাকর্মীরাও বেশ সক্রিয় এ নির্বাচনে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, নৌকার প্রার্থী আ;লীগের অর্ন্তকোন্দলের জন্য স্থানীয় মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের কাছে টানতে পারেন নি। বহিরাগত আসনের নেতাকর্মীদের উপরই নির্ভর করছেন তিনি। ফলে স্থানীয়দের সাথে সর্ম্পকটা ভাল হয়ে উঠেনি। নির্বাচনের বেশ কয়েকদিন আগেই থেকেই বিভিন্ন উপজেলা থেকে বিশেষ করে সদরের আ’লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা দেবিদ্বারে পৌছেছেন নৌকাকে সমর্থন দেওয়ার জন্য। তবে তা কতটা কার্যকর হবে, তা সময়ই বলবে।

নৌকা প্রতিকের সর্মথিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যুবলীগ নেতা জানান, দলীয় কোন্দল নির্বাচনে প্রভাব ফেলছে। এখন পর্যন্ত স্বতন্ত্র প্রার্থীকেই ম্যানেজ করা যায়নি। ফলে বিএনপি সুযোগ নিচ্ছে। তবে আমরা আশা করি নির্বাচনে নৌকাই বিজয়ী হবে।

আ’লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র )প্রার্থী সমর্থিত এক ছাত্রলীগ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ব্যবসায়ি আর রাজনীতিবিদ এক নয়। টাকা দিয়ে সব সময় সব কিছু হয় না। রাজনীতি করলেই তো মাঠ নিয়ন্ত্রণে থাকতো। বাইরের লোক ভাড়া করে এনে পাশ করা যায় না। তাই আমাদের প্রার্থীই বিজয়ী হবে।

বিএনপি প্রার্থীর সমর্থিত এক ছাত্রনেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, এখন পর্যন্ত সব ঠিক আছে । মানুষ ভোট দিতে পারলে বিএনপির বিজয় কেউ আটকাতে পারবে না।

কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাষ্টার জানান, নৌকার পক্ষে জনসমর্থন রয়েছে। আমরা বিজয়ী হবো ইনশাল্লাহ।

এদিকে নির্বাচনটি সুষ্ঠু ও অবাধ করার জন্য জেলা প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন ও পুলিশ প্রশাসন বেশ তৎপর।
এদিকে দেবিদ্বারে প্রতিদিনই সংঘর্ষ হচ্ছে। তাই এ নির্বাচনের দিন সংঘর্ষ আরো বৃদ্ধি পেতে পারে বলে স্থানীয়রা আশংকা করছেন।

উল্লেখ্য যে, ১টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়ন নিয়ে দেবিদ্বার উপজেলা গঠিত। দেবিদ্বার উপজেলায় এবারের মোট ভোটার ৩ লক্ষ ৭৫ হাজার ৫০২ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লক্ষ ৭১ হাজার ৮২০ জন এবং নারী ভোটার ১ লক্ষ ৬৫ হাজার ৬৮২ জন। ভোটাররা মোট ১১৪ টি ভোট কেন্দ্র স্থায়ী ও অস্থায়ীসহ ৭৭০ টি ভোট কক্ষে তাদের ভোট প্রয়োগ করবেন। আ.লীগ, বিএনপি , জাতীয় পার্টি এবং স্বতন্ত্র নিয়ে মোট ৪ জন প্রাথী এবারের উপ-নির্বাচনে লড়াই করছেন।

নির্বাচনে বড় দু’দল আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মো. আবুল কালাম আজাদ, বিএনপি দর্লীয় মনোনীত প্রার্থী এএফ এম তারেক মুন্সী, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী মো, আব্দুল আউয়াল সরকার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল হক খোকন।

আর পড়তে পারেন