রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করতে হবে- অর্থমন্ত্রী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৬, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল  বলেছেন, আজ মহান স্বাধীনতা দিবস এবং ৪৯তম জাতীয় দিবস। আজ একইসঙ্গে বেদনা ও আনন্দের দিন। বেদনাকে প্রতিজ্ঞায় পরিণত করে যুদ্ধের শপথ নেওয়ার দিন আজ।১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী গণহত্যার সূচনা করে। নিরস্ত্র নিরপরাধ বাঙালির বিরুদ্ধে অঘোষিত যুদ্ধ ঘোষণা করে। তখন মুক্তি সংগ্রামের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা করেন।মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে দেশের এই উন্নয়ন ও গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষা করব। দেশ ও জাতির কল্যাণে আত্মনিয়োগ করব।গড়ে তুলবো জাতির পিতার ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত ও সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ। আজকের এ ঐতিহাসিক দিনে এই হোক আমাদের অঙ্গীকার। মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের শ্রেষ্ঠ সন্তান, তাদের প্রাণের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি আমাদের প্রিয় স্বাধীনতা। তাদেরকে সম্মানিত করতে পেরে আমি গর্বিত, এই জাতি গর্বিত।

মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) বিকেলে মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার শিরোনামে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৯ উদযাপন উপলক্ষে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারবর্গ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, জাতির পিতা আমাদেরকে মুক্তি এনে দিয়েছেন কিন্তু তার সোনার বাংলার স্বপ্নে অর্থনৈতিক মুক্তি এনে দেওয়ার পূর্বেই কুচক্রীমহলের ঘৃণ্য চক্রান্তে তিনি তা করে যেতে পারেননি।আর জাতির পিতার সেই অসমাপ্ত কাজের দায়িত্ব নিয়েছেন আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সামগ্রিক অর্থেই এগিয়ে চলেছে। সেই এগিয়ে চলার পথ সুগম করতে আমাদেরকে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে, দেশকে সুন্দর করে সাজাতে হবে, সবার আগে দূর্নীতি রুখতে হবে।প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত দুর্নীতিতে জিরো টলারেন্স নীতি আমাদের সকলের বিশ্বাসে রাখতে হবে। সততার সাথে, নিষ্ঠার সাথে ও দায়িত্বশীলতার সাথে আমাদের কাজ করতে হবে।তাই দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করতে হবে। ঘুষ-দুর্নীতি এ দু’টি অপরাধ থেকে দেশকে মুক্ত করার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা করছি। আমাদের নবীজি ঘুষ-দুর্নীতি পছন্দ করতেন না। আমাদের সবার উচিত প্রিয় নবীর পথ অনুসরণ করা। ঘুষ দিলেই জাহান্নামে যেতে হবে। দেশ অনেক এগিয়ে যাচ্ছে। কোনো কাজ দু’দিন দেরি হলেও আমরা ঘুষ দেবো না। আমাদের নির্বাচনী ইশতেহারেও রয়েছে আমরা দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গড়ব, তাই জাতি আমাদের কাছে সেই দূর্নীতিমুক্ত সমাজের প্রত্যাশায় রয়েছে, আমরা সেই দূর্নীতমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।আপনাদের কাছে এলাকার সন্তান হিসাবে, পরিবারের একজন হিসাবে আমার অনুরোধ আসুন দূর্নীতিকে না বলি। আমরা এই সদর দক্ষিন উপজেলা থেকেই আজ শুরু করলাম, আর এভাবেই আমরা পুরো দেশকে সাজাবো।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আরো বলেন, উন্নয়নের মহাসড়কে উঠার কথা অনেক আগে থেকেই সর্বমহলে উচ্চারিত হচ্ছে। আমরা যদি আজেকের সংবাদপত্র বা টিভি নিউজগুলো দেখি দেখতে পাবো সবাই অত্যন্ত সুন্দর করে নিউজ করেছে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশের আজও কতগুলো নজির স্থাপন করেছে। তারমানে বাংলাদেশের অগ্রগতি এখন আর শুধু আমাদের মুখের বা শুধু বাংলাদেশের স্বীকৃতি নয়, সমগ্র বিশ্ব আর আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো স্বীকৃতি দিয়েছে।এই মার্চের ১৩ তারিখের রিপোর্ট।বিশ্বের ৩০তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক নেতা হিসেবে দ্রুত অগ্রগতি করছে,  আগামী কয়েক বছরের মধ্যে ট্রিলিয়ন ডলার জিডিপি নিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বের ৩০তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশে পরিণত হতে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্বব্যাংক গ্রুপের এমআইজিএ (MIGA) সংস্থার ভাইস-প্রেসিডেন্ট এস বিজয় আইয়ের।তার মতে ধারাবাহিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশকে বিদেশি বিনিয়োগের জন্য নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে দেখা যাচ্ছে, বিশেষ করে শক্তি, অবকাঠামো, উৎপাদন ও কৃষির মতো গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রগুলোতে, দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক নেতা হিসেবে দ্রুত অগ্রগতি করছে বাংলাদেশ।মাত্র কয়েকদিন আগের রিপোর্ট, খ্যাতিমান ব্রিটিশ পত্রিকা স্পেক্টেটর ইনডেক্সের। স্পেক্টেটর ইনডেক্স বা সূচক একটি সাপ্তাহিক ব্রিটিশ পত্রিকা, সেখানে বিশ্বের রাজনীতি, অর্থনীতি, ইতিহাস, সামরিক বিষয়, ক্রীড়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। তাদের মতে, বিশ্বব্যাপী সর্বোচ্চ মাথাপিছু অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে গত পাঁচ বছরে চীন ও ভারতের সমানতালে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। স্পেক্টেটর ইনডেক্স রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে, গত পাঁচ বছরে বাংলাদেশের ক্রয় সক্ষমতা ছিল ৪৫ শতাংশ, যা প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত ও চীনের সমান। গত ফেব্রয়ারীর ৩ তারিখে আমাদের অনেক দৈনিকও সংবাদটি প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশের অগ্রগতি এখন আর শুধু আমাদের মুখের কথা নয়, এখন আর শুধু স্বপ্ন নয়,  সমগ্র বিশ্ব-আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো স্বীকৃতি দিয়েছে।

স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৯ উদযাপন উপলক্ষে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারবর্গ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আরো উপস্থিত ছিলেন সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল হাই বাবলু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রূপালী মন্ডল ও উপজেলা আওয়ামী লীগ, কৃষকলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ দলীয় সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আর পড়তে পারেন